এবারই প্রথম ঢাকার বাস্কেটবল প্রিমিয়ার লিগে রাজশাহীর দশ খেলোয়াড়

আপডেট: মার্চ ১২, ২০১৭, ১২:১৪ পূর্বাহ্ণ

ক্রীড়া প্রতিবেদক


প্রথমবারের মতো ঢাকার বাস্কেটবল প্রিমিয়ার লিগে রাজশাহীর দশজন ছেলে খেলার সুযোগ পেয়েছেন। এরা হলেন, ফ্লেম বয়েজ ক্লাবে ফাহিম, অমিত, হাফিজুল, চয়েস, সিহাম, বাবু, শিমুল ও আশিক এবং অরনেস্ট ক্লাবে হামিদুল ও মৃদুল খেলছেন।
বাংলাদেশ বাস্কেটবল ফেডারেশনের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক এবং রাজশাহী জেলা ও বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থার যুগ্মসম্পাদক খায়রুল আলম ফরহাদের সর্বাত্মক চেষ্টায় এই দশজন খেলোয়াড় বাস্কেটবলের ঘরোয়া বড় আসরে খেলার সুযোগ পেয়েছেন। কারণ এর আগে বাস্কেটবল লিগে রাজশাহী ছেলেরা খেলেছেন। তবে বিভিন্ন সার্ভিস দলে চাকরির সুবাদে খেলার সুযোগ পেতেন। কিন্তু ক্রীড়া সংগঠক খায়রুল আলম ফরহাদ দীর্ঘদিন ধরে বাস্কেটবলকে রাজশাহীতে জনপ্রিয় করার জন্য বল প্রদানসহ স্থানীয় খেলোয়াড়দের অনুশীলনের জন্য নিরলসভাবে কাজ করে গেছেন। বর্তমানেও তিনি ক্রীড়াঙ্গনের বড় পদে থেকে রাজশাহীর খেলাধুলার জন্য কাজ করছেন। অথচ খেলোয়াড়দের পর্যাপ্ত অনুশীলনের জন্য অনেক সময় তাকে বাধার সম্মুখিন হয়েছেন। তারপরও তিনি থেমে থাকেনি। তিনি বিভিন্ন ব্যক্তির সহযোগিতা নিয়ে রাজশাহীর বাস্কেটবলকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য সামনে থেকে বর্তমানে নেতৃত্ব দিচ্ছেন।
এ ব্যাপারে খায়রুল আলম ফরহাদ বলেন, আমি ক্রীড়া সংগঠক হিসেবে প্রত্যেকটা খেলার প্রতি টান রয়েছে। তবে আমি ব্যক্তিগতভাবে বাস্কেটবল খেলাকে একটু বেশি প্রাধন্য দিয়ে থাকি। কারণ ক্রিকেটের মতো বাস্কেটবলেও অনেক সম্ভাবনা রয়েছে। এই খেলা খেলে অনেক খেলোয়াড়ও প্রচুর আয় করতে পারেন। বিভিন্ন দেশে গিয়ে দেখেছি, তারা বাস্কেটবল খেলাটা ব্যাপকভাবে গ্রহণ করেছে। তাই আমি মনে করি রাজশাহীতে সারাবছর অনুশীলনের ব্যবস্থা থাকলে আগামীকে ঢাকার প্রিমিয়ার লিগসহ দেশের বিভিন্ন টুর্নামেন্টে প্রচুর সংখ্যাক খেলোয়াড় দেওয়া যাবে। রাজশাহী বিভাগীয় মহিলা ক্রীড়া কমপ্লেক্সে, জেলা জিমনেসিয়ামসহ নগরীতে অনেকগুলো বাস্কেটবল খেলা ও অনুশীলনের জন্য জায়গা রয়েছে। সেগুলো সারাবছর ফাঁকা না ফেলে উদীয়মান বাস্কেটবল খেলোয়াড়দের অনুশীলনের সুযোগ করে দিলে অনেক খেলোয়াড় পাওয়া যাবে বলে তিনি মনে করেন। এজন্য সবার সহযোগিতা প্রয়োজন রয়েছে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ