কাউকে দায়ী করছেন না ইমরুল

আপডেট: জুলাই ১৪, ২০১৭, ১২:৪২ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে দীর্ঘদিন ধরে খেললেও এখনও দলে নিয়মিত হতে পারেননি ইমরুল কায়েস। ওপেনিংয়ে এখন সৌম্য সরকারের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে হচ্ছে ২০০৮ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক হওয়া অভিজ্ঞ এই ক্রিকেটারের। গত কিছুদিন ধরে স্কোয়াডে থাকলেও একাদশে জায়গা হচ্ছে না তার। কিন্তু যখনই সুযোগ পেয়েছেন, নিজের সামর্থ্য জানান দিয়েছেন, এরপরও একাদশে থাকতে পারছেন না নিয়মিত। ইদানীং এই ওপেনারকে তিন নম্বর পজিশনেও চিন্তা করছে টিম ম্যানেজমেন্ট।
যদিও এসব বিষয় নিয়ে মোটেও ভাবছেন ইমরুল। সঙ্গে কাউকে দোষও দিতে চান না অভিজ্ঞ তিনি। বৃহস্পতিবার ফিটনেস ক্যাম্প শেষে সংবাদমাধ্যমকে তিনি বলেছেন, ‘যখনই আমি সুযোগ পেয়েছি, চেষ্টা করেছি আমার কাজটা ঠিকভাবে করার। টিম ম্যানেজমেন্ট হয়তো আমাকে নিয়ে ভিন্ন কিছু চিন্তা করছে, এই কারণে হয়তো নিয়মিত হতে পারছি না। কিন্তু আমি আমার চেষ্টাটা করে যাচ্ছি এবং করে যাব। নিয়মিত হতে পারলে আমার পারফরম্যান্সটা অন্য রকমও হতে পারতো।’
অনিয়মিত হলে স্বাভাবিকভাবেই পারফরম্যান্সের ওপর প্রভাব পড়ে। ইমরুলও বিষয়টি স্বীকার করেছেন, ‘অবশ্যই, প্রভাব ফেলে। এটা শুধু আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে না, যে কোনও ক্রিকেটেই হতে পারে। হুট করে একটি ম্যাচ মাঠে নামলে কাজটা কঠিন হয়ে যায়। তবে পেশাদার ক্রিকেটার হিসেবে এটার সঙ্গে মানিয়ে নেওয়া ভালো।’
সৌম্য তার বোলিংয়ের কারণেই খানিকটা এগিয়ে থাকে, বিষয়টি ইমরুলও জানেন। তাই তো তিনি মনে করেন, ‘টিম ম্যানেজমেন্টের চিন্তাই হচ্ছে আসল চিন্তা। তারা যদি ভাবে একজন ব্যাটসম্যানের কাছ থেকে বোলিং সাপোর্টও প্রয়োজন, সেক্ষেত্রে কম্বিনেশনের কারণে বাইরে থাকতেই পারি। এটা পুরোটাই একটা টিমের বিষয়, ম্যানেজমেন্টের বিষয়। এটা নিয়ে আমার ভেবে কোনও লাভ নেই।’
নিজের শক্তির জায়গা নিয়ে আরও কাজ করতে চান ইমরুল, ‘বিশেষভাবে কিছু করছি না। প্রত্যেকটা ব্যাটসম্যানের শক্তিশালী এবং দুর্বল দিক থাকে। কোনও ব্যাটসম্যানই একটি জায়গা শতভাগ শক্তিশালী নয়। জাতীয় দলে ওপেনিংয়ের জায়গাটি অনেক চ্যালেঞ্জিং। আমি ৮ বছর ধরে চেষ্টা করছি। কিছু ম্যাচ ভালো খেলে আবারও কামব্যাক করি, আবারও খারাপ করি। তবে সবসময় চেষ্টা করি আরও ভালো করার।’-বাংলা ট্রিবিউন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ