গল থেকে কী পেলো বাংলাদেশ?

আপডেট: মার্চ ১২, ২০১৭, ১২:১৫ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক



চার বছর আগের গল টেস্ট ছিল অনেক প্রাপ্তির। দ্বিশতক করেছিলেন মুশফিকুর রহিম, শতক এসেছিল মোহাম্মদ আশরাফুল ও নাসির হোসেনের ব্যাট থেকে। ম্যাচ হয়েছিল ড্র। এবার কী পেলেন খুঁজতে গিয়ে দুই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যানের ব্যাটিং ছাড়া কোনো প্রাপ্তি মিললো না অধিনায়কের।
দুই ইনিংসেই অর্ধশতক করেছেন সৌম্য সরকার। প্রথম ইনিংসে উইকেট ছুঁড়ে আসা এই তরুণ বাঁহাতি ব্যাটসম্যান দ্বিতীয় ইনিংসে আউট হন দিনের দ্বিতীয় বলে। প্রথম ইনিংসে অর্ধশতক পাওয়া তামিম ইকবাল সেবার ফিরেন অদ্ভুতুড়ে এক আউটে। দ্বিতীয় ইনিংসে পঞ্চম দিনে তিনিও ফিরেন দ্রুত।
গল ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট স্টেডিয়ামে শনিবার দেড় সেশনের মধ্যে ১৯৭ রানে গুটিয়ে যাওয়া বাংলাদেশ ম্যাচ হারে ২৫৯ রানে। পরে সংবাদ সম্মেলনে এই ম্যাচের প্রাপ্তি নিয়ে বলেন মুশফিক।
“সৌম্য দুই ইনিংসেই ভালো ব্যাটিং করেছে। তামিমও ভালো ব্যাটিং করেছে। বোলারদের আরো ভালো করার সুযোগ ছিলো। আমাদের যেমন পরিকল্পনা ছিলো, তা আমরা প্রয়োগ করতে পারিনি। সব মিলিয়ে আমরা তিন বিভাগেই শ্রীলঙ্কার চেয়ে বাজে খেলেছি।”
অধিনায়ক নিজের কথা বলেন নি। দুই ইনিংসেই দেখিয়েছেন দৃঢ়তা। বিশেষজ্ঞ ব্যাটসম্যানদের কাছ থেকে তিনি আরেকটু বেশি সহায়তা পেলে ম্যাচের চিত্রটা ভিন্ন হতেও পারতো।
স্বাগতিক শ্রীলঙ্কা খেলেছে তিন স্পিনার নিয়ে, বাংলাদেশ দল সাজিয়েছে তিন পেসার নিয়ে। একাদশ নিয়ে প্রশ্নের উত্তর দিতে গিয়ে টানলেন সেই ‘নো’ বলের প্রসঙ্গ। শুভাশীষ রায় চৌধুরীর বলে শুরুতেই ফিরতেই পারতেন কুসল মেন্ডিস। নো বলের কল্যাণে শূন্য রানে বেঁচে যাওয়া টপঅর্ডার ব্যাটসম্যান খেলেন ১৯৪ রানের দারুণ ইনিংস।
“আমরা যদি ম্যাচ ড্র করতাম, তাহলে কিন্তু এই প্রশ্নটা আসতো না। এই টেস্ট কিন্তু বোলিংয়ের কারণে নয়, হেরেছি ব্যাটিংয়ের জন্য। এখানে এতটা স্পিন ছিলো না যে ব্যাটিংয়ে সমস্যা হবে।”
“যেভাবে বল করছিল শুভাশীষের ওই নো বলটা না হলে আরো দুয়েকটা উইকেট পড়েও যেতে পারতো। আমার মনে হয়, কিছু কিছু জায়গা আছে যেখানে আমরা নিজেদের প্রতি ‘জাস্টিস’ করি নাই। নো বল একটা ক্রাইমের মতো। পরের টেস্টে আমরা আরো দৃঢ়ভাবে সব কিছু সামলানোর চেষ্টা করব।” দুই ম্যাচের সিরিজে হার এড়াতে পি সারা ওভালে ঘুরে দাঁড়ানো ছাড়া বিকল্প নেই বাংলাদেশ দলের সামনে।-বিডিনিউজ