গোদাগাড়ীতে বাণিজ্যিকভাবে বরই চাষে সফল মিঠুন

আপডেট: ফেব্রুয়ারি ২, ২০২২, ১২:২৬ পূর্বাহ্ণ

এ. কে তোতা, গোদাগাড়ী:


রাজশাহীর গোদাগাড়ীতে বাণিজ্যিকভাবে বরই (কুল) চাষে ভাগ্য পরিবর্তন ঘটেছে এক যুবকের। উপজেলার গোদাগাড়ী ইউনিয়নের ঝিকড়া কুন্দলিয়া গ্রামের এহসান আলীর ছেলে রহমত আলী মিঠুন ৫৫ বিঘা জমিতে বল সুন্দরী জাতের বরই চাষ করে আর্থিকভাবে লাভবান হয়েছে।

বরই চাষি যুবক মিঠুন বলেন, জমি বর্গা নিয়ে ধান চাষ করে তেমন লাভবান হতে পারেনি। কিন্তু বরই চাষে এক বছরে ৯ লাখ টাকা আয় করেছে। বরুই চাষে ১০ লাখ টাকা খরচ হলেও ১৯ লাখ টাকার বরুই বিক্রি করে।

কৃষক মিঠুন আরো বলেন, ঝিকড়া ব্লকে উপ সহকারী কৃষি কর্মকর্তা নুরুল ইসলামের কারিগরি সহযোগিতা ও পরামর্শে ৫৫ বিঘা জমিতে বরই চারা রোপন করে ২০২১ সালে মার্চে মাসে। চলতি মৌসুমে ১৯ লাখ টাকার বরই বিক্রি করেছে। আগামী বছর বরই এর বাগানে তেমন খরচ হবে না। তবে এবারের চেয়ে আগামী বছর বরুয়ের ফলন আরো বেশি হবে।

উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা নুরুল ইসলাম বলেন, বরই চাষে সেচ কম প্রয়োজন হয়। সময়মত সার ও কীটনাশক ব্যবহার করা গেলে বরই ফলন ভালো পাওয়া যাবে। এ ক্ষেত্রে কৃষক মিঠুন সঠিকভাবে বরই বাগানের পরিচর্চা করায় সাফল্য পেয়েছে। বরুই চাষের পাশাপাশি বল সুন্দরী জাতের বরই চারা তৈরি করে অন্য কৃষকদের কাছে কম মূল্য সরবারহ করছে এই কৃষক।

মিঠুনের বরই বাগানে ২০ জন কৃষি শ্রমিকের কর্মসংস্থান হয়েছে। উপজেলা কৃঘি কর্মকর্তা শারমিন সুলতানা বলেন, আগ্রহী বরই চাষিদের প্রশিক্ষণের সঙ্গে ভালো জাতের বরই চারা ব্যবস্থা করছে গোদাগাড়ী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর। রাজশাহী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর উপ পরিচালক মোজদার হোসেন বলেন, বরেন্দ্র লাল মাটিতে বরই চাষের জন্য উপযোগী। এছাড়াও চর অঞ্চলে বানিজ্যকভাবে বরই চাষ বূদ্ধি পাচ্ছে।