কেশরহাট কলেজের নিয়োগ স্থগিতাদেশ

আপডেট: অক্টোবর ১৩, ২০২৩, ১১:১৫ অপরাহ্ণ


নিজস্ব প্রতিবেদক:


মোহনপুর উপজেলার কেশরহাট ডিগ্রি কলেজের গভর্নিং বডির সভাপতি ও ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের স্বেচ্ছাচারিতা, স্বজনপ্রীতি, অনিয়ম ও অভ্যন্তরীণ শৃংখলা কাঠামো ভেঙে পড়ার অভিযোগ উঠেছে। এ কারণে চারজন কর্মচারির নিয়োগের সকল কার্যক্রম বন্ধের আদেশ চেয়ে বৃহস্পতিবার (১২ অক্টোবর) রাজশাহীর মোহনপুর সহকারি জজ আদালতে নিয়োগ প্রত্যাশীরা মামলা দায়ের করেছেন।
এ মামলার বাদী মোহনপুর উপজেলার পারিলাডাঙ্গা গ্রামের সুদীপ্ত হালদার ও রায়ঘাটি গ্রামের মাসুদ রানা।

আদালত কলেজ গভর্নিং বডির সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান অ্যাড. আবদুস সালাম, ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ আনোয়ারুল হক হেনা, শিক্ষক প্রতিনিধি ফেরদৌস আলী, বাছাই কমিটির প্রতিনিধি শহিদুজ্জামান শহীদ, সদস্য ফারুক আহমেদকে দশ দিনের মধ্যে কারণ দর্শানোর নোটিশ প্রদান করে পরবর্তী শুনানির জন্য আগামী ১২ নভেম্বর তারিখ ধার্য করেন।

এছাড়াও উপজেলার কেশরহাট ডিগ্রি কলেজের সভাপতি অ্যাড. আবদুস সালাম নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে স্বেচ্ছাচারিতা ও স্বজনপ্রীতির মাধ্যমে অধ্যক্ষ গিয়াস উদ্দিনকে সাময়িক বরখাস্ত করে উপাধ্যক্ষ আনোয়ারুল হক হেনাকে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের দায়িত্ব প্রদান করেন। এছাড়াও ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষকে দিয়ে দুইজন ল্যাব সহকারি, একজন নিরাপত্তাকর্মী ও পরিচ্ছন্নতাকর্মী কর্মচারী নিয়োগে ব্যাপক বাণিজ্যের চেষ্টা করছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। কেশরহাট ডিগ্রি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ আনোয়ারুল হক হেনা বলেন, এখন পর্যন্ত আদালতের কোন নোটিশ আমি পাইনি। তবে নিয়োগ সংক্রান্ত বিষয়ে সম্পন্ন তথ্য সভাপতি মহোদয় ভাল জানেন। এ বিষয়ে আমি কিছু জানি না।

নিয়োগের বিষয়ে কথা বলার জন্য কেশরহাট ডিগ্রি কলেজের গভর্নিং বডির সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান অ্যাড. আবদুস সালামের মুঠোফোনে বেশ কয়েকবার কল দিলেও তিনি ধরেননি।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ