করোনাভাইরাসের সংক্রমণ যে থামে না প্রতিরোধে কঠিন সংযম, শৃঙ্খলা চাই

আপডেট: এপ্রিল ২৪, ২০২০, ১২:০৬ পূর্বাহ্ণ

দেশে ৬৪ জেলার মধ্যে ৫৮ জেলায় করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ছড়িয়েছে। এর মধ্যে ঢাকায় সবচেয়ে বেশি। আবার ঢাকার মধ্যে বেশি ঢাকা সিটিতে। এরপর যথাক্রমে নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর, কিশোরগঞ্জ ও নরসিংদী জেলা। আর মাত্র ৬টি জেলা করোনাভাইরাসমুক্ত আছে। করেনাভাইরাস যে গতিতে প্রাদুর্ভাব হচ্ছে তাতে দু’একদিনের মধ্যে বাকি জেলাগুলোও করোনাভাইরাস সংক্রমণের আওতায় চলে আসবে।
সংবাদ মাধ্যমের তথ্য অনুযায়ী বৃহস্পতিবার (২৩ এপ্রিল) পর্যন্ত সরকারিভাবে যে তথ্য দেয়া হয়েছে তাতে দেশে এ পর্যন্ত করোনাভাইরাসে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৪ হাজার ১৮৬ জনে। মোট মৃত্যুর সংখ্যাও বেড়ে হয়েছে ১২৭ জন। এসময়ের মধ্যে সুস্থ হয়েছেন আরও ১৬ জন। এ পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছেন ১০৮ জন।
তথ্যমতে, মার্চের ২৩ তারিখে সারাদেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছিল মাত্র ৬ জন। একমাস পর একই দিনে আক্রান্তের সংখ্যা ৪১৪ জন। আক্রান্তদের মধ্যে ৮৫.২৬ শতাংশই ঢাকা সিটি এবং ঢাকা বিভাগের।
পরিস্থিতিটা যে মোটেও সন্তোষজনক নয় তা সরকারি তথ্য থেকেই অনুধাবন করা যায়। সামনের দিনগুলো যে কঠিন হবে সেটাও উপলব্ধি করা যায়। কিন্তু এই উপলব্ধিটা সবার জন্য সমানভাবে প্রযোজ্যই শুধু নয়Ñ এই মুহূর্তে স্ব-নিয়ন্ত্রণটাও খুব বেশি প্রয়োজন। করোনাভাইরাস প্রতিরোধে যে সমন্বিত উদ্যোগ এবং যে ঐক্যবদ্ধতার প্রয়োজন ছিল সেটার ব্যত্যয় ঘটে চলেছে। দলমত নির্বিশেষে পরিস্থিতি মোকাবিলার বিষয়টি উপেক্ষিত হয়েছে। কিছু দল ও গোষ্ঠির এমন মনোভাব লক্ষ্য করা গেছে যে, করোনাভাইরাস প্রতিরোধ সেটা সরকারেরই কাজÑ এ ক্ষেত্রে তারা তাদের দায়িত্ব অনুভব করছে না। বরং কোনো কোনো ক্ষেত্রে উস্কানি ও গুজব ছড়িয়ে পরিস্থিতিকে আরো কঠিন করে তোলার অপপ্রয়াসও লক্ষ্য করা গেছে। কিন্তু এটা এমন একটা পরিস্থিতি যা বিশ্ব জুড়েই বিরাজ করছে- তাতে করোণাভাইরাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধটা দেশের প্রতিটি মানুষের। যে সব দেশ করোনাভাইরাস থেকে নিজেদের উত্তরণ ঘটাতে সফলতার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে সে দেশের সরকার ও জনগণের ঐক্যবদ্ধ প্রয়াসের ফলেই সেটা সম্ভব হচ্ছে। করোনাভাইরাস মানুষের জন্য একটা নৈতিক অবস্থান তৈরি করেছে যে, পৃথিবীটা শুধু মানুষের নয়Ñ সকল প্রাণীর। এই পৃথিবীতে সকলের অধিকার আছে যার যার মত করে বাঁচারÑ প্রকৃতিই সে অধিকার নিশ্চিত করেছে। এর ব্যত্যয় মানুষ করতে পারে না। আর ব্যক্তি মানুষ বা গোষ্ঠি করোনাভাইরাস উপেক্ষা করে নিজেদেরও শেষ রক্ষা করতে পারবে নাÑ যদি না সমস্যাটাকে আমাদের সকলের মনে করি। তাই সকলকেই ঐক্যবদ্ধভাবেই করোনাভাইরাসের মোকাবিলা করতে হবে। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে, স্বাস্থ্য পরামর্শ মেনে চলতে হবে। একই সাথে অন্যরা যাতে এসব মেনে চলে সে প্রচেষ্টাও অব্যাহত রাখতে হবে। তবেই আমরা করোনাভাইরাসের মত প্রাণঘাতি রোগকে নির্মূল করতে সমর্থ হবো। পবিত্র রমজান মাসেই সংযমকে আরো র্দঢ় ভিত্তির ওপর দাঁড় করায় যে, করোনানাভাইরাস প্রতিরোধ করবোই। সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যপরামর্শ মেনে চলবো।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ