এখনও হিটলারের জন্য ঘণ্টা বাজে এখানে

আপডেট: আগস্ট ২১, ২০১৭, ১২:৪১ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে জার্মানির পরাজয়ের পরেই জনপ্রিয়তা খোয়ান ফুয়েরার হিটলার। আত্মহত্যা করে মান বাঁচান একদা প্রবল পরাক্রমশালী এই এক নায়ক। তাঁর জন্যই যুদ্ধের যাবতীয় দায়ভার বহন করতে হয়েছে জার্মানিকে। তাই হিটলারের স্মৃতিকে অপ্রাসঙ্গিক করতে উদ্যত জার্মানি। তবু জার্মান আর্য রক্তের শ্রেষ্ঠত্বে মশগুল কিছু মানুষ। ফিরে আসছে নতুন নাৎসিবাদ। যা নিয়ে সতর্ক অ্যাঞ্জেলা মেরকেল প্রশাসন।
এই যখন অবস্থা তখন এক প্রত্যন্ত গ্রামে দেখা মিলল একটি গির্জার, যেখানে হিটলারের শুভকামনায় এখনও বাজানো হয় ঘণ্টা। আর সে ঘণ্টায় খোদাই করা, ‘পিতৃভূমির জন্য সমর্পিত, অ্যাডলফ হিটলার।’ বড় বড় করে তাতে আঁকা আর্যরক্তের আভিজাত্যের প্রতীক স্বস্তিক চিহ্ন। এই ঘণ্টা আবিষ্কারের পর থেকেই তা সরানোর দাবি উঠেছে। অনেকে আবার বলছেন, জাতীয় লজ্জার একটা পর্বকে তুলে ধরতে এই ঘণ্টা সংরক্ষণ করা হোক । ঘণ্টার ভবিষ্যৎ নিয়ে গ্রামের মানুষ এখনও সিদ্ধান্ত নিতে পারেননি।
আমেরিকার মধ্যে কনফেডারেট দেশ গঠনের দাবি উঠেছিল ১৮৬১ থেকে ৬৫ সাল নাগাদ। দাসপ্রথার সমর্থকরা লড়াই করেছিল সেনার সঙ্গে। এই কনফেডারেট যোদ্ধাদের মূর্তিভাঙ্গা নিয়ে এখন জোর বিতর্ক চলছে ওয়াশিংটনে। সেই শ্বেতাঙ্গদের সমর্থন করেছে নব্য নাৎসিরা। জার্মানিতেও হিটলারের আমলে তাঁর সমর্থনে গির্জা থেকে স্তোকবাক্য পাঠ করানো হত। পরে সেই রীতি বিলুপ্ত হয়। তবে বহাল তবিয়তে রয়ে গিয়েছে কিছু ঘণ্টা।
তথ্যসূত্র: আজকাল