কার্বের সিও’র অপসারণ দাবিতে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মানববন্ধন

আপডেট: আগস্ট ১২, ২০২০, ১০:৫৮ অপরাহ্ণ

তানোর প্রতিনিধি


সেন্টার ফর অ্যাকশন রিসার্চ-বারিন্দ কার্ব সংস্থাটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সিও এএইচএম আমজাদ হোসেনের অপসারণের দাবিতে সংস্থাটির ৩০ টি শাখার কর্মকর্তা-কর্মচারীরা ১৭ দিন যাবত অফিসের সকল কার্যকর্ম বন্ধ করে আন্দোলনে নেমেছেন।
কর্মকর্তা-কর্মচারীরা একজোট হয়ে সিও’র অপসরণের দাবিতে রাজশাহীর, নওগাঁ ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রশাসন ডিসি ও সমাজ সেবা অধিদফতর বরাবর স্মারকলিপি প্রদান ও বিভিন্ন শাখার অনুকুলে মানববন্ধন করে আসছেন।
এরধারাবাহিগতায় বুধবার (১২ আগস্ট) বেলা ১২টার সময় তানোর উপজেলার মুন্ডুমালা বাজারে ঘণ্টাব্যাপী সংস্থাটির ৩০টি শাখার ১৫৩ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী মানববন্ধন করেন।
মানববন্ধনে তানোর শাখার এলাকা ব্যবস্থাপক তারিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে বক্তব দেন জোনাল পশ্চিম জোনের ব্যবস্থাপক রবিউল ইসলাম, নাচোল এলাকা ব্যবস্থাপক আবুল কালাম আজাদ, পবার বরজাহান আলী, গোদাগাড়ীর আবু আরিফ, নওগাঁর মহাদেবপুরের এমরান আলী ও নিয়ামতপুর এলাকা ব্যবস্থাপক তোহিদুল ইসলাম প্রমুখ।
মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আমজাদ হোসেন যোগদান করেছেন। তার যোগদানের মাত্র সাত মাসে ব্যবধানে তার অদক্ষতার কারণে সংস্থা প্রায় আড়াই কোটি টাকা লোকসান হয়েছে।
এছাড়া তিনি সংস্থার চাকরিবিধি লঙ্ঘন করে কোন কারণ ছাড়া কথায় কথায় কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নির্যাতন, হয়রানি ও চাকরিচ্যুত করে আসছেন। তাছাড়া নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির শর্তপূরণ না করে বয়স ও অভিজ্ঞতা না থ্কালেও নিজ প্রভাব খাটিয়ে জোর করে প্রধান নির্বাহীর পদ দখল করে আছেন। এতে সংস্থা আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েছে। এমত অবস্থায় তার অপসরণ না হওয়া পর্যন্ত ৩০ টি শাখার সকল কার্যকর্ম বন্ধ থাকবে বলে ঘোষণা দেন তারা।
মুন্ডুমালায় মানববন্ধন শেষে রাজশাহী-১ তানোর-গোদাগাড়ীর আসনের সংসদ সদস্য ওমর ফারুক চৌধুরীকে সংস্থাটির সকল কর্মকর্তা-কর্মচারী স্মারকলিপি প্রদান করেন।
আন্দোলনের নেতৃত্বে দিচ্ছেন সংস্থার রাজশাহীর প্রধান কার্যালয়ের মনিটরিং অফিসার শরিয়তউল্লাহ। বুধবার মুন্ডুমালা মানববন্ধন শেষে তিনি বলেন, একজন অদক্ষ সিও কারণে সংস্থার লোকসানের মুখে পড়েছে। এ সংস্থা সঙ্গে অনেক পরিবার জড়িত। সিওর নানার হয়রানীর কারণে সকল কর্মকর্তা-কর্মচারী অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে। সংস্থাটির কাজের গতি কমে এসেছে। তাই আমরা তার পদত্যাগ না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাব।
এসব বিষয়ে রাজশাহী প্রধান কার্য়ালয়ের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সিও আমজাদ হোসেনের বুধবার আড়াইটার দিকে একাধিক বার কল দিলেও তিনি ফোন রিসিভ না করায় তার বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।