করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সকলকে সমন্বিতভাবে কাজ করতে হবে : সিটি মেয়র

আপডেট: মার্চ ২৬, ২০২০, ১২:২০ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


বিশেষ সভায় বক্তব্য রাখেন সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন-সোনার দেশ

সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন বলেছেন, করোনা ভাইরাস বিস্তার রোধে সবাইকে সমন্বিতভাবে কাজ করতে হবে। প্রত্যেককে নিজ নিজ জায়গা থেকে এগিয়ে আসতে হবে। করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে রাজশাহী সিটি করপোরেশন কর্তৃক বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে।
গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে নগরভবনের সরিৎ দত্ত গুপ্ত নগরসভা কক্ষে আয়োজিত করোনা ভাইরাস বিস্তার রোধে রাজশাহী সিটি করপোরেশন দুর্যোগ সাড়াদান সমন্বয় গ্রুপের সভায় সভাপতিত্ব করেন, সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন।
মেয়র আরো বলেন, জনসচেতনতা সৃষ্টিতে লিফলেট বিতরণ, মাইকিং, ডিস ক্যাবল লাইনে প্রচার, ওয়ার্ড পর্যায়ে কমিটি গঠন, মাস্ক ও স্যানিটাইজার প্রস্তুতকরণ করা হচ্ছে, চিকিৎসক ও নার্সদের সুরক্ষায় চিন থেকে পারসোনাল প্রটেকটিভ ইকুইপমেন্ট (পিপিই) আনা হচ্ছে, করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে রাজশাহী থেকে সারাদেশের বাস চলাচল বন্ধ, বিনোদনকেন্দ্র বন্ধ ও বিভিন্ন মোড়ে দায়ের দোকানে আড্ডা বন্ধ, নগরীর ২৬টি গুরুত্বপূর্ণ মোড়ে হ্যান্ড স্যানিটাইজার কর্মসূচির জন্য বুথ স্থাপন, নগরীর বিভিন্ন বাজার ও জনসমাগম এলাকায় জীবাণুনাশক স্প্রে এবং নিম্ন আয়ের মানুষদের মাঝে বিনামূল্যে চাল-ডাল বিতরণের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। এসবের মধ্যে কিছু কার্যক্রম চলমান আছে এবং অন্যান্য কার্যক্রম শিগগিরই বাস্তবায়িত হবে।
সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন, রাজশাহী ২ (সদর) আসনের সংসদ সদস্য ফজলে হোসেন বাদশা। তিনি বলেন, সব কাজ স্টেপ বাই স্টেপ ভাগ করে করতে হবে। করোনা রোগি শনাক্তকরণে পিসিআর ইনস্টল এবং আইসিইউ বেড বৃদ্ধির উদ্যোগ নিতে হবে। করোনা আক্রান্তের আগে ও পরের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করা দরকার। আপদকালীন মুহুূর্তে চিকিৎসকসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে নিজ নিজ জায়গা থেকে দায়িত্ব পালন করতে হবে।
এমপি বাদশা আরো বলেন, সিটি করপোরেশনের দায়িত্ব আছে, তারা লিড দেবে। আমরা সবাই সিটি করপোরেশনকে সহযোগিতা করবো। এ সময় সভায় খাদ্য নিরাপত্তা, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা, স্বাস্থ্য নিরাপত্তা বিষয়ে করণীয় সম্পর্কে অংশগ্রহণকারীরা মতামত ব্যক্ত করেন।
সভায় অংশ নেন, রাজশাহী ক্যান্টনমেন্ট স্টেশন স্টাফ অফিসার মেজর এএসএম আতাউর রহমান, স্থানীয় সরকার বিভাগ, রাজশাহীর উপ-পরিচালক পারভেজ রায়হান, সিভিল সার্জন ডা. এনামুল হক, ফায়ার সার্ভিস সিভিল ডিফেন্সের সহকারী পরিচালক আব্দুর রশিদ, জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা আমিনুল হক, সিনিয়র সহকারী কমিশনার সৈকত ইসলাম, আরএমপি ডিসি বোয়ালিয়া সাজিদ হোসেন, শিক্ষা প্রকৌশল নির্বাহী প্রকৌশলী রেজাউল ইসলাম, গণপূর্তের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মিছবাহ উদ্দিন, রাজশাহী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের সহকারী প্রকৌশলী শেখ কামরুজ্জামান, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর রাজশাহীর নির্বাহী প্রকৌশলী রোকনুজ্জামান, রাসিকের প্যানেল মেয়র ও ১২ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর সরিফুল ইসলাম বাবু, ২১ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর নিযাম উল আযীম, ৫ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর কামরুজ্জামান, ১৫ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুস সোবহান লিটন, ১৯ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর তৌহিদুল হক সুমন, ১৭ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর শাহাদত আলী শাহু, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ড. এবিএম শরীফ উদ্দিন, সচিব আবু হায়াত রহমতুল্লাহ, প্রধান প্রকৌশলী আশরাফুল হক, মেয়য়ের একান্ত সচিব আলমগীর কবির, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা এএফএম আঞ্জুমান আরা বেগম প্রমুখ।