গোদাগাড়ীতে কারাম উৎসব সমাপ্ত

আপডেট: সেপ্টেম্বর ১৪, ২০১৭, ১২:১৮ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


উৎসবে সাংসদ ওমর ফারুক চৌধুরীসহ অতিথিরা-সোনার দেশ

রাজশাহীর গোদাগাড়ীর গোগ্রাম ইউনিয়নের গুনিগ্রাম হাই স্কুল মাঠে দিঘরী রাজা পরিষদের আয়োজনে এবং রাজশাহী বিভাগীয় ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর কালচারাল অ্যাকাডেমির সহযোগিতায় গত সোমবার থেকে তিন দিনব্যাপি আদিবাসী উরাও সম্প্রদায়ের ঐতিহ্যবাহী কারাম উৎসব গতকাল বুধবার শেষ হয়েছে।
গতকাল উরাও সম্প্রদায়ের বিভিন্ন সাংস্কৃৃতিক প্রতিযোগিতা, আলোচনাসভা, পুরস্কার বিতরণ ও কারাম ডাল বিসর্জনের মধ্যে উৎসব শেষ হয়। আলোচনা সভায় দিঘরী রাজা পরিষদের প্রধান উপদেষ্টা চিত্তরঞ্জন সরদারের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, তানোর-গোদাগাড়ী আসনের সাংসদ ওমর ফারুক চৌধুরী।
অন্যদের মধ্যে গোদাগাড়ী উপজেল্ াআওয়ামী লীগের সভাপতি বদিউজ্জামান বদি, সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রশিদ, গোগ্রাম ইউপি চেয়ারম্যান মজিবর রহমান, দিঘরী রাজা পরিষদের উপদেষ্টা উত্তম কুমার খালকো, কল্যাণী মিঞ্জি, মহিলা সম্পাদক কল্পনা তির্কী, এইসিডি‘র পরিচালক নবদ্বীপ লাকড়া, পাঁচেন্দ্রনাথ খালকো, রবীন্দ্রনাথ খাঁ খাঁ, মন্টু মিঞ্জ, কালচারল অ্যাকাডেমির নির্ভাহী সদস্য যোগেন্দ্রনাথ সরেন, কালচারাল একাডেমির গবেষণা কর্মকর্তা বেঞ্জামিন টুডু, প্রশিক্ষক মানুয়েল সরেন, গোগ্রাম ইউপি সদস্য সুধির টপ্প্য, মহাদেব কুমার পান্না, পুজারী জয়ন্তী বারোয়ার, উরাও সম্প্রদায়ের মোড়ল প্রসেন এক্কা ও দিঘরী রাজা পরিষদের সহ সাধারণ সম্পাদক বিপিন চন্দ্র এক্কাসহ এলাকার নারী পুরুষ।
আলোচনায় সভাপতি বলেন কারাম উৎসব উরাওদের ঐতিহ্যবাহী বড় উৎসব। তিনি বলেন বহুদিন পূর্বে রহিতাসগড় হতে আর্যদের দ্বারা যুদ্ধে পরাজিত হয়ে উরাওগণ প্রাণ রক্ষার্থে পালাতে থাকে। এক পর্যায়ে তারা কারাম গাছের নিচে আশ্রয় নেয়। আর্যরা ফিরে গেলে তারা বিপদ মুক্ত হয় এবং তারা বিম্বাস করে এই কারাম গাছ তাদের রক্ষা করেছে। এই বিশ্বাস থেকে তারা অদ্যবধি কারাম গাছের পুজা করে আসছে বলে তিনি জানান।সেইসাথে তিনি আদিবাসীদের সংস্কৃতি রক্ষা, ভূমি সংরক্ষণ ও ভাষা রক্ষায় প্রদান অতিথির নিকট দাবী জানান। প্রধান অতিথি বক্তব্য শেষে বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ