চাঁপাইনবাবগঞ্জে গাছে গাছে ছেয়ে গেছে মুকুল

আপডেট: মার্চ ২, ২০২১, ১০:২১ অপরাহ্ণ

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি:


আমের রাজ্য চাঁপাইনবাবগঞ্জে বসন্তের বার্তায় প্রতিটি আমগাছে মুকুলে মুকুলে ছেয়ে গেছে। সবুজ পাতার ফাঁকে ফাঁকে ফুটে উঠেছে আম চাষিদের সোনালী স্বপ্ন। বাতাসে সুগন্ধ মিশে সৃষ্টি করছে মৌ মৌ গন্ধ। মধুমাসের আগমনী বার্তা শোনাচ্ছে এসব আমের মুকুল। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে, এবারও আমের ভালো ফলন হবে বলে ধারণা করছেন আম চাষী ও বাগান মালিকরা। তবে, স্বাভাবিক তাপমাত্রা থাকায় মুকুল ফোটায়, ফলনে তেমন প্রভাব পড়বে না বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্ট বিভাগ।
জেলা কৃষি সম্প্রসারণ দপ্তর সুত্রে জানা গেছে, এ বছর জেলায় আমবাগানের পরিমান ৩৪ হাজার ৮’শ ৪০ হেক্টর এবং গাছের সংখ্যা প্রায় ২৬ লাখ ৭৮ হাজার ১’শ ৫০। গত বছর আমবাগানের পরিমাণ ছিল ৩৩ হাজার ৩৫ হেক্টর। যেদিকেই চোখ যায় সারি সারি আমগাছে শুধু মুকুল আর মুকুল। চলতি মৌসুমে এখন পর্যন্ত ৯০ ভাগ গাছে মুকুল এসেছে। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যেই বাকি গাছগুলোতে মুকুল চলে আসবে এবং কিছুদিন পরই এসব গাছে গাছে ঝুলতে দেখা যাবে নানা জাতের সুমিষ্ট আম। ভাল ফলন পেতে এখন থেকেই বাগান পরিচর্র্যায় পুরোদমে ব্যস্ত সবাই। আর আবহাওয়া অনুকুলে থাকলে এবারও ভালো ফলনের আশা করছেন বাগানমালিক, আমচাষী ও ব্যবসায়ীরা। সরেজমিনে জেলার বিভিন্ন বাগান ঘুরে দেখা গেছে, এবছর জেলার কম বেশী বড়, মাঝারি ও ছোট অধিকাংশ গাছেই মুকুল এসেছে। বাগান মালিক সাদিকুল ইসলাম জানান, তার ২০ বিঘার আমবাগানে ৮৫ ভাগ গাছে মুকুল এসেছে। এখন পর্যন্ত গাছের পরিচর্যাও করা হয়েছে। আবহাওয়া অনুকুলে থাকলে ভাল ফলনের আশা করছেন। এদিকে, জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মুহাম্মদ নজরুল ইসলাম জানান, জেলার প্রধান অর্থকরী ও লাভজনক ফসল হওয়ায় দিন দিন আমবাগানের সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। তবে, এখন পর্যন্ত রোগবালাই দেখা দেয়নি, সেক্ষেত্রে উৎপাদন ব্যহত হওয়ার আশংকা কম। তিনি আরো বলেন, বৃষ্টি না হওয়ার পাশাপাশি স্বাভাবিক তাপমাত্রা থাকায় মুকুলের জন্য খুব ভাল হয়েছে। আবহাওয়া অনুকুলে থাকলে এবারে লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে প্রায় ২ লক্ষ ৫০ হাজার মেট্রিক টন। এছাড়া এবার পোকার আক্রমন তেমন না থাকায় বাড়তি চাপে পরতে হচ্ছে না আমচাষীদের।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ