কানের দুলের জন্য হত্যা করা হয় বৃদ্ধাকে || আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তি

আপডেট: সেপ্টেম্বর ৬, ২০১৭, ১:১১ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


হত্যার ছয় দিনের মাথায় রাজশাহী মহানগরীর মতিহার থানার কাপাশিয়া মৃধাপাড়ায় বৃদ্ধাকে গলাটিপে হত্যার রহস্য উদঘাটনসহ মূল আসামিকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছে মতিহার থানা পুলিশ।
সোমবার রাতে মৃধাপাড়ার মৃত-আব্দুল ওহাবের ছেলে সেন্টু মৃধাকে (২৫) সন্দেহমুলকভাবে আটক করে পুলিশ। এরপর পুলিশি জিজ্ঞাসাবাদে সেন্টু ঘটনার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেন। বর্ণনা দেন হত্যার ঘটনার। পরে গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে রাজশাহী মেট্রোপলিট্রন ম্যাজিস্ট্রেট জাহিদ হাসানের আদালতে হাজির করে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয় সুমন।
মতিহার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মেহেদী হাসান জানান, ঘটনার পর থেকে পুলিশ ব্যাপক তৎপরতা চালায় মৃধাপাড়াসহ বিভিন্ন জুয়েলারি দোকানে। পরে সন্দেহজনকভাবে সোমবার রাতে মৃধাপাড়া গ্রামের আব্দুল ওহাবের ছেলে সেন্টু মৃধাকে আটক করা হয়। পরে সেন্টু ঘটনার সাথে জড়িত বলে প্রাথমিকভাবে স্বীকার করেন। পরে সেন্টুর দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে সোমবার রাতেই বাখরাবাদ এলাকার জালাল উদ্দিনের ছেলে জুয়েলারি মালিক সুমনকে আটক করা হয়। পরে সুমনের নিকট থেকে উদ্ধার করা হয় নিহত জমেলা বিবির কানের এক জোড়া দুল।
ওসি মেহেদী হাসান জানান, সেন্টু ১৬৪ ধারায় জবানবন্দিতে স্বীকার করেছে সে নিজেই বৃদ্ধাকে হত্যা করেছে। ঘটনার রাতে সেন্টু প্রাচীর টপকিয়ে প্রবেশ করে বৃদ্ধা জমেলা বিবির বাড়িতে। এরপর বৃদ্ধার নিকট থেকে চাবি নেয়ার চেষ্টা করে। এ সময় বৃদ্ধা ঘুম থেকে জেগে উঠলে সেন্টু বৃদ্ধার বুকের উপর চেপে বসে এবং বাম হাত দিয়ে বৃদ্ধার গলা চেপে হত্যার করার পরে কানের এক জোড়া দুল টান দিয়ে নিয়ে পালিয়ে যায়। পরের দিন ১ সেপ্টেম্বর সকালে বাখরাবাদ এলাকার জুয়েলারি মালিক সুমনের দোকানে গিয়ে মাত্র ৪ হাজার টাকায় ওই দুল জোড়া বিক্রি করে দেয়।
প্রসঙ্গত, গত ৩১ আগস্ট বুধবার দিবাগত রাতের কোনো এক সময় কাপাশিয়া মৃধাপাড়া এলাকার মৃত এমাজ আলীর স্ত্রী বৃদ্ধা জমেলা বিবিকে (৮০) গলা টিপে হত্যা করা হয়। ৯ মেয়ের বিয়ে দিয়ে দেয়ার পর বাড়িতে একাই থাকতেন জমেলা। ঘুমাতেন বাড়ির উঠোনের একটি চৌকিতে। বৃহস্পতিবার সকালে ওই চৌকির ওপর থেকে তার লাশ উদ্ধার করে মতিহার থানা পুলিশ। পরে ঘটনার দিনই নিহতের মেয়ে জামাই আয়নাল হক বাদি হয়ে অজ্ঞাতানামা আসামি করে একটি হত্যামামলা দায়ের করেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ