করোনায় মারা গেলেন বগুড়া পল্লী উন্নয়ন একাডেমীর মহাপরিচালক

আপডেট: জুলাই ১২, ২০২০, ১২:১৪ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক :


রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয়ে অতিরিক্ত সচিব আমিনুল ইসলামের জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। (ইনসেটে আমিনুল ইসলাম)-সোনার দেশ

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে বগুড়া পল্লী উন্নয়ন একাডেমীর মহাপরিচালক ও অতিরিক্ত সচিব মো. আমিনুল ইসলাম মারা গেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। শনিবার (১১ জুলাই) সকালে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।
রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা. সাইফুল ফেরদৌস বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, সকাল ৯টার দিকে হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। করোনা পজেটিভ হওয়ায় পর তার ফুসফুসে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়েছিল। এছাড়াও তার উচ্চ রক্তচাপ ও ডায়াবেটিস ছিল।

 

জানা গেছে, গত ২২ জুন বগুড়ার টিএমএসএস-এ নমুনা দেন মো. আমিনুল ইসলাম। পরদিন ২৩ জুন নমুনা পরীক্ষায় তার করোনা পজিটিভ আসে। সেসময় তিনি আরডিএ সেন্টারে নিজের বাংলোতে আইসোলেশনে চলে যান। পরে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে গত ২৯ জুন রামেক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আমিনুল ইসলামের গ্রামের বাড়ি পাবনায়। তার স্ত্রী ও দুই ছেলে রাজশাহীতে বসবাস করেন। তবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরিবারের ইচ্ছে অনুযায়ী তার মরদেহ পবানায় গ্রামের বাড়িতে দাফন করা হয়।

 

আমিনুল ইসলাম বিসিএস প্রশাসন ক্যাডারের ৮ম (১৯৮৬) ব্যাচের কর্মকর্তা ছিলেন। দীর্ঘ কর্মজীবনে তিনি রাজশাহী অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার, রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনারের স্থানীয় সরকার বিভাগের পরিচালক, খাদ্য মন্ত্রণালয়ের উপসচিব, সিরাজগঞ্জের জেলা প্রশাসক ও নাটোর সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

২০১৯ সালের ৬ ফেব্রুয়ারি মো. আমিনুল ইসলাম বগুড়া পল্লী উন্নয়ন একাডেমিতে (আরডিএ) মহাপরিচালক হিসেবে যোগদান করেন। চলতি বছরের জুনে পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিভাগের ‘নিয়ন্ত্রণাধীন দফতর/সংস্থা’ কাটাগরিতে ‘শুদ্ধাচার পুরস্কার’ অর্জন করেন তিনি।
আমিনুল ইসলাম সামাজিক আন্দোলন স্কাউটিং কার্যক্রমের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। স্কাউটস এর একজন লিডার ট্রেনার ছিলেন তিনি। গত পাঁচ বছর যাবত বাংলাদেশ স্কাউট রাজশাহী অঞ্চলের আঞ্চলিক সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

 

বগুড়া পল্লী উন্নয়ন একাডেমীর অতিরিক্ত মহাপরিচালক সুফিয়া নাজিম জানান, গত ২৩ জুন আমিনুল ইসলামের করোনা শনাক্ত হয়। এরপর থেকে তিনি নিজ সরকারি বাংলোতে আইসোলেশনে ছিলেন। অবস্থার অবনতি হওয়ায় ২৯ জুন তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়।
এদিকে রাজশাহী বিভাগীয়, জেলা প্রশাসন ও বাংলাদেশ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশন পক্ষ থেকে শেষ শ্রদ্ধা জানানো হয়। এরপর রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয়ে আমিনুল ইসলামের জানাজা অনুষ্ঠিত হয়েছে।