চাঁপাইনবাবগঞ্জের মহারাজপুর মেলায় অবৈধ জুয়া বন্ধ করে দিয়েছে প্রশাসন

আপডেট: জুলাই ১১, ২০১৭, ১২:৪২ পূর্বাহ্ণ

চাঁপাইনবাবগঞ্জ অফিস


চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার শতবর্ষের ঐতিহ্যবাহী মহারাজপুর ঈদ মেলায় পরিচালিত অবৈধ জুয়া খেলা বন্ধ করে দিয়েছে প্রশাসন। গতকাল সোমবার বিকেলে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে সদর মডেল থানা ও গোয়েন্দা পুলিশ যৌথ অভিযান চালিয়ে জুয়া বন্ধ করে দেয়। এসময় অশ্লীল নৃত্য ও জুয়া খেলা বন্ধ রাখতে মেলা কমিটিকে সতর্ক করে দেয়া হয়।
প্রতিবছর ঈদুল ফিতরের দিন থেকে শুরু হয় ঐতিহ্যবাহী এ মেলা। মহারাজপুর ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যোগে একটি কমিটি এই মেলা পরিচালনা করে। কিন্তু গত কয়েক বছর ধরে এই মেলায় ভ্যারাইটি শোর নামে অশ্লীল নৃত্য ও ব্যাপক জুয়া খেলার অভিযোগ উঠে। এর আগে ২০১৫ সালে জাতীয় শোক দিবসের মাসে অশ্লীল নৃত্য ও জুয়া পরিচালনার অভিযোগে মেলার কার্যক্রম বন্ধ করে দিয়েছিলো স্থানীয় প্রশাসন। সর্বশেষ গত বছর মেলায় অশ্লীলতা ও জুয়া খেলা অতীতের সব রেকর্ড ভেঙে দেয়। চলতি বছর মহারাজপুর ইউনিয়নের ইউপি সদস্য মাইনুল ইসলাম জেলা প্রশাসকের কাছে মেলার জন্য আবেদন করেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে সব ধরনের অশ্লীলতা ও জুয়া নিষিদ্ধ করে ২১ দিনের জন্য মেলা পরিচালনার অনুমতি দেয় প্রশাসন। কিন্তু ভ্যারাইটি শো, পুতুল নাচ ও জুয়া খেলা বন্ধে জেলা প্রশাসনের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে গত ৪ জুলাই হাইকোর্টে রিট করে মেলার আয়োজকরা। রিটের শুনানি শেষে হাইকোর্টের বিচারপতি সালমা মাসুদ চৌধুরী ও বিচারপতি জোহরুল হকের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ গ্রামীণ মেলা ও মেলায় ইনডোর গেমস পরিচালনায় বাঁধা না দিতে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনকে নির্দেশ দেন বলে জানিয়েছেন রিটকারীদের আইনজীবী হুমায়ন কবীর।
এদিকে হাইকোটের দেয়া ইনডোর গেমসের অনুমতির অপব্যাখা দিয়ে গত চারদিন ধরে ব্যাপক জুয়া খেলার আয়োজন করা হয় মেলায়। চরকা, ডাইস, নিপুন খেলা, ১-১০, ১-৮, হাউজি, র‌্যাফেল ড্রর নামে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে কয়েক কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে মেলার আয়োজকরা। অবশেষে গতকাল বিকেলে সদর উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রাজিবুল হকের নেতৃত্বে সদর মডেল থানা ও গোয়েন্দা পুলিশ যৌথ অভিযান চালায় মহারাজপুর মেলায়। তবে অভিযানের খবর পেয়ে আগেই পালিয়ে যান জুয়া পরিচালনাকারীরা। এসময় জুয়া ও অশ্লীল নৃত্য বন্ধ রাখতে মেলা কমিটিকে কঠোর নির্দেশনা দেন সংশ্লিষ্ট ম্যাজিস্ট্রেট। তবে জুয়া বন্ধ হলেও র‌্যাফেল ড্র ও হাউজিু চালু রয়েছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা। অভিযানে নেতৃত্ব দেয়া নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট রাজিবুল হক জানান, মেলায় জুয়া খেলা হচ্ছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে সেখানে অভিযান চালানো হয়। এসব অপকর্ম বন্ধ করতে মেলা কমিটিকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে বলে জানান তিনি।