কৈলাস সত্যার্থীর নতুন কর্মসূচি শুরু বাংলাদেশে

আপডেট: এপ্রিল ৩, ২০১৭, ১২:৩৪ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের অধিকার বঞ্চিত ১০ কোটি শিশুর জীবন মান উন্নয়নে যুব সম্প্রদায়ের ১০ কোটি সদস্যকে উদ্যোগী করতে নোবেলজয়ী কৈলাস সত্যার্থীর উদ্যোগে ‘১০ কোটি শিক্ষা বঞ্চিত মানুষের জন্য আমরা দশ কোটি’ কর্মসূচি শুরু বাংলাদেশে।
রোববার গণসাক্ষরতা অভিযানের সমন্বয়ে সেন্ট যোসেফ উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে এক তরুণ শিক্ষার্থী সমাবেশে এই ক্যাম্পেইনের উদ্বোধন করেন কৈলাস সত্যার্থী।
ভারতের শিশু অধিকার কর্মী কৈলাস সত্যার্থী ২০১৪ সালে তালেবান হামলায় বেঁচে যাওয়া পাকিস্তানি কিশোরী মালালা ইউসুফজাইয়ের সঙ্গে যৌথভাবে শান্তিতে নোবেল পুরস্কার পান। এরপর ২০১৬ সালে তার উদ্যোগে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে একযোগে হয় চালু ‘১০ কোটি শিক্ষা বঞ্চিত মানুষের জন্য আমরা দশ কোটি’ শীর্ষক কর্মসূচি। গত ১১ ডিসেম্বর ভারতে রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জী এই কর্মসূচির উদ্বোধন করেন।
এর প্রায় চার মাস পর বাংলাদেশে কর্মসূচির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের ধারণাপত্রে বলা হয়, “বর্তমান বিশ্বে ২৫ বছরের কম বয়সী মানুষ বা যুব সম্প্রদায়ের সংখ্যা প্রায় ৩০০ কোটি, যাদের একটি বড় অংশ সুবিধাবঞ্চিত জনগোষ্ঠীর অন্তর্ভুক্ত, যারা অনেক মৌলিক অধিকার থেকে বঞ্চিত। ১০০ মিলিয়নের বেশি শিশু ঝুঁকিপূর্ণ শ্রমের সাথে জড়িত, যার মধ্যে ৫ মিলিয়ন শ্রমদাস হিসাবে কাজ করতে বাধ্য হচ্ছে।”
ভারতে যারা শিশু অধিকার আন্দোলনের নেতৃত্ব, ১৯৫৪ সালের ১১ জানুয়ারি মধ্যপ্রদেশে জন্ম নেওয়া কৈলাস তাদেরই একজন।
১৯৯০ এর দশক থেকে শিশু অধিকার প্র্রতিষ্ঠার আন্দোলনে ব্যাপকভাবে সক্রিয় হলেও কৈলাস সত্যার্থীকে বিষয়টি প্রথম নাড়া দেয় মাত্র ৬ বছর বয়সে।
শৈশব কৈশোরে বেশ কিছু উদ্যোগের পর ১৯৮০ এর দশকে ইলেক্ট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারের চাকরি ছেড়ে পুরোদমে শিশু অধিকারের আন্দোলনে সম্পৃক্ত হন কৈলাস।
গড়ে তোলেন ‘বাচপান বাঁচাও’ আন্দোলন, যে সংগঠনটি সারা ভারতে এ পর্যন্ত ৮০ হাজারেরও বেশি শিশুকে শ্রমের দাসত্ব থেকে মুক্ত করে পুনর্বাসন আর শিক্ষাও নিশ্চিত করেছে।- বিডিনিউজ