খানাখন্দে ভরা নগরীর রাস্তা ঝুঁকিতে যানবাহন চলাচল

আপডেট: নভেম্বর ৮, ২০১৬, ১২:৪২ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


নগরীর গুরুত্বপূর্ণ সড়কগুলো ভেঙে খাদ তৈরি হওয়ায় বিপাকে পড়েছেন যানবাহন চালক ও নগরবাসী। বিশেষ করে যানবাহন চলাচলে ঝুঁকিতে পড়তে হচ্ছে প্রতিদিনই। সড়কের মাঝে মাঝে খাদগুলো দিনদিন বড় হওয়ায় যান চলাচলে বিড়াম্বনার শেষ নেই। দীর্ঘদিন ধরে নগরীর গুরুত্বপূর্ণ বেশ কিছু এলাকায় রাস্তার পিচ (বিটুমিন) ওঠে ও বসে গিয়ে খাদ তৈরি হয়েছে। গ্যাস সংযোগ ও ওয়াসার পানি সংযোগ নেয়ার সময় রাস্তা খোড়াখুড়ি করার ফলে এই খাদগুলো তৈরি হয়েছে।
এমন চিত্র দেখায় যায়, নগরীর গুরুত্বপূর্ণ এলাকা গণপাড়া মোড়স্থ রাস্তায়। এই রাস্তায় মাঝ দিয়ে বয়ে যাওয়া বড় ড্রেনের স্লাপ ভেঙে ও বসে খাদ তৈরি হয়েছে। এই খাদে এলাকার মানুষ লাঠিতে লাল পতাকা উড়িয়ে সর্তকতামূলক নির্দেশনা ঝুলিয়েছেন। যাতে রাস্তা পারাপারে যেকোন যানবাহন সর্তকর্তার সঙ্গে চলাচল করতে পারে।
এ ছাড়াও খানা-খন্দকে ভরা রাস্তাগুলো হলো- মনিচত্বর কলেজিয়েট স্কুল, সাহেববাজার বড় মসজিদের পিছনের রাস্তা, হেঁতেম খা বড় মসজিদ থেকে বর্ণালীর মোড় পর্যন্ত রাস্তা, ঘোষপাড়া মোড়, কামরুজ্জামান চত্বর, বিন্দুর মোড় রেলগেট, বহরমপুর মোড়, রেলস্টেশন-বাস টার্মিনাল, বড়কুঠি পদ্মাগার্ডেনসহ বিভিন্ন স্থানের রাস্তার পিচ ওঠে খাদ তৈরি হয়েছে। রাস্তায় এসব খাদ তৈরি হওয়ায় রিকশা, অটোরিকশা, সাইকেল ও মটর সাইকেলসহ ছোট এবং বড় যানবাহনের টায়ার মাঝে মাঝে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। এসময় গুরুত্বপূর্ণ এসব সড়কগুলোতে যানজটের সৃষ্টি হতে দেখা যায়।
এবিষয়ে নগরীর গণকপাড়া মোড়স্থ রাস্তা দিয়ে যাওয়া মোটরসাইকেল চালক শরিফুল ইসলাম, সোহেল হোসেনসহ আরো অনেকে বলেন, নগরীর গুরুত্বপূর্ণ রাস্তা গণকপাড়া মোড়। অনেকদিন ধরে এ রাস্তার উপর ড্রেনের স্লাব ভেঙে বসে যাওয়ায় চলাচলে সমস্যা পোহাতে হচ্ছে। সিটি করপোরেশন যদি দ্রুত স্লাবটি মেরামত করে দেয় তাহলে খুব ভাল হবে। এই রাস্তা ছাড়াও নগরীর যেসব রাস্তা ভাঙা আছে সেগুলো জরুরি ভিত্তিতে মেরামত করা প্রয়োজন।
এবিষয়ে রাজশাহী সিটি করপোরেশনের দায়িত্বপ্রাপ্ত মেয়র নিযাম উল আযীম বলেন, নগরীর রাস্তাগুলো সংস্কার করার জন্য টেন্ডার হয়ে আছে। পর্যাপ্ত অর্থের অভাবে সংস্কার কাজের ওয়ার্ক অর্ডার দেয়া যাচেছ না।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ