কন্ডিশন জয় করা মেহেদীর চোখ ডাবল সেঞ্চুরিতে

আপডেট: সেপ্টেম্বর ২৩, ২০১৭, ১২:০৫ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে তৃতীয় সেঞ্চুরি পেয়েছেন মেহেদী হাসান

মাত্র দুই দিন আগে এইচপি দলের হয়ে ইংল্যান্ড সফর শেষ করে দেশে ফিরেছেন। পরদিনই দলের প্রয়োজনে যোগ দিয়েছেন খুলনার হয়ে। শুধু তাই নয়, সম্পূর্ণ ভিন্ন কন্ডিশন থেকে এসেও ওয়ালটন ১৯তম জাতীয় ক্রিকেট লিগে নিজের প্রথম ম্যাচে অসাধারণ এক সেঞ্চুরি করেছেন মেহেদী হাসান। খুলনার শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামে বরিশাল বিভাগের বিপক্ষে প্রথম দিন শেষে মেহেদী অপরাজিত আছেন ১৬৫ রানে। ইনিংসটাকে আরো বড় করে ডাবল সেঞ্চুরিতে পরিণত করাই এখন তার লক্ষ্য। স্বপ্ন দেখেন একদিন জাতীয় দলের হয়ে খেলবেন। নিজের পছন্দের ব্যাটিং অর্ডার তিন নম্বর পজিশনে খেলতে পেরেও খুশি মেহেদী।
শুক্রবার দিনের খেলা শেষে মেহেদী বলেন, ‘শুরুতে একটু কনফিউশনে ছিলাম আমি ওয়ান ডাউনে খেলতে পারব কি না। শেষ পর্যন্ত সুযোগটা হয়। উইকেটে যখন যাই, তখন একটু সমস্যা হচ্ছিল, বল টার্ন নিচ্ছিল। তখন সোজা সোজা বলে খেলেছি, কয়েকটা ভুল শর্টও খেলেছি। পরে এটা রিকভারি করতে পেরেছি। খেলতে খেলতে ইনিংসটা বড় হয়ে যায়। আর লক্ষ্যটা স্থির রেখেছি বলেই বড় স্কোর করতে পেরেছি। সেঞ্চুরি হওয়ার পরেও দুয়েকটা ভুল করেছিলাম। পরে সিনিয়র যারা ছিলেন, তারা বুঝিয়ে রিকভারি করে দিয়েছেন।’
নিজের এই বড় ইনিংস নিয়ে খুশি হলেও এটাকে অন্তত ডাবল সেঞ্চুরিতে রূপ দিতে চান ২২ বছর বয়সি এই ব্যাটসম্যান, ‘একটা ডাবল সেঞ্চুরি তো জীবনের জন্য অনেক বড় একটা ব্যাপার। ডাবল সেঞ্চুরির জন্য অবশ্যই চেষ্টা থাকবে, বাকি আল্লাহর ইচ্ছা।’
মাত্র দুইদিন আগেই ইংল্যান্ড থেকে ফিরে এসেছেন, সম্পূর্ণ ভিন্ন কন্ডিশন থেকে এসে এত ভালো খেলাটা সহজ ছিল না মেহেদীর জন্য। মেহেদী বললেন, ‘প্রথম দিন যখন অনুশীলনে আসি আমার অক্সিজেন নিতেই সমস্যা হচ্ছিল, আমি অল্পতেই ক্লান্ত হয়ে যাচ্ছিলাম, মনে হচ্ছিল এই গরমে বোধহয় আমি পারব না। তবে মানসিক শক্তি হারাইনি, করতে করতে দেখলাম যে রিকভারি হয়ে গেছে।’
ম্যাচে ভালো অবস্থানে থাকলেও এখনই সবকিছু বলে দিচ্ছেন না মেহেদী, ‘আমাদের এখনো ভালো খেলতে হবে, তাহলেই জিততে পারব।’ নিজের ব্যাটিং অর্ডারের জায়গা ফিরে পেয়ে দারুণ খুশি মেহেদী। গত মৌসুমে ঢাকা প্রিমিয়ারে ৭ নম্বরে খেলেছেন। এটা নিয়ে বলেন, ‘প্রিমিয়ার লিগে বড় দলে খেলি, সেখানে ন্যাশনাল টিমের খেলোয়াড়রা থাকেন। এইচপি টিম, প্রিমিয়ার লিগে আমাকে মূলত বোলার হিসেবে পারফর্ম করতে হয়েছে। তবে খুলনা টিম আমাকে সব সময় টপ অর্ডারে সুযোগ দেয়, আর এটাকে কাজেও লাগাতে পেরেছি।’ এই দলে টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান হিসেবে খেললেও বোলিংয়ে তার অনেক দায়িত্ব বলে মনে করেন মেহেদী, ‘বিগত এক দুই বছরে বোলিংয়ে ভালোই পারফর্ম করছি, এটা ধরে রাখতে চাই। জাতীয় লিগে আমার বোলিংয়ে খুব ভালো পারফরম্যান্স নেই, এখন এখানেও নিজেকে প্রমাণ করতে চাই।’ অন্য সব খেলোয়াড়ের মতো মেহেদীরও স্বপ্ন একদিন খেলবেন লাল সবুজ জার্সিতে দেশের হয়ে। তবে সেটা যে এখনই না, সেটাও জানেন, ‘ডে বাই ডে আমি যদি নিজেকে উন্নত করতে পারি, হয়তো আল্লাহ একদিন সুযোগ দিবেন।’ রাইজিংবিডি