গুরুদাসপুরে শিশু নির্যাতনের ঘটনায় মামলা

আপডেট: ফেব্রুয়ারি ২০, ২০১৭, ১২:২০ পূর্বাহ্ণ

গুরুদাসপুর প্রতিনিধি


নাটোরের গুরুদাসপুরে আপেল চুরির অভিযোগে শিশু নির্যাতনের ঘটনায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। গত শনিবার রাতে শিশু সাইদুলের মা মাজেদা বেগম বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন। মামলায় আপেল ব্যবসায়ী হানিফ শেখ (৪২) ও আউয়াল (৪৫) নামে দুই ব্যক্তিকে আসামি করা হয়েছে। তবে গতকাল রোববার পর্যন্ত কেউ গ্রেফতার হয় নি।
এজাহার সূত্রে জানা গেছে, নির্যাতনের শিকার শিশু সাইদুল (৯) একজন বুদ্ধি প্রতিবন্ধি। গত শনিবার তার হতদরিদ্র বাবা-মা সাইদুলকে বাড়িতে রেখে জীবিকার তাগিদে কাজে চলে যায়। সুযোগ বুঝে সে চাঁচকৈড় বাজারে গিয়ে দোকান থেকে একটি আপেল নেওয়ায় এমন অমানবিক পরিস্থিতির শিকার হয়।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উপপরিদর্শক সুব্রত কুমার মাহাতো বলেন, শিশুটি দুপুরে উদ্ধার করা হলেও রাতে পুলিশ পাঠিয়ে সাইদুলের মা মাজেদা বেগম ও তার মেয়ে আজেদা বেগমকে (৩০) থানায় আনা হয়। তাদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে এজাহারটি গ্রহণ করা হয়েছে। আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।
অভিযুক্ত আউয়াল গতকাল রোববার মুঠোফোনে দাবি করেন বলেন, তিনি চাঁচকৈড়-কাছিকাটা রুটের সিএনজি স্টেশন মাস্টার। নির্যাতনের সময় তিনি পেশাগত দায়িত্ব পালন করলেও অন্যায়ভাবে তাকে মামলায় জড়ানো হয়েছে। প্রকৃতপক্ষে তিনি শিশু সাইদুলকে নির্যাতনের ঘটনার সঙ্গে জড়িত ছিলেন না।
শনিবার রাতে শিশু সাইদুলের মা মাজেদা বেগম থানায় বসে সাংবাদিকদের জানান, সাইদুল বুদ্ধি প্রতিবন্ধী। কারো যাতে ক্ষতিসাধন করতে না পারে সেজন্য তাকে বাড়িতে আটকে রাখা হতো। শনিবার সুযোগ বুঝে বাড়ি থেকে পালিয়ে চাঁচকৈড় বাজারে এসে এমন নির্যাতনের শিকার হয়েছে। তবে মামলা করার আগ্রহ ছিল না পরিবারটির।
এ বিষয়ে গুরুদাসপুর থানার ওসি (তদন্ত) মো. তারেকুর রহমান বলেন, গরিব পরিবারের প্রতি মানবিক বিবেচনা ও ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠার জন্য মামলাটি নেয়া হয়েছে। পুলিশ অসহায় পরিবারটিকে সব ধরনের সহায়তা দিবে।
উপজেলার মশিন্দাচরপাড়া গ্রামের দিনমজুর আবদুল মিয়ার ছেলে চাঁচকৈড় বাজারের মার্কাজ মসজিদের পাশের একটি আপেলের দোকান থেকে আপেল চুরির অভিযোগে শিশু সাইদুলকে বেঁধে নির্যাতন চালায় মামলায় অভিযুক্তরা।