চাঁপাইনবাবগঞ্জে আরো ১ সপ্তাহের লকডাউন

আপডেট: মে ৩১, ২০২১, ১০:২৯ অপরাহ্ণ

শিবগঞ্জ প্রতিনিধি:


চাঁপাইনবাবগঞ্জে করোনা সংক্রমণ দিন দিন বেড়েই চলেছে। বেড়েছে মৃত্যুর সংখ্যা। সোমবার পর্যন্ত চাঁপাইনবাবগঞ্জে মৃত্যু সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৪৬ জন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন, চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা সিভিল সার্জন জাহিদ নজরুল ইসলাম চৌধুরী।
তিনি আরো বলেন, সোমবার আরও ৬৩ জনের নমুনা পরিক্ষা করে ৪৫ জনের পজেটিভ হয়েছে। যা চাঁপাইনবাবগঞ্জে ৭১ দশমিক ৪৩ শতাংশ । নমুনাগুলো গত ২৭ মে সংগ্রহ করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসাপতালের ভাইরোলজি বিভাগের পিসিআর ল্যাবে পাঠানো হয়েছিল। এদিকে সোমবার রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার আরো ৫ জন করোনা রোগি মারা গেছে বলে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উপ-পরিচালক ফেরদৌস জানান।
অন্যদিকে, জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট আক্রান্তদের বাড়িতে প্রশাসনের মাধ্যমে টাঙানো হয়েছে লাল পতাকা। সরজমিনে দেখা গেছে, চাঁপাইনবাবাগঞ্জ শহরের নিম তলায় এক ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট আক্রান্ত রোগির বাড়িতে লাল পতাকা টাঙানো আছে। সেখানে চলছে কঠোর লকডাউন। একই সূত্রে আরো জানা গেছে, যে বাকিগুলোর বাড়িতে একই ভাবে লাল পতাকা টাঙিয়ে কঠোর লকডাউনের অর্ন্তভুক্ত করা হয়েছে। সেখানে সর্বক্ষনিক নজর দারি রাখা হয়েছে। শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাকিব আলরাব্বী জানান, জেলা প্রশাসনের নির্দেশে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট আক্্রান্ত শিবগঞ্জের দুইজনের বাড়ি খুঁজে বের করে তাদের বাড়িতে লাল পতাকা টাঙানো হয়েছে। রাখা হয়েছে কঠোর নজরদারী। যাতে তারা আশেপাশের কোন প্রতিবেশী বা আত্মীয়ের সাথে মিশতে না পারে। জেলা প্রশাসক মুঞ্জুরুল হাফিস জানান, ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট পরীক্ষার জন্য ৪২ জনের নমুনা ঢাকায় পাঠানো হয়েছিল। স্বাস্থ্য অধিদফতরের দেয়া ফলাফল ও তালিকা দেখে এ ৭ জনের বাড়িতে লাল পতাকা টাঙানো হয়েছে। বাকি ৩৫ জনের বাড়িতে গিয়ে তাদের খোঁজ খবর নেয়া হচ্ছে। তাদের মধ্যে ৭ জনের ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত করা হয়েছে। জেলা সিভিল সার্জন জাহিদ নজরুল ইসলাম চৌধুরী জানান এ ৭ জনের আবাও নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা করা হবে। যেহেতু ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট অধিক শক্তিশালী। তাই এব্যাপারে অধিক সচেতন হতে হবে।
এদিকে গত সোমবার রাত ১২টা হতে শুরু হওয়া লকডাউনের সোমবার শেষ দিনে আবরো জেলা প্রশাসন আগামী ৭দিনের লকডাউনের ঘোষণা করেছেন। এ দফায় আগামী ৭ জুন পর্যন্ত লকডাউন চলবে। সোমবার দুপুরে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ তথ্য জানানো হয়েছে। আগামী ৭ দিনের লকডাউনের আন্তজেলা পরিবহন বন্ধ থাকবে। অর্থাৎ জেলার বাহির থেকে কোন পরিবহন ঢুকতে পারবে না। জেলার বাইরে কোন পরিবহন যেতে পারবে না। তবে লকডাউনে কাঁচা বাজার ও নিত্যপ্রয়োজনীয় মুদি দোকান ও ফার্মেসি খোলা থাকবে। আমের আড়ৎ বা বাজার পৃথক পৃথক স্থানে ছড়িয়ে আড়ৎদারের মাধ্যমে আম ক্রয় বিক্রয় করতে পারবে। তাছাড়া আম বাগান থেকে ট্রাকে করে নিয়ে যেতে পারবে। উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে আম প্রেরণ করতে পারবে। জরুরি প্রয়োজনে মাস্ক ব্যবহারের মাধ্যমে স্বাস্থ্যবিধি মেনে শিল্প কারখানা, শ্রমিক প্রতিষ্ঠান, কৃষি উপকরণ, খাদ্য পরিবহন, স্বাস্থ্য প্রদান, বিদ্যুৎ, ফায়ার সার্ভিস, স্থলবন্দর ও গণমাধ্যমসহ কিছু কিছু ক্ষেত্রে শিথিলযোগ্য বলে জানানো হয়েছে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ