গোদাগাড়ীতে সোর্স পরিচয়ে চাঁদাবাজির অভিযোগ গ্রাম পুলিশের বিরুদ্ধে

আপডেট: ডিসেম্বর ৩, ২০২৩, ৭:৩৯ অপরাহ্ণ

গোদাগাড়ী প্রতিনিধি:


গোদাগাড়ীতে পুলিশের সোর্স পরিচয়ে চাঁদাবাজির অভিযোগ এক গ্রাম পুলিশের বিরুদ্ধে। স্থানীয় লোকজন দাবি করেন মাদককে কেন্দ্র করে রফিক হত্যার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে উপজেলা চর আষাড়িয়াদহ ইউনিয়ন পরিষদের গ্রাম পুলিশ রুহুল আমিনকে সাময়িক বরাখাস্ত করে জেলা প্রশাসক। কিন্তু ছয় মাস আগে চাকরিতে বহাল হয়েই বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে পড়েছে এই গ্রাম পুলিশ।

স্থানীয় লোকজন আরো অভিযোগ করেন, গ্রাম পুলিশ রুহুল আমিন নিজকে পুলিশসহ বিভিন্ন বাহিনীর সোর্স পরিচয়ে লোকজনকে মাদক ও সন্ত্রাস নাশকতা মামলায় ফাঁসিয়ে দেয়ার ভয় দেখিয়ে মোটা অংকের টাকা আদায় করে। অথচ রুহুল আমিন গ্রাম পুলিশ চাকরির আড়ালে মাদক ব্যবসা করে আসছে। তার মাদক নিয়ে পুলিশের কাছে ধরা খায় তার ভাগ্নে তাহাসেন ও জামাই উজ্জল।

এদিকে মাদক ও চাঁদাবাজি, বাড়ি-গাড়িসহ বিপুল পরিমাণ সম্পদের মালিক হয়েছেন। এ প্রসঙ্গে চর আষাড়িয়াদহ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আসরাফুল ইসলাম ভোলা বলেন, মাদককে কেন্দ্র করে রফিক নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়। এই হত্যা মামলার আসামী হিসাবে রুহুল আমিনকে পুলিশ ধরতে আসলে সে দীর্ঘদিন ধরে আত্মগোপনে চলে যায়। আর এই কারণে রুহুল আমিনকে গ্রাম পুলিশের চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হয়। ছয়মাস আগে তাকে পুনরায় চাকরিতে বহাল করা হয়। তবে তার বেতন ভাতা নিয়ে এখনো জটিলতা রয়েছে। তার বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও থানার ওসিকে অবহিত করা হয়েছে।

গোদাগাড়ী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আব্দুল মতিন বলেন, গ্রাম পুলিশ রুহুল আমিন পুলিশের সোর্স নন। তার বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ