গ্রীন প্লাজার বিরুদ্ধে জমি নিয়ে প্রতারণার অভিযোগ

আপডেট: মার্চ ১৬, ২০২৪, ১১:২৬ অপরাহ্ণ


নিজস্ব প্রতিবেদক:গ্রীন প্লাজা রিয়েল অ্যাস্টেটের বিরুদ্ধে জমি নিয়ে প্রতারণার অভিযোগ তুলেছেন ভুক্তভোগী এক মালিক। তিনি অভিযোগ করেন, পৈত্রিক সূত্রে পাওয়া সম্পত্তিতে জোর করে ভবন নির্মাণ করতে চাচ্ছেন গ্রীন প্লাজা। গ্রীন প্লাজার স্বত্বাধিকারী মোস্তাফিজ নানা ধরনের কুট-কৌশল চালাচ্ছেন বলেও তিনি অভিযোগ করেন।

শনিবার (১৬ মার্চ) দুপুরে রাজশাহী সাংবাদিক ইউনিয়নে সংবাদ সম্মেলন করেন আবু হানিফ নামের এই ব্যক্তি। গ্রীন প্লাজা রিয়েল অ্যাস্টেটের দাবি করা ওই জমির মালিক আমি। যা পৈত্রিক সূত্রে পেয়েছি। মোস্তাফিজুর রহমান গ্রীন প্লাজা রিয়েস্টেটের স্বত্বাধিকারী। তিনি অসৎ উদ্দেশ্যে আমার এবং আমার পরিবারের সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে তোলে। সম্পর্কের সুযোগে সে আমার ও আমার পরিবারের সরলতার সুযোগ নিয়ে আমাকে আমার পরিবারকে সমাজে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য বিভিন্ন ধরনের কুটকৌশল গ্রহণ করে।

তিনি বলেন, আমি গ্রীন প্লাজা স্বত্বাধীকারী মোস্তাফিজের সাথে নন-জিডিশিয়াল স্ট্যাম্পে প্রাথমিক ভাবে আমাদের মধ্যে একটি চুক্তি নামা সম্পাদিত হয়। সরকারী রেজিস্ট্রি হওয়ার পূর্বে সে আমার তৃতীয় তলা বিশিষ্ট বাড়ি ভেঙে ফেলে আমাকে ও আমার পরিবারের ক্ষতি করে ও সকল মালামাল নিয়ে যায়। পরে বিভিন্ন ম্যাধমে জানিতে পারি, বিভিন্ন ব্যক্তির সঙ্গে জমি নিয়ে আজ অবদি কোন ভবন নির্মাণ করে পারেনি। তিনি যাদের সাথে চুক্তি করেছেন তারা অসহায় জীবনযাপন করছে।

তিনি বলেন, চেম্বার অব কর্মাসে মোস্তাফিজের নামে প্রতারণার একাধিক অভিযোগ জমা হয়েছে। রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়রের কাছে অনেক প্রতারণার অভিযোগ রয়েছে গ্রীণ প্লাজা রিয়েল অ্যাস্টেটের স্বত্ত্বাধীকারীর বিরুদ্ধে। আমি এসব জানার পর ভীত হয়ে পড়ি। আমি অন্য কোম্পানীর সঙ্গে পাবলিক পার্টনারশিপ অ্যাক্টের ম্যাধ্যমে বিভিন্ন কোম্পানির সঙ্গে যোগাযোগ করে অবশেষে এসকে অ্যান্ড ট্রাইঙ্গেল কোম্পানির সঙ্গে আমার জমিটি দেয়ার জন্য মনস্থির করি। পরবর্তীতে মনস্থির করার কারণে মোস্তাফিজ আমাকে সামাজিক ও আইনগতভাবে হেনস্থা করার জন্য অপচেষ্টা চালায়। ক্ষতি করার অপচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। আমি কিছু দিন যাবত দেখছি মোস্তাফিজ কিছু হলুদ সাংবাদিকের ম্যাধমে মিথ্যা সংবাদ পরিবেশন করছে।

তিনি বলেন, সংবাদে প্রকাশ করা হয়েছে যে জমি জালিয়াতি করা হয়েছে। কিন্তু আমার বোধগম্য হচ্ছে না যে আমার জমি আমি কিভাবে জালিয়াতি করেছি। মোস্তাফিজের সাথে আমার আইনগত ভাবে রেজিস্টারকৃত কোন চুক্তি সম্পাদিত হয় নি। আমি প্রশাসনের নিকট আকুল আবেদন জানাচ্ছি এই প্রতারক মোস্তাফিজের হাত থেকে আমাকে ও আমার পারিবারকে উদ্ধার করার জন্য।
গ্রীন প্লাজা রিয়েল অ্যাস্ট্রেটের সত্বাধিকারী মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, আবু হানিফের কাছ থেকে জমি নেওয়ার আগে টাকা দেওয়া হয়েছে। তিনি নিজেই আমার কাছ থেকে বিভিন্ন সময় টাকা নিয়েছেন। তাকে এ পর্যন্ত ২ কোটি ৩২ লাখ টাকা দেওয়া হয়েছে। তিনি এখন অস্বীকার করে আকে কোম্পানীকে জমি দিয়েছেন। আমি এ নিয়ে আদালতে মামলাও করেছি।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ