এখনো সচেতনতা নেই টিসিবির পণ্যে কিনতে

আপডেট: মার্চ ২৬, ২০২০, ১২:২০ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


সামাজিক দূরত্ব বজায় না রেখে নগরীতে টিসিবি পণ্য ক্রয় করছেন ক্রেতারা-সোনার দেশ

সরকারের পক্ষ থেকে করোনার সংক্রমণে রুখতে সবধরনের জনসমাগম নিষিদ্ধ করা হয়েছে। প্রয়োজন ছাড়া সবাইকে বাইরে বের না হওয়ার জন্য অনুরোধ জানানো হয়েছে। অন্যদিকে বন্ধ করা হয়েছে সামাজিক সকল অনুষ্ঠান ও নগরীর বিনোদন কেন্দ্রগুলোও। কিন্তু নিষেধ অমান্য করে নগরীর বিভিন্ন পয়েন্টে ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) ট্রাকের সামনে পণ্যে নিচ্ছে ঘানষ্ট লাইনে দাঁড়িয়ে শত শত মানুষ। গতকাল মঙ্গলবার সকালে নগরীর আলুপট্টি, সাহেববাজার এলাকায় দেখা গেছে এমন দৃশ্য। টিসিবির পণ্য নিতে ক্রেতাদের বিশাল লাইন। সবাই গা ঘেষাঘেশি করেই পণ্যে কিনছেন। কয়েকজন ক্রেতার সাথে কথা বলে জানা গেছে, করোনাভাইরাস তাদের কাছে খুব একটা গুরুত্ব পাচ্ছে না। তবে পণ্য ক্রয়ের সময় দূরে দূরে থাকার বিষয়ে জানিয়েছে স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা।
রামেক হাসপাতালের চিকিৎসকরা এ ব্যাপারে জানান, বিষয়টি অনেক গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু সাধারণ মানুষের মাঝে এখনো করোনার বিষয়ে গুরুত্ব কম দেখা যাচ্ছে। এটা যে অনেক ভয়াবহ তা তারা বুঝতে পারছে না। শুধু টিসিবি নয়- বাজার করতে আসা সব ক্রেতাকেকে দূরত্ব বজায় রাখতে পরামর্শ দিচ্ছেন চিকিৎসকরা। রামেক হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. হারুণ আর-রশীদ জানান, এই সময় কারো প্রয়োজন ছাড়া বাইরে বের না হওয়াই ভালো। কিন্তু কাঁচা বাজারে ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড় লক্ষ্য করা যাচ্ছে। অনেকের মাঝে সচেতনতা নেই। কিন্তু সবাইকে এ সময় সতর্ক থাকা দরকার।
এদিকে টিসিবির আঞ্চলিক কার্যালয় থেকে জানা যায়, মুজিববর্ষ উপলক্ষে গত ১৭ মার্চ থেকে নগরীতে ১০ জন ডিলারের মাধ্যমে খোলাবাজারে ৩৫ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ, ৮০ টাকা লিটারে সয়াবিন তেল এবং ৫০ টাকা দরে ডাল ও চিনি বিক্রি শুরু হচ্ছে। আগামী ৩১ মার্চ পর্যন্ত এই বিক্রি চলবে। আর রমজান উপলক্ষে ১ এপ্রিল থেকে টিসিবি পণ্যে যোগ হবে ছোলা ও খেজুর। ৩১ মে পর্যন্ত এই পণ্য বিক্রি হবে।
কথা হয় কয়েকজন ক্রেতার সাথে। তারা জানাচ্ছেন, করোনাভাইরাস সংক্রমণের বিষয়ে তারা জানেন। আর জনসমাগম নিষিদ্ধের বিষয়টিও জানেন। কিন্তু এখানে পণ্যে কম দামে পাওয়ায় বেশি মানুষ ভিড় করছে। বাজারে ৭০ টাকা দরে পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে আর এখানে বিক্রি হচ্ছে ৩৫ টাকায়।
টিসিবির পণ্য নিতে আসা রোকেয়া সুলতানা জানান, করোনার বিষয়ে জানি কিন্তু কী করবো বাজারে জিনিসের দাম বেশি। তাই এখানে দাম কম পাওয়ায় কিনতে হচ্ছে। কিন্তু ভিড়ের বিষয়ে বিষয়টি কর্তৃপক্ষের দেখা উচিত। পণ্যে কিনতে আসা রহমত জানান, এমন ভিড় প্রতিদিন থাকে। সবাই এভাবেই জিনিস কিনেÑ কিছই করার নেই। টিসিবির আঞ্চলিক প্রধান প্রতাপ কুমার বলেন, ‘সরকারের তরফ থেকে পণ্য বিক্রি করা হলে আমরা তো বন্ধ রাখতে পারি না। মানুষ তাদের প্রয়োজনের তাগিদেই লাইনে দাঁড়াচ্ছেন।’
অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মহাম্মদ শরিফুল হক জানান, এ বিষয়ে টিসিবি ক্রেতাদের দূরত্ব বজায় রেখে পণ্যে কেনার জন্য বলা হবে। জেলা প্রশাসক কার্যলয়ের পক্ষ থেকে আমরা এমন উদ্যোগ নিয়ে ক্রেতাদের বোঝানোর চেষ্টা করবো যেন সবাই দূরত্ব রেখে পণ্যে কিনে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ