ওয়ার্নার ঝড়ে সিরিজ অস্ট্রেলিয়ার

আপডেট: ডিসেম্বর ৭, ২০১৬, ১২:০৩ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক



আবারো গর্জে উঠেছে অস্ট্রেলিয়া। টেস্টের ব্যর্থতা আর ওয়ানডেতে প্রভাব ফেলতে পারে নি তাদের। তরুণদের থেকে সেরাটা বের করে এনেছে অসিরা। সঙ্গে অভিজ্ঞ স্মিথ-ওয়ার্নাররাও জ্বলে ওঠায় পেছনে তাকাতে হয় নি। নিউজিল্যন্ডের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে স্টিভেন স্মিথের সেঞ্চুরিতে ৬৮ রানের জয় পেয়েছিল অস্ট্রেলিয়া। গতকাল মঙ্গলবার দ্বিতীয় ওয়ানডেতে ডেভিড ওয়ার্নার ঝড়ে অসিদের জয়টা ১১৬ রানের। আর তাতে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজটা ২-১ জিতে নিয়েছে অস্ট্রেলিয়া। এবার কিউইদের হোয়াইওয়াশ করার মিশনেই নামবেন স্মিথরা।
ক্যানবেরার মানুকা ওভালে প্রথমে ব্যাট করে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৫ উইকেটে ৩৭৮ রান তোলে অস্ট্রেলিয়া। জবাবে ৪৭.২ ওভারে সফরকারী নিউজিল্যান্ডের ইনিংস থামে ২৬২ রানে।
লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ঝড় তোলার আভাস দিয়েছিলেন মার্টিন গাপটিল। আগের ম্যাচের এই সেঞ্চুরিয়ান এদিন সাজঘরে ফিরেছেন ৩৩ বলে ৭টি চার ও একটি ছক্কায় ৪৫ রান করে। অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন দারুণ লড়াই করেছেন। যদিও তার ৮০ বলে ৮১ রানের দায়িত্বশীল ইনিংসটা শেষ পর্যন্ত ভেস্তে গেছে।
দলকে হারের লজ্জা এড়াতে পারেননি উইলিয়ামসন। কাজে আসেনি কিউই অলরাউন্ডার জেমস নিশামের ৭৪ রানের লড়াকু ইনিংসও। অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে চার উইকেট নেন প্যাট কামিন্স। দুটি করে উইকেট নিয়েছেন জেমস ফকনার, মিচেল স্টার্ক ও জস হ্যাজেলউড।
এর আগে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে দলীয় ৬৮ রানের মাথায় অ্যারোন ফিঞ্চকে হারায় অস্ট্রেলিয়া। ১৯ রান করে মিচেল স্যান্টনারের বলে সরাসরি বোল্ড হন ফিঞ্চ। আরেক ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নার ব্যাট হাতে তা-ব চালিয়েছেন। তুলে নিয়েছেন ওয়ানডে ক্যারিয়ারের দশম সেঞ্চুরিটাও। ১১৫ বলে ১৪টি চারে ১টি ছক্কায় ১১৯ রানের মূল্যবান ইনিংস খেলেন ওয়ার্নার। কলিন ডি গ্রান্ডহোমের বলে কেন উইলিয়ামসনের শিকার অসি এই ওপেনার। দুর্দান্ত এই ইনিংসের কল্যাণে ম্যাচসেরাও নির্বাচিত হন ওয়ার্নার।
আগের ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান স্টিভেন স্মিথ এদিনও সেঞ্চুরির পথেই ছিলেন। ৭৬ বলে ৬টি চার ও একটি ছক্কায় ৭২ রান করেন অস্ট্রেলিয়া অধিনায়ক। তাকে প্যাভিলিয়নের পথ দেখান টিম সাউদি। এরপর ব্যাট হাতে তা-ব চালিয়েছেন ট্রাভিস হেড এবং মিচেল মার্শও। ৩২ বলে ৬টি চার ও দুটি ছক্কায় ৫৭ রান করা হেড ধরাশায়ী সাউদির। ৪০ বলে দুটি ও ৭টি ছক্কায় ৭৬ রানে ঝড়ো ইনিংস খেলে অপরাজিত ছিলেন মার্শ। ম্যাথু ওয়েডের ব্যাট থেকে আসে ১১ রান।
নিউজিল্যান্ডের পক্ষে সেরা বোলার টিম সাউদি। দুই উইকেট লাভ করেন তিনি। একটি করে উইকেট নিয়েছেন ট্রেন্ট বোল্ট, মিচেল স্যান্টনার, কলিন ডি গ্রান্ডহোম।