খনিজ অনুসন্ধানে সাগরের ব্লক ১২ পেল দেইয়ু

আপডেট: মার্চ ১৫, ২০১৭, ১২:১৬ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


সাগরে খনিজ অনুসন্ধানে দক্ষিণ কোরিয়ার কোম্পানি পোসকো দেইয়ু করপোরেশনের সঙ্গে পিএসসি চুক্তি করেছে সরকার, যাকে ব্লু ইকোনমির ক্ষেত্রে ‘মাইলফলক’ বলছেন সংশ্লিষ্টরা।
মঙ্গলবার ঢাকায় পেট্রোবাংলার প্রধান কার্যালয়ে গভীর সমুদ্রের ডিএস-১২ ব্লকে অনুসন্ধানের জন্য কোরীয় কোম্পানিটির সঙ্গে উৎপাদন-অংশীদারিত্ব চুক্তি (পিএসসি) সই হয়।
অনুসন্ধানে খনিজ পাওয়া গেলে চুক্তি অনুযায়ী, উৎপাদিত গ্যাস বা কনডেনসেটের ক্ষেত্রে ব্যয় নির্বাহের পর পেট্রোবাংলা সর্বনিম্ন ৬৫ শতাংশ থেকে সর্বোচ্চ ৯০ শতাংশ পাবে। প্রাকৃতিক গ্যাসের ক্ষেত্রে ব্যয় নির্বাহের পর পেট্রোবাংলা সর্বনিম্ন ৬০ শতাংশ থেকে সর্বোচ্চ ৮৫ শতাংশ পাবে।
বাংলাদেশে কাজ পাওয়া কোরিয়ার কোম্পানিটি ১৯৬৭ সালে দেইয়ু ইন্ডাস্ট্রি হিসেবে যাত্রা শুরু করেছিল। ১৯৮২ সালে এর নাম বদলে হয় দেইয়ু করপোরেশন। ২০১০ সালে পোসকো গ্রুপের সঙ্গে একীভূত হওয়ার পর ২০১৬ সালে কোম্পানির নাম হয় পোসকো দেইয়ু।
১৯৯২ সালে ভিয়েতনামে গ্যাস অনুসন্ধানের কাজ শুরু করা পোসকো দেইয়ুর খনিজ অনুসন্ধানে বিশ্বজুড়ে ১৫টি প্রকল্প চলমান। এর মধ্েয বাংলাদেশের প্রতিবেশী দেশ মিয়ানমারেও তাদের প্রকল্প রয়েছে।
প্রাথমিক অনুসন্ধানের মেয়াদকাল পাঁচ বছর ধরে পোসকো দেইয়ুর সঙ্গে চুক্তি করেছে বাংলাদেশ।
এই সময়ের মধ্যে কোম্পানিটি প্রথম দুই বছরে ১৮০০ লাইন কিলোমিটার দ্বিমাত্রিক (২ডি) সাইসমিক সার্ভে চালাবে। তৃতীয় বছর এক হাজার বর্গ কিলোমিটার ত্রিমাত্রিক (৩ডি) সাইসমিক সার্ভে পরিচালনা এবং চতুর্থ ও পঞ্চম বছরে একটি অনুসন্ধান কূপ খনন করবে।
২০১৭ সালের মধ্য নাগাদ সাইসমিক সার্ভে শুরু এবং প্রথম নাগাদ সার্ভের ফলাফলের উপর ভিত্তি করে ২০১৯ সালে এ ব্লকে তেল-গ্যাসের প্রাপ্যতা সম্পর্কে ধারণা পাওয়ার আশা করা হচ্ছে।
দেশের উন্নয়নের ক্ষেত্রে সমুদ্র অর্থনীতি বা ব্লু ইকোনমিকে গুরুত্ব দিচ্ছে বর্তমান সরকার। তার ধারাবাহিকতায় সাগরে খনিজ অনুসন্ধানে কোরীয় কোম্পানিটির সঙ্গে চুক্তি হল।
সরকারের পক্ষে জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের উপ-সচিব বেগম খাদিজা নাজনীন, পেট্রোবাংলার পক্ষে পেট্রোবাংলার সচিব আশফাকুজ্জামান এবং পোসকো দেইয়ুর পক্ষে কোম্পানির জ্যেষ্ঠ নির্বাহী ভাইস প্রেসিডেন্ট শি বো জু চুক্তিতে সই করেন।
প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানি বিষয়ক উপদেষ্টা তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী, বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ, বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি তাজুল ইসলাম, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের সচিব মো. নাজিমউদ্দিন চৌধুরী; পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান আবুল মনসুর মো. ফয়েজউল্লাহ, দক্ষিণ কোরিয়ার রাষ্ট্রদূত সিয়ং দু ও পোসকো দেইয়ু করপোরেশনের সিইও ইয়ং সেং কিম অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।
পেট্রোবাংলা জানায়, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি দ্রুত সরবরাহ বৃদ্ধি (বিশেষ আইন) আইন ২০১০, অনুসারে গভীর সমুদ্রাঞ্চলে ব্লক ডিএস-১২, ডিএস-১৬, ও ডিএস-২১ ব্লকে তেল/গ্যাস অনুসন্ধান/উত্তোলনের জন্য ২০১৬ সালের ০৫ ফেব্রুয়ারি আগ্রহপত্র (ইওআই) আহ্বান করা হয়েছিল।
সে অনুযায়ী ক্রিশ এনার্জি (এশিয়া) লিমিটেড, পোসকো দেইয়ু ও স্টেটইল নামের তিনটি প্রতিষ্ঠান আগ্রহ প্রকাশ করেছিল। পরে তাদের কাছে আরইএফ বা প্রস্তাবনাপত্র চাওয়া হলে শুধু পোসকো দেইয়ু তাদের প্রস্তাব তুলে ধরে। এরপর গত মাসে অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি কোরীয় কোম্পানিটির সঙ্গে চুক্তি সইয়ের প্রস্তাবে সম্মতি দেয়।- বিডিনিউজ