কর্নেল তাহের দিবস বুধবার

আপডেট: জুলাই ২০, ২০২১, ৬:০১ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক:


মহান মুক্তিযুদ্ধে ১১ নং সেক্টর কমান্ডার ও জাতীয় সমাজতান্ত্রক দল (জাসদ) এর অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা কর্নেল আবু তাহের (বীর উত্তম) এর মৃত্যুদিবস বুধবার (২১ জুলাই)। জিয়াউর রহমানের সামরিক সরকার এক মামলার বিচারে ১৯৭৬ সালের ২১ জুলাই তাঁকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদন্ড কার্যকর করে। দিনটিকে বিভিন্ন দল ও সংগঠন ‘তাহের দিবস’ হিসেবে পালন করে থাকে।
১৯৩৮ সালের ১৪ নভেম্বর বীর মুক্তিযোদ্ধা কর্নেল আবু তাহেরের জন্ম। ১৯৬০ সালে পাকিস্তান সেনাবাহিনীতে যোগ দেন। ১৯৭১ সালে পাকিস্তান থেকে পালিয়ে এসে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন। মুক্তিবাহিনীর ১১ নং সেক্টর কমান্ডার হিসেবে জনযুদ্ধের নীতিকে অগ্রাধিকার দেন। স্বাধীনতার পর ১৯৭২ সালে জাসদ গঠনের অন্যতম উদ্যোক্তা ছিলেন তিনি। ১৯৭৫ সালের ৭ নভেম্বর তাঁর নেতৃত্বে জাসদ, বিপ্লবী গণবাহিনী এবং বিপ্লবী সৈনিক সংস্থার উদ্যোগে ‘ঐতিহাসিক সিপাহী-জনতার অভ্যুত্থান’ সংঘটিত হয়। এ অভ্যুত্থানে বন্দিদশা থেকে মুক্ত হয়ে রাষ্ট্রক্ষমতা নেন তৎকালীন উপসেনা প্রধান মেজর জেনারেল জিয়াউর রহমান। কিন্তু পরের বছরেই জিয়াউর রহমানের সামরিক সরকার এক মামলার বিচারে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে তাহেরের মৃত্যুদ- কার্যকর করলে দেশ-বিদেশে তিব্র প্রতিক্রিয়া হয়।
তাহেরের ফাঁসির পর তাঁর পরিবারসহ বিভিন্ন মহল থেকে এ বিচার কে ‘প্রহসনের বিচার’ এবং তাকে অন্যায়ভাবে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ করা হয়। জাসদসহ বিভিন্ন দল ও সংগঠন এ মামলার বিচারের রায় বাতিল, মামলার সব দলিল প্রকাশ এবং কর্নেল তাহেরের রাষ্ট্রীয় সম্মান পুনঃপ্রতিষ্ঠার দাবি জানিয়ে আসছিল।
অবশেষে ২০১১ সালে হাইকোর্টের এক ঐতিহাসিক রায়ে কর্নেল তাহেরের গোপন বিচার ও ফাঁসিকে অবৈধ ঘোষণা এবং তাঁকে দেশপ্রেমিক হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। এর আগে হাইকোর্ট থেকে বিচারের সব নথি তলব করা হয়েছিল। হাইকোর্টের রায়ে স্বজনদের ‘ প্রহসনের বিচার’ এর ওই দাবি সুপ্রতিষ্ঠিত হয় বলে সংশ্লিষ্টরা মনে করেন।