কাশিমপুর ইউপি নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী বেদারুলের গণসংযোগ

আপডেট: অক্টোবর ৬, ২০২১, ৪:৫২ অপরাহ্ণ


নওগাঁ প্রতিনিধি:


আগামী ১১নভেম্বর দ্বিতীয় ধাপে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে নওগাঁর রাণীনগর উপজেলার ৮ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন। এই নির্বাচনে ইলেকট্রিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোট অনুষ্ঠিত হবে ২নং কাশিমপুর ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন।
এই নির্বাচনকে সামনে রেখে আগাম গণসংযোগে ব্যস্ত সময় পার করছেন স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী সাবেক সেনা কর্মকর্তা, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সমাজ সেবক মো. বেদারুল ইসলাম। তিনি মঙ্গলবার বিকেলে ঐতিহ্যবাহী ত্রিমোহানী হাটে গণসংযোগ করেন। এসময় তিনি ভোটারদের কাছে ভোট ও দোয়া প্রার্থনা করেন। পাশাপাশি তিনি ভোটারদের ভোট কেন্দ্রে গিয়ে ভোট দেওয়ার অনুরোধ করেন।

গণসংযোগে বেদারুল ইসলাম বলেন, এই অঞ্চলের মানুষের কাছে আমি একটি অতি পরিচিত মুখ। শুধু নির্বাচন নয়- ইউনিয়নবাসীর পাশে আমি সব সময় ছিলাম আর এখনোও আছি, আগামীতেও থাকবো। আর চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে সাধারন মানুষদের আরো কাছে গিয়ে সেবা করার সুযোগ ইউনিয়নবাসী আমাকে দিবেন এই বিশ্বাসটুকু আমার আছে। কারণ ইউনিয়নবাসী পরিবর্তন চায়। আমি মহামারি করোনা ভাইরাসের শুরুতে যখন গরীব, অসহায় ও খেটে খাওয়া মানুষরা কর্মহীন হয়ে

পড়েছিলো তখন আমি সেই সব মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে খাবার সামগ্রী ও আর্থিক সহায়তা পৌছে দিয়েছি। এখনো বিভিন্ন হাটে, মোড়ে, পাড়া ও মহল্লায় প্রতিদিনই সাধারন মানুষদের করোনা বিষয়ে সচেতন করার পাশাপাশি মাস্কও বিতরন করছি। প্রতিটি ওয়ার্ডে ছেলেদের খেলার জন্য একটি করে ফুটবল দিয়েছি। এলাকার যুবকদের মাদক ও বিভিন্ন মন্দ কাজ থেকে দূরে রাখার লক্ষ্যে বিভিন্ন সময় খেলাধুলার আয়োজন করে যাচ্ছি। আমি এলাকায় আসার পর থেকেই বিভিন্ন রকমের সামাজিক কর্মকান্ড অব্যাহত রেখেছি। তাই এই ইউনিয়নের মানুষ আমাকে আমার কর্মের মাধ্যমে চেনেন। আমি মুখে বড় বড় বুলি আওরানা পছন্দ করি না। যার জন্য যতটুকু করার সামর্থ আছে তা করার চেস্টা করি। পুরো ইউনিয়নে বিশেষ করে যুব সমাজে আমি ব্যাপক সাড়া পাচ্ছি। আমি সুযোগ পেলে ঐতিহ্যবাহী এই ইউনিয়নকে মাদক, বাল্যবিয়ে মুক্ত একটি মডেল ও

আধুনিক পরিষদে বিনির্মাণ করতে চাই। তাই আমি আশাবাদি ইউনিয়নবাসী আমাকে বিপুল ভোটে বিজয়ী করবেন। তাই শিক্ষিত, সৎ ও পরীক্ষিত মানুষ দেখে চেয়ারম্যান প্রার্থীকে ভোট দেওয়ার আহŸান জানান তিনি। এসময় তার সঙ্গে স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিরা গনসংযোগে অংশ নেন। এই ইউনিয়ন পরিষদ ১৫টি গ্রাম নিয়ে গঠিত। মোট ভোটার হচ্ছে ১৫ হাজার ৫১৮জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৭ হাজার ৭২৫জন এবং নারী ভোটার ৭ হাজার ৭৯৩জন।