এক টেস্টে আম্পায়ারের এত ভুল!

আপডেট: অক্টোবর ২৩, ২০১৬, ১০:১৫ অপরাহ্ণ


সোনার দেশ ডেস্ক
চট্টগ্রাম টেস্টের প্রথম দিন থেকেই একের পর এক রিভিউ নিয়েছে দুই দলই। প্রথম ইনিংসে রিভিউ নেওয়ার ঘটনাই ১০টি। টেস্টে এক ইনিংসে এত রিভিউয়ের ঘটনা আগে কখনোই ঘটে নি। চতুর্থ দিনের চা-বিরতির আগ পর্যন্ত দুই দল রিভিউ নিয়েছে ২৩ বার। ইংল্যান্ড নিয়েছে ১২ বার, বাংলাদেশ ১১ বার।
প্রতি ৮০ ওভারে দুটি করে রিভিউ নেয়ার সুযোগ থাকে। এর মধ্যে দুটি ভুল রিভিউ নিয়ে শেষ হলে গেলে ৮০ ওভার পর নতুন দুটি রিভিউ পাবে সেই দল। তবে আগের দুটি রিভিউ থেকে গেলেও নতুন ৮০ ওভারে সেই দুটি রিভিউই থাকে। এই টেস্টে দুটি দল এখন পর্যন্ত এতগুলো রিভিউ নিতে পেরেছে বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই সফল রিভিউয়ের জন্য।
যে ২৩ বার রিভিউ নেয়া হয়েছে, এর মধ্যে আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত ভুল প্রমাণিত হয়েছে ১০ বার। কুমারা ধর্মসেনার সিদ্ধান্তই ভুল প্রমাণিত হয়েছে সাতবার। বাকি তিনটি ক্রিস গ্যাফেনির। লঙ্কান আম্পায়ারের বারবার ভুল দেখে কেউ তো রসিকতাও করছে, ‘ধর্মসেনা রিভিউ সিস্টেম (ডিআরএস)’! আরেকজন টুইট করেছেন, ‘ধর্মসেনার কোনো সিদ্ধান্ত রিভিউয়ে যাওয়ার পর এত দেখার কী আছে। ধর্মসেনা যা রায় দিয়েছেন, সেটার উল্টোটাই তো হবে।’
প্রযুক্তির সহায়তা নিয়ে আম্পায়ারের ভুল সিদ্ধান্ত থেকে বেঁচে যাচ্ছে ব্যাটিং কিংবা ফিল্ডিং দল। এটা ঠিক, স্পিন-সহায়ক উইকেটে আম্পায়ারদের ভুল করার প্রবণতা তুলনামূলক বেড়ে যায়। কিন্তু ভুলটা যদি খুব ঘন ঘন হতে থাকে, আম্পায়ারদের দক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে বাধ্য। বিশেষ করে চট্টগ্রাম টেস্টে এতবার রিভিউ নেয়া হয়েছে, তাতে মনে হতেই পারে, আম্পায়ারদের ভুলের সুযোগে দুই দলই রিভিউ নেয়ার খেলায় মেতেছে!
এমন নয়, এই টেস্টে আম্পায়াররা ওই ১০ বারই ভুল করেছেন। মাত্র দুটি সফল রিভিউ করা যায় বলে অধিনায়কেরা রিভিউ নেয়ার সময় বেশ ভাবেন। অনেক সময় রিভিউ নেবেন নেবেন করে নেনও না। পরে রিপ্লেতে দেখা যায়, রিভিউ নিলেই ঠিক হতো। এই টেস্টেই যেমন মেহেদী হাসান উইকেটবঞ্চিত হয়েছেন মুশফিক রিভিউ না নেয়ায়। গতকাল যেমন ইমরুলের বিপক্ষে একটি আবেদনে রিভিউ নিলেন না কুক। অথচ ইমরুল আউট হয়ে যেতেন রিভিউটা নিলে।
অর্থাৎ, এই সিদ্ধান্তগুলোও ভুল দিয়েছেন আম্পায়াররা। এক টেস্টের চার দিনে যদি ১৩-১৪টি ভুল সিদ্ধান্ত দেন, আম্পায়ারিং নিয়ে প্রশ্ন তো ওঠেই। বিশেষ করে ভুল আম্পায়ারিংয়ের কারণে বাংলাদেশের অতীতে ভোগার কষ্টকর স্মৃতি যখন অনেকগুলোই আছে।-প্রথম আলো অনলাইন