চরঘাটে ঈদকে সামনে রেখে টেইলারিং হাউসগুলো জমজমাট হয়ে উঠেছে

আপডেট: জুন ১৭, ২০১৭, ১২:৫১ পূর্বাহ্ণ

চারঘাট প্রতিনিধি


ঈদকে সামনে রেখে জমজমাট হয়ে উঠেছে চারঘাটের টেইলারিং হাউসগুলো-সোনার দেশ

রাজশাহীর চারঘাটে ঈদকে সামনে রেখে টেইলারিং হাউসগুলো জমজমাট হয়ে উঠেছে। ঈদকে সামনে রেখে এ পেষার সাথে জড়িতদের কাটছে নির্ঘুম রাত। এবারেও রোজার শুরু থেকে চারঘাটে দর্জির দোকানগুলোতে পোশাক সেলাইয়ের অর্ডারের চাপ বেড়েছে।
উপজেলার চারঘাট বাজার, সারদা নিউ মার্কেট, নন্দনগাছী কাপড় বাজার, কাকড়ামারী বাজার মিলে প্রায় এক হাজার দর্জিও দোকান রয়েছে। এসব দোকানে মহিলারা নন স্টিচ থ্রিপিস আর পুরুষরা প্যান্ট, শার্টের পিস ও কাপড়ের প্যাকেট নিয়ে ছুটছেন। টেইলার মাস্টারদের মতে, এবারে কাজের অর্ডার সবচেয়ে বেশি পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। কারণ ছেলেরা বডিফিটিং শার্ট ও ন্যারো প্লেইন প্যান্ট সেলাইয়ের প্রতি ঝুঁকে পড়েছে। আর মেয়েরা ঝুঁকছে হাল ফ্যাশনের লংকামিজ সেলাইয়ের প্রতি। সেমিলং কামিজের সঙ্গে ডিভাইন টাইপের সালোয়ার সেলাইয়ের চাহিদাও রয়েছে।
চারঘাট এলাকার বিভিন্ন দর্জি দোকান ঘুরে দেখা গেছে, কাটিং মাস্টার, সহকারী কাটিং মাস্টার ও কারিগরদের দম ফেলার ফুরসত নেই। বিভিন্ন ফ্যাশনের সালোয়ার-কামিজ ও শার্ট, প্যান্ট আবার কোনো কোনো দর্জি পায়জামা-পাঞ্জাবি সেলাইয়ে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছে কারিগররা। এ বছর প্রতিটি সেলাইয়ের মজুরি বাড়ানো হয়েছে।
চারঘাট ভিআইপি টের্লাস মালিক আবদুল হাই ও সুজন জানান,আগে বছরের চেয়ে এ বছর কাজের চাপ বেশি। তাই টেইলারিং মাস্টার ও কারিগরদের ব্যস্ততাও বেড়েছে। সকাল থেকে রাত পর্যন্ত কারিগরদের পোশাক সেলাইয়ের বিরামহীন কাজ। এবারে বেশির ভাগ সেলাই পোশাকে অর্ডার অনুযায়ী বৈচিত্র্য আনতে সময় লাগছে বেশি। অপরদিকে বেশিরভাগই ক্যাটালগ অনুযায়ী অথবা নমুনা সাথে এনেই সালোয়ার কামিজের অর্ডার দিচ্ছে মেয়েরা।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ