ক্রুদ্ধ বুমরাহ, ক্ষমা চাইল জয়পুর ট্রাফিক পুলিশ

আপডেট: জুন ২৫, ২০১৭, ১:১২ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির ফাইনালে জসপ্রিত বুমরাহ’র সেই নো-বল ট্রাফিক সিগনালে ব্যবহার করছে জয়পুর ট্রাফিক পুলিশ। এটা একদিন আগের খবর। নতুন খবর হলো, জয়পুরি ট্রাফিক পুলিশের এই কাণ্ডে ভীষণ ক্রুদ্ধ, বুমরাহ। ভারতীয় পেসার তার সেই ক্ষোভ ঝেরেছেন টুইটারে। ছোট ছোট দুটি টুইট করে ধুয়ে দিয়েছেন জয়পুরি ট্রাফিক পুলিশকে। অবস্থা বেগতিক দেখে জয়পুর ট্রাফিক পুলিশও দ্রুতই ক্ষমা চেয়েছে। টুইট করেই বুমরাহকে বাঝাতে চেয়েছে, তারা বুমরাহকে কষ্ট বা অপমান করার জন্য এটা করেনি। তারা স্রেফ ট্রাফিক আইন সম্পর্কে মানুষকে সচেতন করতেই ওই নো-বল দৃশ্যটি বিলবোর্ডে ব্যবহার করেছে। অন্য কোনো উদ্দেশ্য তাদের নেই।
১৮ জুন ওভালে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির ফাইনালে ইনিংসের চতুর্থ ওভারেই বুমরাহ’র বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ তুলে দেন পাকিস্তানি ওপেনার ফখর জামান। আউট ভেবে ফখর জামান প্যাভিলিয়নের পথে হাঁটাও ধরেছিলেন। কিন্তু রিপ্লেতে পরিস্কার, বুমরাহর বলটা ছিল নো। ৩ রানে দাঁড়িয়ে পুনজীবন পাওয়া সেই ফখর জামান সেঞ্চুরি করে ম্যাচ থেকে ছিটকে ফেলেন ভারতকে! স্বাভাবিকভাবেই ভারতজুড়ে এখনো আলোচনায় বুমরাহর সেই নো-বল।
ঠিক এই সুযোগটাই কাজে লাগিয়েছে জয়পুর পুলিশ। মানুষদে ট্রাফিক আইন সম্পর্কে সচেতন করতে রাস্তার পাশে বিশাল আকার বিলবোর্ড স্থাপন করেছে। বিলবোর্ডের এক পাশে দেখানো হয়েছে, জেব্রা ক্রসিংকে সামনে রেখে থেমে আছে গাড়ি। অন্য পাশে দেখানো হয়েছে লাইন অতিক্রম করে বুমরাহর সেই নো-বল ডেলিভারির দৃশ্য। নিচে ক্যাপশনে লিখেছে, ‘লাইন অতিক্রম করবেন না। জানেনই তো, লাইন ক্রস করার মূল্য কতো চড়া!’
বিলবোর্ড দেখে জয়পুরের মানুষ ট্রাফিক আইন সম্পর্কে কতটা সচেতন হয়েছে কে জানে! তবে বুমরাহ চটেছেন খুব। সেই ক্ষোভ তিনি উপড়ে দিয়েছেন টুইটে, ‘খুব ভালো কাজ করেছে জয়পুর ট্রাফিক পুলিশ। তারা বুঝিয়ে দিয়েছে, দেশের জন্য সামর্থ্যের সর্বোচ্চটা দেওয়ার পর আপনি কতোটা সম্মান পাবেন।’ একটু পর অন্য আরেকটি টুইটে ভারতের তরুণ পেসার লিখেছেন, ‘চিন্তা করার কারণ নেই। নিজেদের কর্মস্থলে আপনারা যে ভুল করেন, তা নিয়ে মজা করব না। কারণ, আমি জানি মানুষ মাত্রই ভুল করে।’
উত্তরে দুঃখ প্রকাশ করে জয়পুর ট্রাফিক পুলিশ কর্তৃপক্ষ টুইটে লিখেছে, ‘প্রিয় বুমরাহ, আপনার মনে কষ্ট দেওয়া বা দেশের শতকোটি মানুষকে কষ্ট দেওয়ার উদ্দেশ্য আমাদের ছিল না। আমরা স্রেফ মানুষকে ট্রাফিক আইন সম্পর্কে সচেতন করতেই এটা ব্যবহার করেছি। মি. বুমরাহ আপনি তরুণদের আইকন এবং আমাদের সবার অনুপ্রেরণা।’ দেখা যাক জয়পুর ট্রাফিক পুলিশের এই বাণী বুমরাহ’র ক্ষোভ কতোটা প্রশমিত করে!

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ