খোলা বাজারে প্রতি ডলার একশ’ টাকা ছাড়ালো

আপডেট: মে ১৭, ২০২২, ৯:২৫ অপরাহ্ণ

ডলার

সোনার দেশ ডেস্ক:


দেশের বাজারে বেশ কিছুদিন ধরে মার্কিন ডলারের দামে অস্থিরতা বিরাজ করছে। প্রতিদিনই বাড়ছে এর দাম। কার্ব মার্কেট বা খোলা বাজারে ডলারের দাম মঙ্গলবার (১৭ মে) ১০০ টাকা ছাড়িয়ে গেছে।

মঙ্গলবার (১৭ মে) রাজধানীর ব্যাংক পাড়া মতিঝিল, পল্টন ও বায়তুল মোকাররম এলাকায় খোঁজ নিয়ে এমন তথ্য পাওয়া গেছে।
এক্সচেঞ্জ (মুদ্রা বিনিময়) হাউজগুলোতে মঙ্গলবার খুচরা ডলার ১০০ টাকা থেকে ১০২ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। একদিন আগেও দর ছিল ৯৬ থেকে ৯৮ টাকা।

মতিঝিল এলাকার এক্সচেঞ্জ হাউজগুলো থেকে জানা গেছে, এখন ১০২ টাকায় পাওয়া গেলেও হয়তো আগামীকাল দাম আরও বেড়ে যাবে। কারণ, এক্সচেঞ্জ হাউজগুলো চাহিদা অনুযায়ী ডলার পাচ্ছে না। এছাড়া সামনে হজ মৌসুম আসছে, আরও দাম বাড়বে।

এ প্রসঙ্গে নাম প্রকাশ না করার শর্তে খোলা মার্কেটের ডলার ব্যবসায়ী বলছেন, যারা বিদেশ যাচ্ছেন, তাদের কাছে এখন নগদ ডলারের প্রচুর চাহিদা। তিনি উল্লেখ করেন, ব্যাংকগুলোতেই ডলারের সংকট। এ কারণে প্রতিদিনই দুই-তিন টাকা করে বাড়ছে।

এদিকে বাংলাদেশ ব্যাংক সর্বশেষ সোমবার (১৬ মে) ডলারের দর বেঁধে দেয় ৮৭ টাকা ৫০ পয়সা। কিন্তু তাদের বেঁধে দেওয়া দর বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো মানছে না। এখন ব্যাংকে এলসি করতে গেলে ডলারের বিপরীতে নেওয়া হচ্ছে ৯২ থেকে ৯৩ টাকা। আবার কোনও কোনও ব্যাংক ৯৫/৯৬ টাকাও নিচ্ছে বলে জানা গেছে।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র সিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘ব্যাংকগুলোর চাহিদা অনুযায়ী বাংলাদেশ ব্যাংক ডলার সরবরাহ করছে। এখন পর্যন্ত ব্যাংকগুলোর চাহিদার বিপরীতে ৫ বিলিয়ন ডলারের বেশি বিক্রি করা হয়েছে। যখনই প্রয়োজন আরও ডলার সরবরাহ করা হবে।’

তিনি জানান, নির্ধারিত দরের চেয়ে বেশি দরে কিছু ব্যাংক ডলার বিক্রি করছে, এ ধরনের অভিযোগ আমাদের কাছেও এসেছে।
এদিকে চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরের ১২ মে পর্যন্ত সব মিলিয়ে ৫০২ কোটি (৫.০২ বিলিয়ন) ডলার বিভিন্ন ব্যাংকের কাছে বিক্রি করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। যদিও এর আগে, বাজার স্থিতিশীল রাখতে গত অর্থবছরে ডলার কেনায় রেকর্ড গড়েছিল কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

তথ্য বলছে, ২০২০-২১ অর্থবছরে ব্যাংকগুলোর কাছ থেকে সবমিলিয়ে প্রায় ৮ বিলিয়ন (৮০০ কোটি) ডলার কেনে বাংলাদেশ ব্যাংক। ২০১৩-১৪ অর্থবছরে ৫ দশমিক ১৫ বিলিয়ন ডলার কিনেছিল কেন্দ্রীয় ব্যাংক।
তথ্যসূত্র: বাংলাট্রিবিউন