করোনা সংক্রমণ হার বৃদ্ধি পাচ্ছে! কতটা সতর্কাবস্থা, কতটা প্রস্তুতি?

আপডেট: জুন ১৩, ২০২২, ১:৫৭ পূর্বাহ্ণ

করোনাভাইরাস আবারো দাঁত ভেংচি দিচ্ছে। এটা নতুন কিছু আশংকার ইঙ্গিত করছে? করেনা সংক্রমণের বৃুদ্ধি শুধু বাংলাদেশেই নয়- প্রতিবেশি দেশ ভারতেও নতুন করে করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি পেতে শুরু করেছে। উভয় দেশেই বিষয়টি নতুন উদ্বেগের সূচনা করেছে। এই মুহূর্তে শংকাটা এই যে করোনাভাইরাসের চতুর্থ ঢেউয়ের শুরু হতে যাচ্ছে!
রোববার (১২ জুন) স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো করোনা বিষয়ক এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে কারো মৃত্যু হয়নি বটে কিন্তু নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন ১০৯ জন। সব মিলিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৯ লাখ ৫৪ হাজার ১১৫ জনে। এটা ভাবনার বিষয় না পাওে না। ভারতের পরিস্থিতি বাংলাদেশের চেয়েও খারাপ। সেখানে ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্তের সংখ্যা ৮ হাজার ৫৮২ জন আর করোনায় মারা গেছেন ৪ জন।
এছাড়াও বিশ্বের বিভিন্ন দেশে করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি পাচ্ছে। সংক্রমণ-মৃত্যুর উচ্চহার দেখা গেছে- জার্মানি ব্রাজিল, অস্ট্রেলিয়া, রাশিয়া, স্পেন, উত্তর কোরিয়ায়।
এই সংক্রমণ তখনই বৃদ্ধি পাচ্ছে যখন বিশ্বজুড়ে মাঙ্কিপক্স ছড়িয়ে পড়ার আশংকা দেখা দিয়েছে। আশংকা করা হচ্ছে মাঙ্কিপক্সের সাথে করোনার সংক্রমণও বাড়তে শুরু করেছে। এ থেকে আরো আশঙ্কা করা হচ্ছে প্রাণী থেকে মানুষের মধ্যে সংক্রমিত রোগের প্রাদুর্ভাব আরও বাড়বে। এর ফলে দেখা দিতে পারে আরেকটি মহামারি। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই ধরনের রোগগুলো জুনোসেস নামে পরিচিত, যা হাজার বছরে ধরে চলে আসছে। সাম্প্রতিক দশকগুলোতে বন উজাড়, ব্যাপক গবাদি পশুর চাষ, জলবায়ু পরিবর্তন এবং প্রাণীজগতে মানুষের ক্রমবর্ধমান হস্তক্ষেপের কারণে এগুলো আরও সাধারণ হয়ে উঠেছে। প্রাণী থেকে মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে পড়া অন্যান্য রোগের মধ্যে রয়েছে এইচআইভি, ইবোলা, জিকা, সার্স, এমইআরএস, বার্ড ফ্লু এবং বুবোনিক প্লেগ।
যাহোক সবকিছু মিলে পরিস্থিতি যে উদ্বেগের তা বলার অপেক্ষা রাখে না। তবে এর জন্য কতটা সতর্ক হওয়া যাচ্ছে কিংবা প্রস্তুতিই বা কতটুকু আছে? নিশ্চয় সরকারের স্বাস্থ্য বিভাগ বিষয়গুলো বিবেচনায় রেখেছে। কিন্তু এই মুহূর্তে প্রয়োজন তা হলো- মানুষের মধ্যে বিষয়গুলো নিয়ে যাওয়া, সচেতন করে তোলা। যা হচ্ছে না।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ