গ্যাস সিলিন্ডার নিয়ে বেলুন বিক্রি বিপজ্জনক, নিষিদ্ধ নয় কেন?

আপডেট: মে ১৫, ২০২২, ১২:৩০ পূর্বাহ্ণ

বেলুন ফোলানোর গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে আশেপাশের বাড়িসহ কয়েকটি ভবন ও যানবাহনের ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। দৈনিক সোনার দেশ পত্রিকার এক প্রতিবেতনে উল্লেখ করা হয়, শুক্রবার (১৩ মে) সকাল ৮টায় নগরীর তেরখাদিয়া এলাকায় শুক্রবার সকাল ৮টার দিকে বিকট শব্দে হঠাৎ সিলিন্ডারটির বিস্ফোরণ ঘটে। এতে রিকশাচালক আহত হয়েছেন। সিলিন্ডারটি গাছগাছালির ভেতরে দিয়ে উড়ে প্রায় ১৫০ মিটার দূরের একটি বাড়ির ওপরে গিয়ে পড়েছে। পাশের চারতলা ভবনের ওপর দিয়ে একটি টিনশেড বাড়ির রান্নাঘর ও একটি শোয়ার ঘর লন্ডভন্ড করে দিয়েছে। সিলিন্ডারটির তলা খসে কোথায় গেছে, তা খুঁজে পাওয়া যায়নি। সিলিন্ডারটি এত ভারি যে তা একজন ধরে উঁচু করা যাচ্ছিল না। তবে স্বস্তির কথা যে, রিক্সাচালক ছাড়া কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।
গ্যাস সিলিন্ডার ব্যবহার করে বেলুন বিক্রি অত্যন্ত বিপজ্জনক হলেও বিষয়টি বরাবরই গুরুত্বহীনই থেকে গেছে। অথচ এই গ্যাস সিলিন্ডারকে জীবন্ত বোমা হিসেবে গন্য করা হয়। সাত বছর ধরে গ্যাস সিলিন্ডার নিস্ফোরণের হতাহতের ঘটনা অনেক। হতাহতদের মধ্যে শিশুদের সংখ্যাই বেশি।
সংবাদ মাধ্যমের তথ্য অনুযায়ী গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে ২০১৬ সালে বনানীতে ১ জন, ২০১৭ সালে যাত্রাবাড়ী ৪ জন এবং ২০১৯ এ মিরপুরে ১ জন নিহত হয় । ২০১৮ তে গ্যাস বেলুন নিয়ে যাওয়ার সময় গাড়িতে বিস্ফোরণ হওয়ায় ১০ জন স্কুলের ছাত্র আহত হয়।
৩০ অক্টোবর ২০১৯ ঢাকার রূপনগরে বেলুনের গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফারণে সাত শিশু নিহত হয়। আরো অনেক শিশু আহত হয়। এটিই ছিল সবচেয়ে ভয়াবহ বিস্ফোরণের ঘটনা।
বগুড়ার ধুনট উপজেলায় ১২ ফেব্রুয়ারি ২০২০ বেলুনে গ্যাস ভরার সময় সিলিন্ডার বিস্ফোরণে মা, ছেলে ও বিক্রয় কর্মীসহ পাঁচজন আহত হয়। বিস্ফোরিত সিলিন্ডারের আঘাতে ৭টি ছাগল মারা গেছে। এ সময় ৫টি ঘরসহ আসবাবপত্র ল-ভ- হয়েছে।
১৪ জানুয়ারি ২০২২ কুমিল্লার নাঙ্গলকোট থানা এলাকায় মেলায় গ্যাস বেলুন সিলিন্ডার বিস্ফোরণে শিশুসহ ৩০ জন আহত হয়। ৩০ মার্চ ২০২২ গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে এক কিশোরের দুই পা উড়ে যাওয়ার ঘটনা ঘটে। এরপরেও কর্তৃপক্ষের কোনো মাথাব্যথা নেই।
বিশেষজ্ঞরা বলেন, বেলুন ফোলাতে হিলিয়াম গ্যাসের পরিবর্তে সস্তায় পাওয়া দাহ্য হাইড্রোজেন গ্যাস ব্যবহার করেন বিক্রেতারা। সেই সাথে ব্যবহৃত সিলিন্ডারও নিম্নমানের। যা শুধু ঝুঁকিপূর্ণ নয়, বিপদজ্জনকও বটে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই সিলিন্ডারগুলো এক-একটি জীবন্ত বোমা। এসব দেখার দায়িত্ব যাদের, বিস্ফোরক পরিদপ্তর বলছে লোকবল সংকট আছে, এই সমস্যা সমাধানে পুলিশকেও এগিয়ে আসতে হবে।
বেলুন, মানে গ্যাস বেলুন। শিশুদের এই বেলুন খুবই আকর্ষণ করে। প্রায়ই দেখা মেলে গ্যাস সিলিন্ডারসহ বেলুন বিক্রেতাদের। মেলা-উৎসবে, শিশুদের স্কুল, পার্কের সামনে অহরহই দেখা যায় এই বেলুন বিক্রেতাদের। শিশুদের আবদারে অনেক সময় অভিভাবকরাও কিনে দিতে বাধ্য হন । এখন আবার নতুন ধরনের বেলুন পাওয়া যায়, অ্যালুমিনিয়াম বেলুন। এটাতেও গ্যাস ভরে বিক্রি করা হয়।
কিন্তু বিশেষজ্ঞরা সতর্ক করছেন কেমিক্যালের প্রক্রিয়াতে একটু এদিক সেদিক হলেই বিস্ফোরণ অনিবার্য।
বিস্ফোরক পরিদপ্তরের দাবি মতে দেশের সবখানে তাদের লোকবল নেই। লোকাল প্রশাসনকে এ ব্যাপারে অবহিত করা হয়েছে ব্যবহৃত গ্যাস সিলিন্ডার বিপজ্জনক। যেকোনো সময়ই বড় দুর্ঘটনা ঘটতে পারে, এগুলো দেখলেই তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে।
আমরাও মনে করি বিষয়টির প্রতি গুরুত্বারোপ করার অতি জরুরি হয়ে পড়েছে। গ্যাস সিলিন্ডার নিয়ে প্রকাশ্যে বেলুন বিক্রির ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করার সময় এসেছে। এ ব্যাপারে স্থানীয় প্রশাসন ও আইন শৃঙ্খলা বাহিনির সদস্যদের সক্রিয় ভূমিকাও প্রয়োজন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ