এসিডি’র উদ্যোগে বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে পরামর্শ সভা অনুষ্ঠিত

আপডেট: সেপ্টেম্বর ২৯, ২০২২, ২:৫৪ অপরাহ্ণ


সংবাদ বিজ্ঞপ্তি :


বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে বিভিন্ন পর্যায়ের কমিটি সক্রিয় করার তাগিদ দিলেন রাজশাহীর অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট একই সাথে বাল্যবিবাহের মুল কারণগুলো আবারো খুঁজে বের করে তা সমাধানে সকলের সমন্বিত অংশগ্রহণ জরুরী বলেও মন্তব্য করেন। সরকার বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে কঠোর নীতি অবলম্বন করেছে।

বৃহস্পতিবার (২৯ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ১১টায় রাজশাহী জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে এক পরামর্শ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভাটি ইউনিসেফ’র সহযোগিতায় এ্যাসোসিয়েশন ফর কম্যুনিটি ডেভেলপমেন্ট (এসিডি) আয়োজন করে।

অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সাবিহা সুলতানার সভাপতিত্বে পরামর্শ সভায় শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন এসিডি ডিরেক্টর প্রোগ্রাম শারমিন সুবরীনা। সভায় বাল্যবিবাহের সার্বিক পরিস্থিতি, মূল কারণসমূহ এবং বিভিন্ন পর্যায়ের কমিটি সক্রিয় করার বিভিন্ন দিক উপস্থাপন করেন এসিডি প্রোগ্রাম ম্যানেজার মনিরুল ইসলাম পায়েল।

সভায় করোনাকালে বাল্যবিবাহের প্রভাব নিয়ে প্রাপ্ত গবেষণার ফলাফল নিয়ে মূখ্য আলোচনায় অংশ নেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের প্রফেসর এবং জনসংযোগ প্রশাসক ড. প্রদীপ কুমার পান্ডে।

সভায় অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সাবিহা সুলতানা বলেন, বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ করতে উপজেলা ও জেলা পর্যায়ের কমিটি সক্রিয় হলে বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে ভাল ফল পাওয়া সম্ভব। পাশাপাশি সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের সমন্বিত উদ্যোগ গ্রহণের মাধ্যমে বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে সরকার কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে।

মূখ্য আলোচক প্রফেসর ড. প্রদীপ কুমার পান্ডে বলেন, বাল্যবিবাহ রোধে সরকারের সদিচ্ছার কোনো অভাব নেই। তবে জনসচেনতা বৃদ্ধি বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে গুরুত্বপূর্ণ ভ‚মিকা রাখতে পারে, তাই আমাদের সমষ্টিগতভাবে কাজ করতে হবে ।

সভাপতির বক্তব্যে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সাবিহা সুলতানা বলেন, বাল্যবিবাহ রোধে জাতীয় থেকে ইউনিয়ন পর্যায়ে কমিটি গঠণ করা হয়েছে। ইউনিয়ন পর্যায়ে কমিটির সক্রিয়করণের এবং নিয়মিত প্রতিবেদন দেয়ার ব্যাপারেতাগিদ দেয়া হয়েছে।

পরামর্শ সভায় শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন এসিডি ডিরেক্টর প্রোগ্রাম শারমিন সুবরীনা বলেন, বাল্যবিবাহ একটি সামাজিক ব্যাধি। এটি রোধ করতে না পারলে এসডিজির ৫ নং অভীষ্ট (লিঙ্গতিত্তিক সমতা ও নারীদের ক্ষমতায়ন) অর্জন বাঁধাগ্রস্থ হতে পারে। আমরা মনে করি বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে বিভিন্ন পর্যায়ের কমিটির কার্যক্রম সক্রিয় ও জোরদার করলে বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে একটি মাইলফলক তৈরী করা সম্ভব হবে।

পরামর্শ সভায় বক্তারা বাল্যবিবাহ বন্ধে আইনের সঠিক প্রয়োগ নিশ্চিত করা, বাল্যবিবাহ নিরোধ আইনের যথাযথ প্রয়োগ জেলা, উপজেলা এবং ইউনিয়ন পর্যায়ে বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ কমিটি কার্যকর ও সক্রিয় করা, বাল্যবিবাহ ও নারীর প্রতি সহিংসতা রোধে সামাজিক, সাংস্কৃতিক চর্চা, অংশীজনের অংশগ্রহণে সুস্পষ্ট পরিকল্পনা প্রণয়ন, সরকারিও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে সমন্বয় এবং বাল্যবিবাহের ক্ষতিকর দিকগুলো নিয়ে ব্যাপক প্রচার প্রচারণা চালানোর উপর জোর তাগিদ দেন।

পরামর্শ সভায় জেলা প্রশাসনের সহকারি কমিশনার ইশতিয়াক মাজনুন ইশতি, যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের উপপরিচালক এটিএম গোলাম মাহবুব, পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের উপপরিচালক কস্তুরি আমিন কুইন, রাজশাহী জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা নাসির উদ্দিন, রাজশাহী

জেলা শিশু বিষযক কর্মকর্তা মনজুর কাদের, দৈনিক সোনার দেশ সম্পাদক আকবারুল হাসান মিল্লাত, রাসিক ৬ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর নুরুজ্জামান টুকুসহ জেলার বিভিন্ন সরকারী দফতরের কর্মকর্তা, আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য, নাগরিক সমাজের প্রতিনিধি, কাজী, ইমাম, শিক্ষক, বেসরকারী সংগঠন এবং গণমাধ্যমের প্রতিনিধিসহ এসিডির শিশু ও কিশোর কিশোরী দলের সদস্যবৃন্দ।

 

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ