কলেজের পাওনাদি পরিশোধ করে পরীক্ষা দেয়ার সুযোগ করে দিলেন ডিসি

আপডেট: ডিসেম্বর ৩, ২০২১, ৬:২৬ অপরাহ্ণ


নাটোর প্রতিনধি :


কলেজের পাওনা টাকা পরিশোধ করতে না পারায় জরিপ আলী নামে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীকে প্রবেশপত্র দেয়নি কলেজ কর্তৃপক্ষ। প্রবেশপত্র না পাওয়ায় সে পরীক্ষা কেন্দ্রে প্রবেশ করতে পারেনি। সংবাদ পেয়ে জেলা প্রশাসক বকেয়া টাকা পরিশোধ করায় অবশেষে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পেরেছে জরিপ আলী।
জরিপ আলী নাটোর সদর উপজেলার তেবাড়িয়া ইউনিয়নের বাঙ্গাবাড়ি গ্রামের মৃত সামসুদ্দিন মন্ডলের ছেলে। সে চন্দ্রকলার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব কলেজের উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী। নাটোর মহিলা কলেজ কেন্দ্রে তাঁর হিসাব বিজ্ঞান পরীক্ষা ছিল।

উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী জরিপ আলীর মা শরিফ বেওয়া জানান, “২০১৮ সালে তাঁর স্বামী মারা যাওয়ার পর থেকে নাবালক শিশু জরিপের উপার্জনেই সংসার চালাতে হয় তাদের। দরিদ্রতার কারণে জরিপ কখনও দিনমজুর আবার কখনও রাজমিস্ত্রির হেলপার হিসাবে কাজ করার পাশাপাশি পড়াশুনা চালিয়ে আসছিল। কিন্তু অভাবের কারণে কলেজের টাকা দিতে পারেনি। সে জন্য কলেজ থেকে প্রবেশপথ দেয়নি।

পরীক্ষার্থী জরিপ আলী বলেন, “সংসার চালাতে গিয়ে তিনি কলেজের সেসন ফিসহ পরীক্ষার ফি’য়ের পুরো টাকা দিতে পারেনি। গত শনিবার সে কলেজে গিয়ে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার প্রবেশপত্র চায়। কিন্তু কলেজের করণিক বকেয়া টাকা পরিশোধ না করলে প্রবেশপত্র দিতে অপারগতা জানান। নিরুপায় হয়ে সে ফিরে যায়। বুধবার দুপুর ২টায় নাটোর মহিলা কলেজ কেন্দ্রে প্রথম পরীক্ষা (হিসাব বিজ্ঞান) শুরু হয়। জরিপ ও পরীক্ষা কেন্দ্রে আসে। কিন্তু প্রবেশপত্র না থাকায় পরীক্ষা কক্ষে ঢুকতে পারেনি।

পরে মহিলা কলেজের একজন স্টাফ জরিপকে জিজ্ঞেস করে কেন ঘোরাফেরা করছে। তখন জরিপ সমস্যার কথা খুলে বললে সাংবাদিকদের জানান ওই স্টাফ।
সাংবাদিকদের কাছে সমস্যার কথা শুনে জেলা প্রশাসক শামিম আহমেদ কেন্দ্রে এসে কলেজ কর্তৃপক্ষকে ডেকে বকেয়া টাকা পরিশোধ করে পরীক্ষায় দেয়ার ব্যবস্থা করে দেন।
কেন্দ্রসচিব রেজাউল করিম জানান, চন্দ্রকলা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব কলেজের শিক্ষার্থী জরিপ আলীর পরীক্ষা দিতে না পারার বিষয়টি জানতে পেরে জেলা প্রশাসক শামীম আহমেদ তাৎক্ষণিক ওই কেন্দ্রে চলে আসেন। জেলা প্রশাসকের নির্দেশনায় জরিপ আলীর পরীক্ষা নেয়া হয়।

জেলা প্রশাসক শামীম আহমেদ বলেন, তিনি জরিপ আলীর সময়মত পরীক্ষায় অংশ নিতে না পারার খবর শুনে তাৎক্ষণিক পরীক্ষা কেন্দ্রে ছুটে যান। তিনি ব্যাক্তিগতভাবে জরিপ আলীর কলেজের পাওনাদি পরিশোধ করে তার পরীক্ষা দেয়ার সুযোগ করে দিয়েছেন।তিনি বলেন টাকার জন্য প্রবেশপথ না দিয়ে পরীক্ষা দিতে না দেওয়া একজন শিক্ষার্থীর জীবন নষ্ট করার সামিল। বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে তদন্ত করে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ বিষয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব কলেজের হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক গোবিন্দ কুমার দত্ত জানান, জেলা প্রশাসক শামীম আহমেদ স্যার জরিপ আলীর বকেয়া টাকা পরিশোধ করে দিয়েছেন। প্রবেশপত্র না পাওয়ার বিষয়টি তিনি অনেক পরে জানতে পেরেছেন।
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব কলেজের অধ্যক্ষ মৌসুমি পারভিন জানান,জরিপ আলী প্রবেশপত্র না পাওয়ার বিষয়টি ওই শিক্ষার্থী বা তার পরিবারের কেউ তাকে কিছুই জানায়নি।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ