করাচিতে সেনা বিরোধী বিক্ষোভ

আপডেট: জুন ১৯, ২০১৭, ১২:৫৪ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


এবার পাকিস্তানের অন্দরেই সেনা বিরোধী বিক্ষোভ। দেশে চরমপন্থার বাড়বাড়ন্তের জন্য সেনাকে দায়ী করে করাচি প্রেস ক্লাবের বাইরে বিক্ষোভ দেখিয়েছেন একদল প্রতিবাদী। রবিবার নিজের টুইটার হ্যান্ডলে সেই বিক্ষোভের ভিডিও পোস্ট করেছেন ‘জয় সিন্ধ মুত্তাহিদা মহজ’–এর সংগ্রামী নেতা জাহিদ সিন্ধি। তাতে বিক্ষোভকারীদের ‘উর্দিধারী সেনাই দেশ জুড়ে সন্ত্রাসের জন্য দায়ী, উর্দিধারী সেনাই ইসলামি চরমপন্থার জন্য দায়ী’ স্লোগান দিতে দেখা গিয়েছে। পাক অধিকৃত সিন্ধু প্রদেশের স্বাধীনতার দাবিতেও গলা চড়াতে দেখা গিয়েছে তাঁদের। পাকিস্তানে সেনা ও সরকার বিরোধী বিক্ষোভ অবশ্য এই প্রথম নয়। তবে এতদিন অধিকৃত কাশ্মীর, বালুচিস্তান ও সিন্ধু প্রদেশের মধ্যেই তা সীমাবদ্ধ ছিল। এই প্রথম করাচিতে এভাবে প্রকাশ্যে বিক্ষোভ দেখালেন প্রতিবাদীরা।
এর আগে, গত ১৪ জুন সিন্ধু প্রদেশের স্বাধীনতার দাবিতে জেনেভায় জাতিসংঘের মানবাধিকার পরিষদের সামনে বিক্ষোভ দেখান ‘ওয়ার্ল্ড সিন্ধি কংগ্রেস’-এর সদস্যরা। সংগঠনের এক প্রতিনিধি বলেন, ‘পাক সেনার হাতে সিন্ধি সম্প্রদায়ের মানুষের মানবাধিকার লঙ্ঘিত হয়েছে। গত কয়েক মাসে চরম নৃশংসতার সাক্ষি থেকেছেন তাঁরা। সিন্ধু প্রদেশের ইতিহাসে এর চেয়ে ভয়ানক কিছু ঘটেনি। একাধিক সংগ্রামী নেতাকে গায়েব করে দিয়েছে দেশের নিরাপত্তাবাহিনী। গত তিন মাসে কত লেখক ও সংগ্রামী নেতাকে যে অপহরণ করা হয়েছে, তার ইয়ত্তা নেই। প্রতিবারই সরকার নিজেদের ভূমিকা অস্বীকার করেছে। বিচারবিভাগও স্বস্তি দিতে পারেনি। আমরা সবই বুঝি। সিন্ধু প্রদেশের মানুষ যাতে গণতন্ত্র ও মানবাধিকারের দাবিতে গলা চড়াতে না পারে, তাই সেনাবাহিনীকে কাজে লাগিয়ে পাকিস্তান সরকারই এসব করাচ্ছে। যাতে মানুষের মধ্যে আতঙ্কের সৃষ্টি হয়।’
জেনেভায় তাঁদের সঙ্গে বিক্ষোভে সামিল হয়েছিলেন বালোচ কমিউনিটি, গিলগিট এবং বাল্টিস্তান, পাক অধিকৃত কাশ্মীর ও বিভিন্ন দেশের মানবাধিকার সংগঠনের কর্মীরা। সিন্ধি সম্প্রদায়ের ওপর পাক সেনার অকথ্য অত্যাচারের জন্য ইসলামাবাদকে কাঠগড়ায় দাঁড় করান প্রত্যেকে। চিন-পাকিস্তান অর্থনৈতিক করিডোরের বিরুদ্ধেও প্রতিবাদ জানান তাঁরা। ‘চিন ফিরে যাও, পাকিস্তান সিন্ধি সম্প্রদায়কে হত্যা বন্ধ করুক, চিন-পাকিস্তান অর্থনৈতিক করিডোর গড়া যাবে না,’-র মতো স্লোগান দেওয়া হয়। তথ্যসূত্র: আজকাল