ওয়ানডেতেও ফুরফুরে বাংলাদেশ, ঘুরে দাঁড়াতে মরিয়া শ্রীলঙ্কা

আপডেট: মার্চ ২৫, ২০১৭, ১২:৩৪ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক



কলম্বো থেকে ডাম্বুলার দূরত্বটা খুব বেশি নয়, মাত্র ১৭৫ কিমি। শততম টেস্ট জয়ের পরই কলম্বোতে প্রস্তুতি ম্যাচও খেলেছে বাংলাদেশ। এরপর অবশ্য ওয়ানডে ম্যাচের ভেন্যুতে চলে আসেন মাশরাফিরা। শ্রীলঙ্কার একবারে মাঝখানে থাকা এই শহরটি বোলারদের স্বর্গভূমি বলে পরিচিত। ডাম্বুলায় পৌঁছেই অনুশীলন শুরু করে দেয় বাংলাদেশ। আজ শনিবার প্রথম ওয়ানডেতে স্বাগতিকদের বিপক্ষে মাঠে নামবে মাশরাফির দল। প্রথম ওয়ানডে ম্যাচের আগে দারুণ ফুরফুরে বাংলাদেশ দল। আর বাংলাদেশের শততম টেস্ট ম্যাচে হারের পর ওয়ানডে ম্যাচে জিতে অবশ্য ঘুরে দাঁড়াতে মরিয়া শ্রীলঙ্কা দলটি। খেলাটি শুরু বাংলাদেশ সময় দুপুর ৩টায়।
শততম টেস্ট জয়টা দলের সবার মধ্যে বাড়তি আত্মবিশ্বাস এনে দিয়েছে মাশরাফিদেরকে। ব্যাট হাতে ভালো ফর্মে রয়েছেন তামিম ইকবাল, সাকিব আল হাসান, সৌম্য সরকার, সাব্বির রহমান ও মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতরা। এ ছাড়া বল হাতে আগুন ঝড়ানোর জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন কাটার মাস্টার মোস্তাফিজুর রহমান, তাসকিন আহমেদরা। বাড়তি স্পিনার হিসেবে মেহেদী হাসান মিরাজের উপস্থিতিও বাংলাদেশের শক্তি বাড়িয়েছে।
অপরদিকে বাংলাদেশের বিপক্ষে কলম্বো টেস্টে ৪ উইকেটে হারের পর বেশ কঠিন সময়ের মধ্য দিয়েই যাচ্ছে শ্রীলঙ্কার ক্রিকেট। সংবাদ মাধ্যমগুলোতে চলছে সমালোচনা। দেশটির একটি সংবাদ মাধ্যম তো বাংলাদেশের বিপক্ষে হারের দিনকে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেটের মৃত্যু দিবস হিসেবেই ঘোষণা করে। পরে কোচিং স্টাফ ও খেলোয়াড়দের জুরুরি তলব পর্যন্ত করে লঙ্কান ক্রিকেট বোর্ড। এমনকি আল্টিমেটামও দিয়ে দেয়া হয়েছে দলটিকে। এবস্থায় শনিবার ডাম্বুলায় বাংলাদেশের বিপক্ষে তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে মাঠে নামবে স্বাগতিকরা।
কলম্বো টেস্টে হারের নিদারুণ কষ্ট তো আছেই। এছাড়া ইনজুরিও স্বস্তিতে থাকতে দিচ্ছে না শ্রীলঙ্কাকে। হ্যামস্ট্রিং ইনজুরির কারণে টেস্ট সিরিজে খেলা হয়নি নিয়মিত অধিনায়ক অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুজের। ম্যাথুজের পরিবর্তে তাই ওয়ানডে সিরিজে দলকে নেতৃত্ব দেবেন উপুল থারঙ্গা। টেস্টে নেতৃত্ব দিয়েছেন রঙ্গনা হেরাথ। দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে ওয়ানডে সিরিজ ও জিম্বাবুয়েতে ত্রিদেশিয় সিরিজেও থারাঙ্গা নেতৃত্ব দিয়েছিলেন দলকে। অন্যদিকে পেসার লাসিথ মালিঙ্কা দীর্ষ ইনজুরির ধকল কাটিয়ে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজে ফিরেছিলেন। কিন্তু ওয়ানডেতে ফেরার জন্য এখনো পুরো ফিটনেস ফিরে পাননি। এর মধ্যে আবার উইকেট কিপার ও ওপেনিং ব্যাটসম্যান কুশল পেরেরা চোটের কারণে ছিটকে গেছেন প্রথম দুই ওয়ানডে থেকে।
এতো কিছুর মাঝে ওয়ানডেতে নিজেদের সাম্প্রতিক ফর্ম নিয়েও ভাবতে হচ্ছে শ্রীলঙ্কাকে। সদ্যই ফেব্রুয়ারিতে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে ৫-০ তে হোয়াইট ওয়াশ হয়ে ফিরেছে দলটি। এখন বাংলাদেশের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজে হারলে দলটির জন্য অন্ধকারই ডেকে আনতে পারে তা। পরিসংখ্যান সেই আভাসই দিচ্ছে।
আইসিসি র‌্যাঙ্কিংয়ে এই মুহেৈর্ত শ্রীলঙ্কা ৯৮ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে রয়েছে ষষ্ঠ স্থানে। ৯১ পয়েন্ট নিয়ে বাংলাদেশ সপ্তম। এ অবস্থায় ৩-০ তে বাংলাদেশ সিরিজ জিতলে ষষ্ঠ স্থান হারানোর শঙ্কায় পড়বে শ্রীলঙ্কা। আর সেটি হলে ২০১৯ বিশ্বকাপে সরাসরি খেলার একটা ঝুঁকির মধ্যে পড়বে। ৩০ সেপ্টেম্বারের মধ্যে যারা আইসিসি র‌্যাঙ্কিংয়ে শীর্ষ সাতে থাকবে, তারা ২০১৯ বিশ্বকাপে সরাসরি খেলার যোগ্যতা অর্জন করবে। ইংল্যান্ড স্বাগতিক হিসেবে সরাসরি খেলবে। আটের বাইরে ১০ দলকে নিয়ে কোয়ালিফাইং রাউন্ড হবে এরপর। শ্র্রীলঙ্কার জন্য বাংলাদেশের বিপক্ষে সিরিজটি তাই কঠিন পরীক্ষারই।
ওয়ানডেতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে বাংলাদেশের পরিসংখ্যানটা ভালো নয়। ৩৮টি ম্যাচে মাত্র চারটিতে জয় পেয়েছে টাইগাররা। সেই ২০০৬ সালে বগুড়ায় প্রথম জয় পায় বাংলাদেশ। এরপর ২০০৯ সালে ঢাকায় শ্রীলঙ্কাকে হারায় বাংলাদেশ। লঙ্কানদের বিপক্ষে তৃতীয় জয়টা আসে ২০১২ সালে। ওয়ানডেতে সর্বশেষ ২০১৩ সালে শ্রীলঙ্কাকে হারিয়েছে বাংলাদেশ। এই সিরিজেই যে পঞ্চম জয়ের বিষয়ে আশাবাদী মাশরাফিরা। কেবল ম্যাচ নয়, বাংলাদেশের চোখে এখন শ্রীলঙ্কাকে হোয়াইটওয়াশ করার স্বপ্ন। লঙ্কানদের ৩-০ ব্যবধানে হারাতে পারলে ওয়ানডে র‌্যাঙ্কিংয়ের ছয় নম্বরে উঠে আসবে বাংলাদেশ।
প্রস্তুতি ম্যাচেই লড়াইয়ের আভাস দিয়ে রেখেছে বাংলাদেশ। শ্রীলঙ্কার ৩৫৪ রানের জবাবে সাকিব-তামিম বাদেই ৩৫৪ রান সংগ্রহ করে বাংলাদেশ। সৌম্য, সাব্বির, সৈকত, মাহমুদউল্লাহ, মাশরাফি রানের দেখা পেয়েছেন। প্রথম ম্যাচে সাকিব-তামিমের উপস্থিতি দলের শক্তি বাড়িয়ে দেবে বহুগুণ।
তবে কোচ হাথুরুসিংহের চিন্তা বাড়াচ্ছেন বোলাররা। ওয়ানডে সিরিজ শুরুর আগে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে বাংলাদেশের কোচ বলেন, ‘বোলারদের পারফরম্যান্সে আমি খুব একটা সন্তুষ্ট না। তবে আশা করছি, মূল সিরিজে তারা ভালো করবে।’
প্রস্তুতি ম্যাচে চান্দিমাল, কুশল মেন্ডিস, থারাঙ্গাবিহীন নখদন্তহীন লঙ্কান ব্যাটসম্যানরা তুলাধোনা করে ছাড়েন মাশরাফি-তাসকিন-রুবেল হোসেনদের। ম্যাচে তাসকিন আহমেদ ছিলেন ছন্নছাড়া। তাঁকে বেশ স্বচ্ছন্দে খেলেছেন লঙ্কান ওপেনাররা। ৬ ওভার বোলিং করে ৫১ রান খরচ করে একটি উইকেট পাওয়া তাসকিনকে খুঁজে পাওয়া যায়নি প্রস্তুতি ম্যাচে।
ইনজুরি থেকে ফিরে বল হাতে ভালো করেননি অধিনায়ক মাশরাফিও। ৯ ওভারে ৬৬ রান দিয়েছেন বাংলাদেশ দলনেতা। ভিরাকোড্ডি, কুশল পেরেরাদের সামনে খুব একটা প্রভাব বিস্তার করতে পারেননি ম্যাশ। এ ছাড়া রুবেল হোসেনও বেশ সাদামাটা বল করেছেন প্রস্তুতি ম্যাচে। ৮ ওভারে ৬৭ রান দিয়েছেন এই পেসার।
শুভাগত হোমও হতাশ করেছেন। তবে প্রথম ওয়ানডেতে মুস্তাফিজ ও সাকিবের অন্তভুক্তি কোচের সাহস বাড়াচ্ছে। সেই সঙ্গে মিরাজ দলে থাকলে বাড়তি একজন অলরাউন্ডারও পাবে বাংলাদেশ।
অনুশীলন, প্রস্তুতি ম্যাচ সব শেষ। এখন মাঠের লড়াইয়ের অপেক্ষা। আজ বিকেল তিনটায় শুধু হবে প্রথম ওয়ানডে ম্যাচ, এরপর ২৮ মার্চ দ্বিতীয় ও ১ এপ্রিল হবে তৃতীয় ওয়ানডে ম্যাচ।-ইন্টারনেট

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ