কেনো নারী পরকীয়ায় জড়িত মানেই তিনি খারাপ মা নন, মন্তব্য হাই কোর্টের

আপডেট: জুন ২, ২০২১, ২:০৫ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


কোনো নারী বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কে জড়িত রয়েছেন মানেই তিনি ভাল মা নন, এটা কখনওই বলা যায় না। এবং সেই কারণে তাঁকে তাঁর সন্তানের দায়িত্ব দিতে অস্বীকারও করা যায় না। ৪ বছরের এক শিশুকন্যাকে নিজের কাছে রাখতে চেয়ে আদালতের দ্বারস্থ হয়েছিলেন এক তরুণী। সেই মামলাতেই এমন মন্তব্য করল পাঞ্জাব ও হরিয়ানা হাই কোর্ট।
ওই নারীর স্বামী অভিযোগ এনেছিলেন, তাঁর স্ত্রী পরকীয়ায় লিপ্ত। সেই অভিযোগের প্রেক্ষিতেই বিচারপতি অনুপিন্দর সিং গ্রেওয়াল জানিয়ে দেন, পুরুষতান্ত্রিক সমাজে সব সময়ই নারীদের নৈতিক চরিত্র নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করা হয়। তিনি বলেন, ‘‘যে কোনো পুরুষতান্ত্রিক সমাজেই যেভাবে নারীদের নৈতিক চরিত্র নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করা হয়, সেদিক বিচার করলে দেখা যায় বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই অভিযোগগুলি ভিত্তিহীন হয়। এমনকী, আমরা যদি ধরেও নিই কোনো নারী পরকীয়ায় জড়িয়েছেন, তাহলেও তার মানে এটা দাঁড়ায় না যে, তিনি ভাল মা হতে পারবেন না। কিংবা তাঁর সন্তানকে নিজের কাছে রাখতে পারবেন না তিনি।’’
প্রসঙ্গত, আদালতের কাছে দ্বারস্থ ওই মহিলার ক্ষেত্রে আদালতের পর্যবেক্ষণ তিনি অস্ট্রেলিয়ার বাসিন্দা ও স্থায়ী রোজগেরে। সেই সঙ্গে অস্ট্রেলিয়া সরকারের কাছ থেকেও সাহায্য পান তিনি। তাঁর স্বামী একজন অস্ট্রেলিয়ান নাগরিক। তিনি ভারতে বাস করেন। এদিন রায়ে আদালত একক মাতৃত্বের পক্ষেও সায় দিয়েছে। বিচারপতি অনুপিন্দর সিং গ্রেওয়ালের মতে, আদালত যে কোনো দম্পতির ক্ষেত্রেই পুনর্মিলনের পক্ষে সায় দেয়। কিন্তু তার মানে এই নয় যে, কোনো সন্তান বাবা কিংবা মা’র কাছে বড় হলে তার বেড়ে ওঠায় কোনো সমস্যা থেকে যায়।
তিনি বলেন, ‘‘আধুনিক সময়ে দেখা যায়, একক অভিভাবকের কাছে বড় হওয়া সন্তানেরা অনেক সময়ই দায়িত্ববান প্রাপ্তবয়স্ক হিসেবে বেড়ে উঠে নানা ক্ষেত্রে দেশকে সমৃদ্ধ করতে পারেন।’’
তথ্যসূত্র: সংবাদ প্রতিদিন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ