কোয়ার্টার ফাইনালে বাংলাদেশ, প্রতিপক্ষ ভারত

আপডেট: জানুয়ারি ২৩, ২০২২, ১২:৪৮ অপরাহ্ণ


সোনার দেশ ডেস্ক :


ইংল্যান্ডের বিপক্ষে উদ্বোধনী ম্যাচ হারলেও গ্রুপ পর্বের বাকি দুই ম্যাচ অনায়াসেই জিতেছে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেট দল। অপেক্ষাকৃত সহজ প্রতিপক্ষের বিপক্ষে টানা দুই ম্যাচ জিতে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছে রাকিবুলরা।

দ্বিতীয় ম্যাচে কানাডাকে ৯ উইকেটে হারানোর পর শনিবার আরব আমিরাতকে ডাকওয়ার্থ লুইস পদ্ধতিতে ৯ উইকেটের বড় ব্যবধানে হারিয়েছে লাল-সবুজ জার্সিধারীরা। আর তাতেই ‘এ’ পের রানার্সআপ হয়ে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছে বাংলাদেশ।

কোয়ার্টার ফাইনালে বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ ভারত।
সেন্ট কিটসের ওয়ার্নার পার্কে আরব আমিরাতের দেওয়া ১৪৯ রানের জবাবে খেলতে নেমে দারুন শুরু করেছিল বাংলাদেশ। ওপেনিং জুটিতে ৮৬ রান তুলতেই আউট হন ইফতেখার হোসেন।

ঠিক তখনই সেন্ট কিটসের আকাশে বৃষ্টি নামে। তাতেই প্রায় দুই ঘণ্টার মতো বন্ধ থাকে খেলা। বৃষ্টি কমার পর বাংলাদেশ নতুন লক্ষ্য দাঁড়ায় ৩৫ ওভারে ১০৭ রান। সেই লক্ষ্যে খেলতে নেমে ৬১ বল আগেই ছুয়ে ফেলে লাল-সবুজ জার্সিধারীরা।

ওপেনার মাহফিজুল ৬৯ বলে ৬৪ রানের ইনিংস খেলেছেন। ৬ চার ও ২ ছক্কায় মাহফিজুল নিজের ইনিংসটি সাজিয়েছেন। এছাড়া তিন নম্বরে নামা প্রান্তিক নওরোজ নাবিল ১০ বলে ৫ রানে অপরাজিত আছেন। ইফতেখার ৭০ বলে ২ চার ও ১ ছক্কায় ৩৫ রানের ইনিংস খেলে আউট হন।

আরব আমিরাতের বিপক্ষে এই জয়ে বাংলাদেশ দুই জয়ে চার পয়েন্ট নিয়ে ‘এ’ গ্রæপের রানার্স আপ হয়েছে। ফলে টুর্নামেন্টের নিয়ম অনুযায়ি বাংলাদেশকে কোয়ার্টার ফাইনাল খেলতে হবে ‘বি’ গ্রুপের চ্যাম্পিয়ন দলের সঙ্গে।

শনিবার উগান্ডাকে ৩২৬ রানের বড় ব্যবধানে হারিয়ে ভারত ‘বি’ গ্রæপের চ্যাম্পিয়ন হয়। আগামী ২৯ জানুয়ারি ভারতের বিপক্ষে কোয়ার্টার ফাইনালের শেষ ম্যাচটিতে মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ দল।

এর আগে টস হেরে ব্যাটিংয়ের আমন্ত্রণ পাওয়া আরব আমিরাতের দুই ওপেনারকে শুরুতেই বিদায় করে আরব আমিরাতকে একশ’র নিচে অলআউট করার ইঙ্গিত দিচ্ছিল বাংলাদেশ।

কিন্তু তৃতীয় উইকেটে ৪৪ রানের জুটির ওপর দাঁড়িয়ে আরব আমিরাত দেড়শ’ কাছাকাছি পৌঁছে যায়। পুনহা মেহরার ৬৪ বলে ৩৩ এবং ধ্রুব পরাশের ৮২ বলে ৩৩ রানের ওপর ভর করে ৪৮.১ ওভারে সব উইকেট হারিয়ে ১৪৮ রান সংগ্রহ করে আরব আমিরাত।

বাংলাদেশের বোলারদের মধ্যে রিপন মণ্ডল সর্বোচ্চ তিনটি উইকেট নেন। এছাড়া আশিকুজ্জামান ও তানজিম হাসান সাকিব দুটি করে উইকেট নেন। রাকিবুল হাসান ও আরিফুল ইসলাম নেন একটি করে উইকেট।
তথ্যসূত্র: বাংলা ট্রিবিউন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ