গুরুদাসপুরের চাঁচকৈড় হাটে বিধিবহির্ভুত টোল আদায়ের অভিযোগ

আপডেট: জুলাই ১১, ২০১৭, ১২:৪২ পূর্বাহ্ণ

গুরুদাসপুর প্রতিনিধি


নাটোরের গুরুদাসপুর পৌরসভার চাঁচকৈড় হাট পরিচালনা কমিটির বিরুদ্ধে বিধিবহির্ভুতভাবে টোল আদায়ের অভিযোগ তুলেছেন রড, সিমেন্ট ও লৌহজাত পণ্য-সামগ্রী ব্যবসায়ীরা। এই টোল আদায়ের ফলে তাদের ব্যবসায় বিরুপ প্রভাব পড়েছে। গত রোববার রাতে এসব ব্যবসায়ীরা স্থানীয় সাংবাদিকদের ডেকে অসংগতিপূর্ণ বাড়তি টোল আদায়ের ওই অভিযোগ করেন।
এসময় রড-সিমেন্ট ও লৌহজাত সামগ্রী ব্যবসায়ীদের পক্ষে মেসার্স ত্বাহা ট্র্র্র্রেডার্সের আবদুুল ওয়াহাব, মামুন এন্টারপ্রাইজের আল মামুন, হাজি শের মোহাম্মদ এন্টারপ্রাইজের মহিউদ্দিন, সানলাইট মেশীনারীজের দিলীপ কর্মকারসহ কমপক্ষে ১৫জন ব্যবসায়ী উপস্থিত ছিলেন।
এসব ব্যবসায়ীরা অভিযোগ করেন, ২০০১ সাল থেকে তারা এসব পণ্য-সামগ্রীর ওপর কোন রকম টোল আদায় করা হয় নি। কিন্তু ১৪২৪ বঙ্গাব্দের শুরু থেকে হাট ইজারাদার কর্তৃপক্ষ ক্রেতাদের কাছ থেকে এসব পণ্য-সামগ্রীর টোল আদায়ের জন্য চাপ সৃষ্টি করে আসছে। এতে করে হাট ইজারাদার কর্তপক্ষের সাথে এসব ব্যবসায়ীদের সাথে টোল আদায়ের বিষয়টি নিয়ে কয়েক দফা বৈঠক হয়। বৈঠকে হাট ইজারাদার কর্তৃপক্ষ ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে টোল আদায়ে ব্যর্থ হয়ে ক্রেতাদের কাছ থেকে অধিক হারে টোল আদায় করে চলছেন। ক্রেতাদের কাছ থেকে টোল আদায়ের ফলে এসব ব্যবসায়ীদের বেচা-বিক্রি কমে গেছে। অধিকাংশ ক্রেতা টোল দিয়ে আর্থিক হয়রানীর শিকার হয়ে তাদের ক্রয়কৃত পণ্য সামগ্রী ব্যবসায়ীদের ফেরত দিয়ে পাশের উপজেলা থেকে ক্রয় করতে বাধ্য হচ্ছেন। এতে করে চাঁচকৈড় হাটে- ওইসব পণ্য সামগ্রী বিক্রি বন্ধের উপক্রম হয়েছে।
কয়েকজন ব্যবসায়ী অভিযোগ করেন, তারা কোটি কোটি টাকা ব্যাংক ঋণ নিয়ে ব্যবসা করছেন। বিক্রি কমে যাওয়ায় ব্যাংক ঋণের সুদ, দোকান ভাড়া ও কর্মচারীদের বেতন দিতে গিয়ে ঋণগ্রস্ত হয়ে পড়ছেন। মেশিনারীজ ব্যবসায়ী আবদুুল খালেক ও রড-সিমেন্ট ব্যবসায়ী আনোয়ার হোসেন অভিযোগ করেন, জেলার অন্য উপজেলাগুলোর হাট-বাজারে রড-সিমেন্ট, শ্যালো মেশিন, নলকুপের পাইপ, টয়লেট সামগ্রী ও লৌহজাত সামগ্রী ও মেশিনারীজের ওপর ব্যবসায়ী বা ক্রেতাদের কাছ থেকে টোল আদায় করা হয় না। বিষয়টি জেলা প্রশাসকের নজরে আনা হলে রড-সিমেন্টে থেকে টোল আদায় সাময়িক বন্ধ হলেও অন্য পণ্যসামগ্রী থেকে টোল আদায় অব্যাহত রয়েছে। এসব ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে গত শনিবার সকাল ৯টা থেকে বেলা ২টা পর্যন্ত ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ রেখে প্রতিবাদ জানান ব্যবসায়ীরা। ব্যবসায়ীরা এসব পণ্য-সামগ্রী থেকে টোলবন্ধের দাবি জানিয়েছেন।
এ ব্যাপারে চাঁচকৈড় হাট ইজারাদার কর্তৃপক্ষের সাথে যোগোযোগ করা হলে গতকাল সোমবার বিকেলে ওই প্রতিষ্ঠানের পরিচালক আনিসুর রহমান মোল্লা দাবি করেন, ব্যবসায়ীদের দাবিগুলো যুক্তিযুক্ত নয়। জেলা প্রশাসন থেকে সরবরাহ করা টোল তালিকা মোতাবেক টোল আদায় করা হচ্ছে।
এ বিষয়ে নাটোর জেলা প্রশাসকের দায়িত্বে থাকা স্থানীয় সরকার উপপরিচালক ড. একেএম আজাদুর রহমান গতকাল সোমবার বিকেলে মুঠোফোনে বলেন, প্রায় ৪শ পণ্য-সামগ্রীর টোল তালিকায় স্বাক্ষর করেছেন তিনি। ব্যবসায়ীদের দাবির মধ্যে এসব নাম রয়েছে কী না, তা এই মুহূর্তে বলতে পারছি না, তবে অন্যায়ভাবে টোল আদায় করা হলে হাট ইজারাদারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ