গৃহকর্মী সুরক্ষা: ৬ মাসের মধ্যে মনিটরিং সেল করার নির্দেশ

আপডেট: ফেব্রুয়ারি ৩, ২০১৭, ১২:০৩ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


গৃহকর্মীদের অধিকার প্রতিষ্ঠায় নীতিমালা অনুযায়ী ছয় মাসের মধ্যে সরকারকে একটি মনিটরিং সেল গঠনের নির্দেশ দিয়েছে হাই কোর্ট।
মানবাধিকার সংগঠন হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশের করা একটি রিট আবেদনে তিন বছর আগে দেওয়া রুলের নিষ্পত্তি করে বিচারপতি সালমা মাসুদ চৌধুরী এবং বিচারপতি কাজী মো. ইজহারুল হক আকন্দের বেঞ্চ বৃহস্পতিবার এই রায় দেয়।
পত্রিকায় প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন যুক্ত করে মানবাধিকার সংগঠন হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশের পক্ষে আইনজীবী মনজিল মোরসেদ ২০১৪ সালের জুলাই মাসে এই রিট আবেদন করেন।
ওই আবেদনের প্রাথমিক শুনানি করে বিচারপতি সালমা মাসুদ চৌধুরী ও বিচারপতি মো. হাবিবুল গনির বেঞ্চ একটি রুল জারি করে।
গৃহকর্মীদের অধিকার রক্ষায় আইন প্রণয়নে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে কেন নির্দেশ দেয়া হবে না, তা জানতে চাওয়া হয় ওই রুলে। মন্ত্রিপরিষদ সচিব, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব, আইন সচিব, শ্রম সচিব এবং মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিবকে রুলের জবাব দিতে বলা হয়।
সেই রুলের ওপর চূড়ান্ত শুনানি শেষে বৃহস্পতিবার আইন করার পদক্ষেপ নিতে মনিটরিং সেল গঠনের এই নির্দেশনা এল।
আদেশের পর মনজিল মোরসেদ বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের গৃহকর্মী সুরক্ষা ও কল্যাণ নীতিমালার ৯ নম্বর ধারা অনুযায়ী এই মনিটরিং সেল গঠনের নির্দেশ দিয়েছে আদালত।”
২০১৫ সালের ডিসেম্বরে মন্ত্রিসভার অনুমোদন পাওয়া ‘গৃহকর্মী সুরক্ষা ও কল্যাণ নীতিমালায়’ বলা হয়েছে গৃহকর্ম শ্রম হিসেবে স্বীকৃতি পাবে এবং গৃহকর্মীরা সবেতনে চার মাসের মাতৃত্বকালীন ছুটি ছাড়াও অন্য ছুটি ভোগ করতে পারবেন।
এছাড়া ১৪ বছরের কম বয়সী কাউকে গৃহকর্মী হিসেবে নিয়োগ দেওয়া যাবে না এবং তাদের বিশ্রামের পাশাপাশি বিনোদনের সময় দিতে হবে বলেও নির্দেশনা দেওয়া হয় ওই নীতিমালায়।
সেখানে গৃহকর্মী নির্যাতনের ঘটনায় সরকারকে প্রচলিত আইনে ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে। পাশাপাশি নবম অনুচ্ছেদে এই নীতিমালার বাস্তবায়ন নিশ্চিত করতে কেন্দ্রীয়ভাবে মনিটরিং সেল করে সিটি করপোরেশন, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে মনিটরিং অফিসার নিয়োগ করার কথা বলা হয়েছে।-বিডিনিউজ