কবরীর অসমাপ্ত সিনেমা শেষ করছেন ছেলে

আপডেট: জুলাই ১৯, ২০২১, ২:২৮ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


কবরীর সঙ্গে ছেলে শাকের। ছবি: ফেইসবুক থেকে

কিংবদন্তি অভিনেত্রী, চলচ্চিত্র নির্মাতা, সাবেক সাংসদ কবরীর মৃত্যুর পর তার অসমাপ্ত চলচ্চিত্র ‘এই তুমি সেই তুমি’ শেষ করার কাজ এগিয়ে নিচ্ছেন তার ছেলে শাকের চিশতী।
সরকারি অনুদানে ২০২০ সালের ১৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীর দিনে এ চলচ্চিত্রের শুটিং শুরু করেছিলেন নির্মাতা কবরী। পরিচালনার পাশাপাশি এতে অভিনয়ও করছিলেন কবরী; চলচ্চিত্রের গল্প ও চিত্রনাট্যও তার।
স্বপ্নের চলচ্চিত্রের নির্মাণ শেষ হওয়ার আগেই চলতি বছরের ১৭ এপ্রিল কবরী চিরবিদায় নেন। তার সিনেমার কয়েকটি দৃশ্যের শুটিং এবং পরবর্তী কাজ এখনও বাকি।
সোমবার কবরীর ৭১তম জন্মদিনে শাকের বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, ‘এই তুমি সেই তুমি’ চলচ্চিত্রের অসমাপ্ত কাজ তিনি নিজেই এগিয়ে নিচ্ছেন। আপাতত ধীরগতিতে কাজ চলছে, মহামারী পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলেই পুরোদমে কাজ শুরু করবেন তিনি।
“মায়ের এবারের জন্মদিনেই সিনেমাটা মুক্তি দেওয়ার পরিকল্পনা করেছিলাম। কাজও সেভাবে এগিয়ে নিচ্ছিলাম। কিন্তু লকডাউনের কারণে সেটা আর সম্ভব হল না।”
যুক্তরাজ্যের একটি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে চলচ্চিত্র নিয়ে পড়াশোনা করে আসা শাকের নির্মাতা হিসেবেই ক্যারিয়ার গড়তে চেয়েছিলেন; তার প্রথম চলচ্চিত্রে কবরীর অভিনয় করার কথা ছিল।
চলচ্চিত্রটি কবে নাগাদ মুক্তি পেতে পারে জানতে চাইলে শাকের বলেন, “লকডাউনের কারণে আপাতত সিনেমা হল তো বন্ধ। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলেই মুক্তি দেব।”
এ চলচ্চিত্রে কবরীর বিপরীতে অভিনয় করেছেন অভিনয়শিল্পী মোহাম্মদ বারী, আরও আছেন তরুণ জুটি রিয়াদ রায়হান ও নিশাত নাওয়ার সালওয়া।
১৯৫০ সালের ১৯ জুলাই চট্টগ্রামের বোয়ালখালীতে জন্ম নেওয়া মিনা পালের চলচ্চিত্রে অভিষেক ঘটে ১৩ বছর বয়সে নির্মাতা সুভাষ দত্তের ‘সুতরাং’ চলচ্চিত্রে; তখনই তিনি কবরী নাম পান।
দীর্ঘ তিন দশকের ক্যারিয়ারে ‘নীল আকাশের নিচে’, ‘ময়নামতি’, ‘সুজন সখী’, ‘স্মৃতিটুকু থাক’, ‘সারেং বউ’, ‘তিতাস একটি নদীর নাম’সহ তিন শতাধিক চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন কবরী।
অভিনেত্রী কবরী একাত্তরে কলকাতায় গিয়ে বাংলাদেশের পক্ষে জনমত সৃষ্টি করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন; সেখানে বিভিন্ন সভা-সমিতি ও অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন; সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজন করেছেন। পরে দেশে ফিরে চলচ্চিত্রে পুরোপুরি মনোনিবেশ করেছেন।
অভিনয়ের পাশাপাশি ২০০৬ সালে ‘আয়না’ নামে একটি চলচ্চিত্রের পরিচালনার মধ্য দিয়ে নির্মাণে অভিষেক ঘটে কবরীর। ১৪ বছর পর ‘এই তুমি সেই তুমি’ নির্মাণে হাত দিয়েছিলেন।
২০০৮ সালে নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মনোনয়নে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসন থেকে সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হয়েছিলেন কবরী।
এক সময়ের এই চিত্রনায়িকা লেখালেখিও করতেন। ২০১৭ সালে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর পাবলিশিং লিমিটেড (বিপিএল) থেকে প্রকাশিত হয় তার স্মৃতিকথা ‘স্মৃতিটুকু থাক’।
শাকের জানান, কবরীর জন্মদিনে বনানী কবরস্থানে পরিবারের সদস্যরা শ্রদ্ধা জানাবেন। তিনি জীবদ্দশায় বেশ কয়েকটি এতিমখানার পৃষ্ঠপোষক ছিলেন। মিরপুরে তেমন একটি এতিমখানায় খাবার বিতরণ করা হবে।
তথ্যসূত্র: বিডিনিউজ