গুরুদাসপুরে জনচলাচল রাস্তা বন্ধ করে দেয়ায় আদালতে মামলা

আপডেট: সেপ্টেম্বর ১৫, ২০১৭, ১২:০৪ পূর্বাহ্ণ

নাটোর অফিস


গুরুদাসপুরে এভাবেই বাঁশের বেড়া দিয়ে বন্ধ করে দিয়েছে জনচলাচলের রাস্তা-সোনার দেশ

নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলার বিয়াঘাট গ্রামের ঘরজামাই আজিমুদ্দিনের বিরুদ্ধে আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে দীর্ঘদিনের জনচলাচলের গুরুত্বপূর্ণ রাস্তা বাঁশের চেগার দিয়ে বন্ধ করে দেয়ার অভিযোগে ভায়োলেশন মামলা হয়েছে।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার বিয়াঘাট গ্রামের হালদারপাড়া নামে পরিচিত বিয়াঘাট মৌজার ৭৮৮ নম্বর খতিয়ানে ৩২৯৩ দাগে পশ্চিমাংশে ৯ লিংক প্রস্থ ও ১০২ লিংক দৈর্ঘ্য জমির ওপর দিয়ে শতাধিক বছর আগে থেকেই জনচলাচলের রাস্তা চালু আছে। কিন্তু আজিমুদ্দিন ওই জমির মালিক সখিনা খাতুনকে বিয়ে করে। বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ কাজের তাগিদে দিবারাত্রি ওই রাস্তা দিয়ে যাতায়াত করে গ্রামের হাজার হাজার লোক।
বৈবাহিক সুত্রে দাবিদ্বার হয়ে আজিমুদ্দিন ওই গুরুত্বপূর্ণ রাস্তাটি বাঁশের বেড়া দিয়ে বন্ধ করে। পরে এলাকাবাসীর পক্ষে ওই গ্রামের বাসিন্দা মৃত আজগর আলীর ছেলে তারা মিয়া ও ইয়াহিয়াসহ চারজন প্রতিপক্ষ সখিনা খাতুন ও তার স্বামী আজিমুদ্দিনসহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে ওই রাস্তা বন্ধের প্রতিবাদে গত বছর ২৮ সেপ্টেম্বর গুরুদাসপুর সহকারী জজ আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন। আদালত শুনানী শেষে ওই বছরের ১০ নভেম্বর ওই জনগুরুত্বপূর্ণ রাস্তা বন্ধ না করার জন্য নিষেধাজ্ঞা জারি করেন।
কিন্তু প্রতিপক্ষের আজিমুদ্দিন ও তার সহযোগিরা বিষয়টি জানতে পেরে আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ওইদিনই রাতেই বাঁশের বেড়া দিয়ে রাস্তাটি সম্পূর্ণ বন্ধ করে দেয়। এতে করে ওই গ্রামের হাজার হাজার মানুষের চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। তবে সেখানকার বাসিন্দা তারা মিয়া গত বছর ১০ নভেম্বর তারিখে আদালতের নিষেধাজ্ঞা ভঙ্গের অভিযোগ এনে প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে আদালতে একটি ভায়োলেশন মামলা দায়ের করেছেন। যার শুনানী রয়েছে আগামী ২৬ সেপ্টেম্বর।
এ ব্যাপারে জিজ্ঞাসা করলে আজিমুদ্দিন বলেন, যার জমি সেই দখল করেছে। এতে কারো কিছু করার নেই।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ