কাশ্মীরে গুলির লড়াইয়ে খতম ৩ লস্কর জঙ্গি

আপডেট: জুন ২১, ২০২১, ১২:৫৮ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


সেনা-জঙ্গি গুলির লড়াইয়ে ফের উত্তপ্ত হয়ে উঠল কাশ্মীর। কোভিড আবহে কাশ্মীরের বিভিন্ন অঞ্চলে ক্রমশ শক্তি বাড়াচ্ছে জঙ্গিরা। নাশকতামূলক কাজকর্ম বন্ধ করতে বদ্ধপরিকর সেনাবাহিনীর জওয়ানরা। রবিবার রাত থেকেই জঙ্গিদের খোঁজে শুরু হয় তল্লাশি। কাশ্মীর পুলিশ এবং সেনাবাহিনীর জওয়ানরা যৌথভাবে তল্লাশি চালায়। বারামুল্লা জেলার সোপরে সেনার সঙ্গে গুলির লড়াই শুরু হয় জঙ্গিদের। এনকাউন্টারে প্রাণ হারায় লস্করের ৩ জঙ্গি। মৃত জঙ্গিদের মধ্যে একজন ছিলেন লস্কর-ই-তৈবার শীর্ষ কমান্ডার মুদাছির পণ্ডিত। পাকিস্তানি জেহাদি হিসাবে পরিচিত ছিল এই মুদাছির পণ্ডিত। সেনা জওয়ানরা এই ৩ জঙ্গিকে প্রথমে আত্মসমর্পণ করতে বলে। কিন্তু জঙ্গিরা সেই কথা শোনেনি। সেনাবাহিনীকে লক্ষ্য করে গুলি চালাতে শুরু করে দেয়। পাল্টা যৌথবাহিনীও গুলি চালাতে শুরু করে। সারা রাত ধরে চলে গুলির লড়াই। অবশেষে গুলির লড়াইয়ে খতম হয় এই ৩ জঙ্গি। জঙ্গিদের দেহ উদ্ধার করে নিয়ে আসা হয়েছে। সোপরে আরও জঙ্গিরা লুকিয়ে আছে কিনা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। গোটা এলাকায় নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। চিরুনি তল্লাশি চলছে এলাকায়। সন্দেহভাজন কাউকে দেখলেই জিজ্ঞাসাবাদ করছে নিরাপত্তারক্ষীরা। এ প্রসঙ্গে কাশ্মীর পুলিশের আইজি বিজয় কুমার টুইট করেন। টুইটে বিজয় কুমার লেখেন, ‘৩ জন পুলিশ, ২ জন কাউন্সিলর ও ২ জন নাগরিকের হত্যার সঙ্গে জড়িত লস্কর-ই-তৈবার শীর্ষ কমান্ডার মুদাছির পণ্ডিত সোপোরের এনকাউন্টারে নিহত হয়েছে। দীর্ঘদিন ধরেই পুলিশ ও সেনাবাহিনী তার খোঁজে তল্লাশি চালাচ্ছিল। বারামুল্লা জেলার সোপর এলাকায় আরও জঙ্গি লুকিয়ে রয়েছে বলে আশঙ্কা করছে বাহিনী। তাদের খোঁজে চিরুনি তল্লাশি চলছে।’
তথ্যসূত্র: আজকাল

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ