চাঁপাইনবাবগঞ্জে পেয়ারা চাষে ব্যবহৃত হচ্ছে পলিথিন ব্যাগ || পরিবেশে বিরুপ প্রভাব

আপডেট: জানুয়ারি ১৯, ২০১৭, ১২:০৫ পূর্বাহ্ণ

ইমতিয়ার ফেরদৌস সুইট, চাঁপাইনবাবগঞ্জ



চাঁপাইনবাবগঞ্জে পেয়ারা চাষে ব্যাপকহারে ব্যবহৃত হচ্ছে পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর নিষিদ্ধ পলিথিন ব্যাগ। এখন জেলাজুড়ে প্রকাশ্যে পলিথিন ব্যাগের ব্যবহার চলছে। এ পলিথিনের ব্যবহারে নদী, ড্রেন, নালা, খাল, ডোবা ভরাট হয়ে যাওয়ায় সেচ কার্যক্রম ব্যাহত হওয়ার পাশাপাশি উর্বরতা হারাচ্ছে ফসলি জমি।
অথচ পলিথিনের পরিবর্তে পানিতে ভিজেনা এমন কাগজের ব্যাগ ব্যবহার করা হলে পরিবেশ রক্ষার পাশাপাশি বিদেশে পেয়ারা রফতানির সুযোগ সৃষ্টি হবে বলে জানিয়েছেন ফল গবেষকরা।
জানা গেছে, পরিবেশের রক্ষায় ২০০২ সালের ১ মার্চ থেকে সারাদেশে পাতলা পলিথিন ব্যাগ উৎপাদন, বাজারজাতকরণ, মজুদ ও ব্যবহার নিষিদ্ধ ঘোষণা করে সরকার। মাঝে দীর্ঘদিন পলিথিন ব্যাগের ব্যবহার বন্ধ থাকলেও গত কয়েক বছর ধরে আবারো শুরু হয়েছে এ ব্যবহার। বিশেষ করে চাঁপাইনবাবগঞ্জে পেয়ারা চাষে অবাধে ব্যবহার করা হচ্ছে নিষিদ্ধ পলিথিন ব্যাগ। মাছি পোকার আক্রমণ থেকে পেয়ারা রক্ষায় চাষিরা প্রতিটি গাছের পেয়ারায় পলিথিন ব্যাগ ব্যবহার করছেন।
চাঁপাইনবাবগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে চাঁপাইনবাবগঞ্জের ৯৮০ হেক্টর জমিতে বাণিজ্যিক ভিত্তিতে থাই পেয়ারার চাষ হচ্ছে। বছরে প্রতি হেক্টর জমিতে গড়ে ৩০ হাজার পিস পেয়ারা উৎপাদন হয়। আর প্রতিটি পেয়ারায় একটি করে পলিথিন ব্যাগ ব্যবহারের কারণে শুধু চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় বছরে প্রায় ৮৪ টন পলিথিন ব্যাগের ব্যবহার হচ্ছে। গাছ থেকে পেয়ারা সংগ্রহের পর এসব পলিথিন ব্যাগ চলে যাচ্ছে ফসলি জমি, নদী, ড্রেন, নালা, খাল, ডোবায়।
স্থানীয় কৃষি বিজ্ঞানীরা জানান, একটি পলিথিন ব্যাগ প্রকৃতিতে মিশে যেতে সময় লাগে কয়েকশ বছর। জমিতে পড়ে থাকা পলিথিন ব্যাগ কখনই পঁচেনা। ফলে পলিথিনের ওপরে ও নীচের জমিতে পুষ্টি উপাদান পৌঁছতে পারেনা। এতে করে গাছের বৃদ্ধি ব্যাহত হয়। এছাড়া নদী, ড্রেন, নালা, খাল, ডোবা পলিথিনের কারণে বন্ধ হয়ে যাওয়ায় সেচকাজও ব্যাহত হচ্ছে।
সদর উপজেলার আমনুরার পেয়ারা চাষি নাসির আলী জানান, পোকার আক্রমণ থেকে রক্ষায় পেয়ারা চাষে পলিথিন ব্যাগ ব্যবহার করেন তারা। তিনি জানান, সবাই ব্যবহার করছে বলে তিনিও পলিথিন ব্যবহার করছেন। কৃষি বিভাগেরও কেউ তাকে পলিথিন ব্যাগ ব্যবহার করতে নিষেধ করেন নি।
চাঁপাইনবাবগঞ্জ আঞ্চলিক উদ্যানতত্ত্ব গবেষণা কেন্দ্রের ঊর্দ্ধতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ফল বিজ্ঞানী ড. সরফ উদ্দিন জানান, পেয়ারা চাষে পলিথিন ব্যাগের পরিবর্তে কাগজের ব্যাগ ব্যবহার করা যায়। কয়েক বছর ধরে আম উৎপাদনে এমন ব্যাগের ব্যবহার হচ্ছে। পলিথিন ব্যাগ ব্যবহারের কারণে বিদেশে পেয়ারা রফতানি করা যাচ্ছে না। পানিতে ভিজেনা এমন ধরনের কাগজের ব্যাগ ব্যবহার করা হলে পরিবেশ রক্ষার পাশাপাশি বিদেশেও পেয়ারা রফতানির সুযোগ সৃষ্টি হবে বলে জানান তিনি।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ