চাঁপাইনবাবগঞ্জে প্রশাসনের তৎপরতায় কমেছে যান ও লোক চলাচল

আপডেট: এপ্রিল ৩, ২০২০, ১১:০৬ অপরাহ্ণ

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি:


করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে প্রশাসন কঠোর তৎপরতায় বাড়ি থেকে মানুষ বাইরে আসা অনেকাংশে কমে এসেছে। শুক্রবার (৩ এপ্রিল) সকাল থেকে দুুপুর পর্যন্ত শহরের বিভিন্ন স্থানে আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর সদস্যরা মাঠে থাকায় অপ্রয়োজনে চলাচলকারীদের পরিমাণ কমে এসেছে। শহরের বিভিন্ন মোড়ে মোড়ে পুলিশ টহল দেয়ায় মটরসাইকেলসহ অটোরিক্সা চলাচলের সংখ্যা একেবারে কমে গেছে।
শুক্রবার সকালে শহরের পুরাতন বাজার এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, কাঁচাবাজারে ক্রেতাদের সমাগম অন্যান্য দিনের তুলনায় কম ছিল। অপ্রয়োজনে মটরসাইকেল ও ইজিবাইক বের করার দায়ে সকালে বড় ইন্দারা মোড়ে সেগুলো আটক করে পুলিশ। আইন অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পুলিশের পক্ষ থেকে মাইকের মাধ্যমে প্রচারণা অব্যাহত রয়েছে। সাধারণ মানুষকে ঘরে থাকা এবং রাস্তায় অপ্রয়োজনে আড্ডা ও ঘোরাঘুরি না করে বাড়িতে থাকার পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। এছাড়া, সেনাবাহিনীর সদস্যরা জেলার বিভিন্ন স্থানে টহল অব্যাহত রেখেছে। এদিকে, আইন অমান্য করায় বৃহস্পতিবার (২ এপ্রিল) রাতেও জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসন যৌথ অভিযান চালিয়ে অটোরিক্সা চালানোর দায়ে সেগুলোকে আটক করা হয়।
এব্যাপারে জেলা প্রশাসক এজেডএম নূরুল হক বলেন, জেলা প্রশাসনসহ পুলিশবাহিনীর প্রতিটি সদস্য কঠোর অবস্থানে রয়েছে। প্রয়োজন ব্যতিত সাধারণ মানুষ ঘোরাফেরা না করে সেজন্য, মাইকিংয়ের মাধ্যমে প্রচারণা চালানো হচ্ছে। কোনো কারণ ছাড়া বের হলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। আগামী বেশ কিছুদিন সতর্ক থাকতে হবে। এই সময়টাতে মানুষকে ঘরে থাকতেই হবে। জনস্বার্থে এ অভিযান অব্যাহত রাখা হয়েছে। ইতোমধ্যে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে ৮৮ জনকে জরিমানা করা হয়েছে।
এদিকে, সরকারি নির্দেশনাকে উপেক্ষা করে রানিহাটি ও বারোঘরিয়া ইউনিয়নের বিভিন্ন স্থানে দোকান খোলা, অটোরিক্সা চালানো, দোকানে আড্ডাবাজি ও জেলা শহরের নিউমার্কেট এলাকায় দোকান খোলা রাখার দায়ে গত বৃহস্পতিবার বিকেলে থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আলমগীর হোসেনের নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালতের একটি দল অভিযান চালায়।
অন্যদিকে, চাঁপাইনবাবগঞ্জে হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছে ১০১ জন। মেয়াদ শেষ হওয়ায় আরও ৬৩ জনকে কোয়ারেন্টাইন থেকে ছাড়পত্র দেয়া হয়েছে। এছাড়া, নিম্ন আয়ের লোকজনের খাদ্য সহায়তা হিসেবে জেলার ৫টি উপজেলা ও ৪টি পৌরসভায় ২৫৮ মেট্রিক টন চাল এবং ৫ লাখ ৬০ হাজার টাকা ২৫ হাজার ৮০০ পরিবারের মধ্যে বিতরণ করা হয়েছে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ