কৃষকদের মজুদ করা পেঁয়াজ বিক্রির আহ্বান

আপডেট: September 22, 2020, 9:23 pm

নিজস্ব প্রতিবেদক:


বিদেশ থেকে সরকার যে পেঁয়াজ আমদান করছেন তা কয়েক দিনের মধ্যে দেশে চলে আসবে। এছাড়া দেশের পর্যাপ্ত পেঁয়াজের চাষ হয়েছে। বেশিরভাগ কৃষকের ঘরে মজুদ রয়েছে। কৃষকদের পেঁয়াজগুলো ঘরে না রেখে স্বাভাবিক দামে বিক্রির আহ্বান জানানো হয়। এছাড়া অল্প কিছুদিনের মধ্যে পেঁয়াজের বাজার স্বাভাবিক হয়ে যাবে বলে জানানো হয়।
এনিয়ে মঙ্গলবার (২২ সেপ্টেম্বর) বেলা ১১টার দিকে রাজশাহী জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত সভায় এমন আশাবাদ ব্যক্ত করা হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন, জেলা প্রশাসক আবদুল জলিল। এসময় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক শাহানা আখতার জাহানসহ ব্যাবসায়ী প্রতিনিধি, রাজশাহী চেম্বারের প্রতিনিধি, বিভিন্ন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ছাড়াও পেঁয়াজ সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন।
অন্যদিকে,
রাজশাহীর বাজারে একদিনের ব্যবধানে বেড়েছে পেঁয়াজের দাম। কেজিপ্রতি পেঁয়াজে বেড়েছে ১০ থেকে ১৫ টাকা। বাজারে দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি ৯০ থেকে ৯৫ টাকায়। আর ভারতীয় পেঁয়াজ ৭০ থেকে ৭৫ টাকায়।
সাহেববাজারের কাঁচা তরকারি ব্যবসায়ী মো. লিটন বলেন, একদিনের ব্যবধানে মঙ্গলবার পাইকারি বাজারে পেঁয়াজের দাম ১৫ থেকে ২০ টাকা বাড়তি। আগের দুইদিন ৫৫ থেকে ৬০ টাকা কেজি দরে ভারতীয় এবং দেশি পেঁয়াজ ৭০ থেকে ৭৫ টাকা কেজি বিক্রি হয়েছে।
তিনি আরও বলেন, ভারতীয় পেঁয়াজ আসা শুরুর পর দাম কমে গিয়েছিল। কিন্তু গত রোববার ফের ভারতীয় পেঁয়াজ আসা বন্ধ হয়। এ কারণে মঙ্গলবার পেঁয়াজের দাম বেড়ে যায়।
পেঁয়াজ ক্রেতা সাইফুল ইসলাম জানায়, দাম বাড়ছে কমছেÑ এমন অবস্থায় অনেকেই বেশি করে পেঁয়াজ কিনে নিচ্ছেন, আগামিতে দাম বাড়বে বলে। যার মাসে তিন কেজি পেঁয়াজ লাগবে সে পাঁচ কেজি পেঁয়াজ কিনছেন। তবে আমি প্রয়োজন মতই পেঁয়াজ কিনছি। যখন পেঁয়াজ লাগবে তখন কিনবো।
প্রসঙ্গত, গত সপ্তাহে এক ঘোষণায় ভারত থেকে পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করে সে দেশের সরকার। এর পরে দেশে পেঁয়াজের দাম বাড়তে থাকে পাইকারি ও খুচরা বাজারে। পরে গত শুক্রবার ও শনিবার সীমান্তে আটকে পড়া পেঁয়াজ ছাড় দেয় ভারত।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ