কাকতালীয় হলেও মিলে গেলো ছবিটি!

আপডেট: মার্চ ১৪, ২০১৭, ১২:১৪ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক



যুক্তরাজ্যের টিউব স্টেশন ‘সেভেন সিস্টারস বেশ’ বিখ্যাত! উত্তর লন্ডনের পাতাল রেল স্টেশনটি সম্পর্কে নানা কথাও শোনা যায়। ১৮৭৮ সালে গ্রেট ইস্টার্ন রেলওয়ে স্টেশনটির পত্তন ঘটায়। স্টেশনের নাম সেভেন সিস্টার হওয়া নিয়েও রয়েছে নানা মতবাদ। কেউ কেউ বলেন, ১৪শতকে এখানে ৭ জন নান প্রত্যেকে একটি করে গাছ রোপন করায় স্থানটির এমন নামকরণ! আবার কেউ কেউ বলেন, ৭ জন নান বিভিন্ন দিকে চলে যাওয়ার আগে এখানে শেষ সাক্ষাৎ করেন। তবে জনশ্রুতি যাই থাক, সম্প্রতি বেন পেটি নামের এক ব্যক্তি অফিসের উদ্দেশ্যে রেল ভ্রমণের সময় স্টেশনটিতে একত্রে ৭ জন নান’কে দেখতে পান। কাকতালীয় হলেও তাদের পেছনেই স্টেশনটির নাম দেখা যাচ্ছিল। অর্থাৎ ‘সেভেন সিস্টার্স স্টেশন’ ফলকটি দেখা যাচ্ছিল।
সম্ভবত তারা কোথাও যাওয়ার জন্য স্টেশনটিতে অপেক্ষা করছিলেন। ট্রেন আসতে দেরি থাকায় তাই স্টেশনে পেতে রাখা আসনে অপেক্ষা করছিলেন।
বেন পেটির মনে হচ্ছিল, সেভেন সিস্টার্স স্টেশনের নামকে যেন বাস্তব রূপ দিতেই তাদের এই অবস্থান। যেন ঝবাবহ হঁহং ধঃ ঝবাবহ ঝরংঃবৎং ংঃধঃরড়হ… দৃশ্যটি তাই হারাতে চান নি তিনি। ট্রেন ধরার আগে তার মোবাইল ফোনের ক্যামেরায় বিরল দৃশ্যটি ধারণ করেন। আর সেটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে শেয়ার করতেই তা ভাইরালে পরিণত হয়।
অবশ্য বেন পেটি ছবিতে ৭ ধর্মযাজক আছেন দাবি করলেও আসলে রয়েছে ৮ জন। ভালো করে লক্ষ্য করলেই দেখা যায়, সেখানে ৭ জন আসনে বসে থাকলেও ১ জন পাশেই দাঁড়িয়ে রয়েছেন।
অবশ্য ছবি তুললেও কাকতালীয়ভাবে এতজন সিস্টার একসঙ্গে কোথায় যাচ্ছিলেন তা জানতে চাননি বেন পেটি। কোথায় থাকেন তাও জানেন না। তারা প্রায়ই স্টেশনটিতে ভ্রমণের জন্য আসেন কিনা, জানা হয়নি সেটাও। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে অনেকে এসব প্রশ্ন করায় তাই জবাব দিতে পারছেন না বেন!