চারণকবি বিজয় সরকারের জন্মদিন আজ

আপডেট: ফেব্রুয়ারি ১৮, ২০২২, ১২:৪০ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক:


১৯০৩ সালের এইদিনে (৭ ফাল্গুন-১৩০৯ বাংলা) নড়াইলের প্রত্যন্ত অঞ্চল ডুমদি গ্রামে চারণ কবি বিজয় সরকারের জন্ম। বাবা নবকৃষ্ণ অধিকারী ও মা হিমালয়া দেবী। বিজয় সরকার নবমশ্রেণি, মতান্তরে মেট্রিক (এসএসসি) পর্যন্ত লেখাপড়া করেছেন।
দুই স্ত্রী -বীণাপাণি ও প্রমোদা অধিকারীর কেউই বেঁচে নেই। ছেলে কাজল অধিকারী, বাদল অধিকারী ও মেয়ে বুলবুলি অধিকারী ভারতের পশ্চিমবঙ্গের কেউটিয়ায় বসবাস করছেন। পালিত ছেলে জীবন অধিকারী আছেন ডুমদিতে।

আধ্যত্মিক ও অসাম্প্রদায়িক চেতনার কবি বিজয় সরকার গেয়েছেন- নবী নামের নৌকা গড় / আল্লাহ নামের পাল খাটাও / বিসমিল্লাহ বলিয়া মোমিন / কূলের তরী খুলে দাও…। কিংবা আল্লাহ রসূল বল মোমিন / আল্লাহ রসূল বল / এবার দূরে ফেলে মায়ার বোঝা / সোজা পথে চল…।
আবার স্ত্রী বীণাপাণির মৃত্যুর খবরে গানের আসরেই গেয়েছেন -পোষা পাখি উড়ে যাবে সজনী / ওরে একদিন ভাবি নাই মনে / সে আমারে ভুলবে কেমনে…।

পল্লিকবি জসীমউদ্দীন এর ‘নক্সী কাঁথার মাঠ’ কাব্যগ্রন্থের নায়ক-নায়িকা ‘রূপাই’ ও ‘সাজু’র প্রেমকাহিনী নিয়ে বিজয় সরকার গেয়েছেন-নক্সী কাঁথার মাঠেরে / সাজুর ব্যাথায় আজো রে বাজে রূপাই মিয়ার বাঁশের বাঁশি…। কী সাপে কামড়াইলো আমারে / ওরে ও সাপুড়িয়ারে / আ…জ্বলিয়া পুড়িয়া মলেম বিষে…।
মৃত্যুর কথা স্মরণ করে লিখেছেন -যেমন আছে এই পৃথিবী / তেমনিই ঠিক রবে / সুন্দর পৃথিবী ছেড়ে / একদিন চলে যেতে হবে…। এসব গানসহ প্রায় আঠার শ’ গান লিখেছেন তিনি।

বিজয় সরকার একাধারে গীতিকার, সুরকার ও গায়ক ছিলেন। তার প্রকৃত নাম বিজয় অধিকারী হলেও সুর, সঙ্গীত ও অসাধারণ গায়কীর জন্য ‘সরকার’ উপাধি লাভ করেন। পেয়েছেন একুশে পদকও। শিল্পকলায় বিশেষ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ কবিয়াল বিজয় সরকারকে মরণোত্তর একুশে পদকে (২০১৩) ভূষিত করা হয়।