চাঁপাইনবাবগঞ্জে রেললাইন ঘেঁষে গড়ে উঠেছে দোকান

আপডেট: জুলাই ৯, ২০২০, ১:৩০ অপরাহ্ণ

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি :


চাঁপাইনবাবগঞ্জে রেললাইনের ওপর রাখা হচ্ছে বিভিন্ন ভাংড়ি মালামাল, সেইসাথে রেললাইন ঘেঁষে গড়ে উঠেছে অস্থায়ী দোকান। এছাড়া লাইনের পাশেই শুকানো হচ্ছেও বস্তিবাসীর কাপড়-চোপড়। এতে করে রেল দুর্ঘটনার আশংকা দেখা দিয়েছে। জানা গেছে, চাঁপাইনবাবগঞ্জ রেলস্টেশনে সীমানা প্রাচীর না থাকায় রেললাইনের পশ্চিমপ্রান্তে ইঞ্জিন ক্রসিং এলাকা ঘেঁষে বেশ কিছু ভাংড়ি ও লোহালক্কড়ের দোকান গড়ে উঠেছে। এসব ভাংড়ির দোকানিরা রেললাইনের উপর ভাংড়ি মালামাল ও চাটাই ফেলে রাখছে। এছাড়া বিভিন্ন ময়লা-আবর্জনা থেকে কুড়িয়ে আনা এসব মালামাল রাখায় আশপাশের পরিবেশ ও জনস্বাস্থ্যও রয়েছে হুমকির মুখে। কারণ বিভিন্ন ক্লিনিক ও হাসপাতাল থেকে কুড়িয়ে আনা মারাত্মক ছোঁয়াচে রোগ সংবলিত সিরিঞ্জ, স্যালাইনের খালি ক্যানসহ বাসাবাড়ির ময়লা-আবর্জনা থেকে আনা প্লাস্টিক সামগ্রীর জীবাণু বাতাসের মাধ্যমে স্টেশনের পরিবেশ দূষিত হচ্ছে। সেই সাথে রেললাইনের পাশে গড়ে ওঠা এসব ভাংড়ি দোকান থেকে ছড়ানো রোগ-জীবাণু মানুষের শরীরেও প্রবেশ করে মানুষকে অসুস্থ করে তুলতে পারে বলে শংকা রয়েছে। প্রতিদিন সকাল ৮ টা থেকে রাত ৭ টা পর্যন্ত চলে এসব দোকানের কার্যক্রম। এছাড়া, পশ্চিমপ্রান্তে রেললাইন ঘেষে কলা, ডাবসহ বিভিন্ন পণ্য বিক্রি করাসহ আশপাশের বসবাসকারীদের পালিত গরু-ছাগলও রেললাইনের উপর বেঁধে রাখা হয়। এদিকে, পূর্বপ্রান্তের বস্তিবাসীরা রেললাইনের পিলারগুলোতে তার টাঙ্গিয়ে তাতে ব্যবহৃত কাপড়-চোপড় শুকাতে দিচ্ছে। অন্যদিকে রেললাইন ঘেষে বেশ কয়েকটি কামারের দোকানও রয়েছে। এতে করে বড় ধরনের রেল দুর্ঘটনা ঘটতে পারে বলে অনেকেই মনে করছেন। এব্যাপারে চাঁপাইনবাবগঞ্জ রেলস্টেশন মাস্টার মো. মনিরুজ্জামান জানান, মাঝে মধ্যে উচ্ছেদ অভিযান চালালেও তারা আবার বসে যাচ্ছে। তবে রেলস্টেশনটি নিরাপত্তাবেষ্টনি গড়ে তুললে কোনো সমস্যা থাকবে না। তিনি আরো জানান, রেললাইনের দু’পাশে ১০ ফিট করে জায়গায় ১৪৪ ধারা জারি থাকলেও কেউ তা মানে না।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ