কানসাটে জমে উঠেছে আমের বাজার

আপডেট: জুন ১১, ২০২১, ১০:০৭ অপরাহ্ণ

শিবগঞ্জ প্রতিনিধি:


উত্তরবঙ্গের আমের রাজধানী কানসাট বাজারে কিছুটা দেরিতে হলে জমে উঠেছে আম বাজার। জেলার বিভিন্ন উপজেলার বিভিন্ন স্থান থেকে ভ্যান, সাইকেলে, পিকআপ সহ বিভিন্ন যানবাহনে আসছে হাজার হাজার মণ বিভিন্ন জাতের আম। ১৬ কিলোমিটার জুড়ে এ বাজারে গ্রাম্য আম ব্যবসায়ী বাইর নামে খ্যাত কানসাট শিবনগর গ্রামের ভুল্ল আলি জানান, ৪ বিঘা জমিতে ৮০টি আম গাছ কিনেছি ৩৮হাজার টাকায়। অন্যান্য খরচ হয়েছে প্রায় ১৫ হাজার টাকা। আম হবে প্রায় ৯০ মণ। বর্তমানে ল্যাংড়া ও লখনা আম বাজারে নিয়ে এসেছি। দর ভাল নয়। পাইকারে ১১শ টাকা মণ বলছে। এখনো বিক্রি করিনি। ভাল দামের আশায় বসে আছি।
চককীর্তি ইউনিয়নের চককীর্তি গ্রামের মাইনুর ইসলাম জানান, এক ভ্যান গোপালভোগ আম এনেছি। দাম চেয়েছি ১হাজার টাকা মণ। পাইকারে বলছে সাড়ে ৭শ থেকে ৮শ টাকা। গতবারে চেয়ে দাম কিছুটা কম। কারণ গত ৪বছরের মধ্যে এবছর আমের ফলন বেশী হয়েছে।
তিনি আরো জানান, তিন বছর মেয়াদে ৮০টি আম গাছ ৫ লাখ টাকায় কিনেছি। সার ও স্প্রে খরচ হয়েছে প্রায় দেড় লাখ টাকা। এ বছর আম হবে প্রায় ৩শ মণ। তাছাড়া ১ লাখ আম প্যাকেট জাত করা আছে।
মাইনুর ইসলাম জানান, আম বেশী উৎপাদন, করোনা আতঙ্ক ও বাহির থেকে লোক আসতে না পারায় আমের দাম কিছুটা কম। কুড়িগ্রাম জেলার রাজৈর থানা থেকে আসা আব্দুল মজিদ ব্যাপারি পাইকার আলিম জানান, আমি সকালে বাড়ি থেকে আসি এবং সারাদিন আম কিনে আবার সন্ধ্যায় রওয়ানা দিই। পরের দিন আমার এলাকায় আম বিক্রি করি। কানসাট বাজার থেকে ক্রয় করা আমের চাহিদা আমাদের এলাকায় বেশি। কারণ এখানকার আম অত্যন্ত সুস্বাদু। কানসাট আব্বাস বাজারের বাহারুল জানান, আমি গ্রামে বা মাঠের বাগানে ঘুরে ঘুরে আম গাছ থেকে আম ক্রয় করি। সেগুলো কানসাট বাজারে নিয়ে এসে বিক্রি করি। আজও নিয়ে এসেছি। তবে দাম কম পাচ্ছি। কারণ নানাধরনের। আম আড়তদার মাদারীপুর জেলার কাসিমপুর থানার আলিম জানান, এখানে আমদের আড়ত আছে। তিনি আরও বলেন, চাঁপাইনবাবগঞ্জের আমের স্বাদ বেশী হওয়ায় দামও বেশী। তাই আমাদের ব্যবসা খুব একটা ভাল হচ্ছে না। গতকাল দিনব্যাপী প্রায় ১৬ কিলোমিটার জুড়ে কানসাটের আম বাজার সরেজমিনে ঘুরে শতাধিক আম ক্রেতা-বিক্রেতা ও প্রায় ৮শ টি আাম আড়দাদের মধ্যে প্রায় ২৫/৩০জন আড়তদারর সাথে কথা বলে প্রায় একই ধরনের চিত্র পাওয়া গেছে।
কানসাট আম বাজার সম্পর্কে কানসাট আম আড়তদার সমিতির সাধারণ সম্পাদক উমর ফারুক টিপু বলেন, আমরা স্বাস্থ্য বিধিমানার মাধ্যমে কানসাটে আম ক্রয় বিক্রয় করাচ্ছি। বর্তমানে আমের দর ভাল। ব্যবসা ভাল হচ্ছে। আম ব্যবসায়ী, আড়তদার, পাইকার সহ সংশ্লিষ্ট কেউ কোন ধরনের হয়রানির শিকার হচ্ছে না। তবে এবছরে গত ১০বছরের মধ্যে উৎপাদন বেশী হওয়ায় বাজারে আম বেশী আমদানি হচ্ছে। ফলে সামান্য সমস্যা। তা কয়েকদিনের মধ্যে কেটে যাবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ